ঢাকা, রবিবার, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৪ আগস্ট ২০২২, ১৫ মহররম ১৪৪৪

বিনোদন

কিংবদন্তির বিদায়, মলিন হয়ে গেলো সবকিছু

বিনোদন ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৩৪৯ ঘণ্টা, নভেম্বর ১৫, ২০২০
কিংবদন্তির বিদায়, মলিন হয়ে গেলো সবকিছু সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় আর নেই। একটি অধ্যায়ের সমাপ্তি।

৮৬ বছরে বয়সে শেষ হল সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের কর্মময় পথচলা। হাসপাতালে দীর্ঘ লড়াইয়ের পর বিদায় নিলেন প্রবাদপ্রতিম অভিনেতা, নাট্যকার-বাচিকশিল্পী-কবি ও চিত্রকর সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়।  

রোববার (১৫ নভেম্বর) দুপুর ১২টা ১৫ মিনিটে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। রেখে গেলেন সৃষ্টিকর্মের আলোকিত নির্মাণ। তবুও কিংবদন্তির বিদায়ে মলিন হয়ে গেলো সবকিছু। বিষণ্ণ ছুটির সুর বাজল দীপাবলি উৎসবের মধ্যেই। অসংখ্য ভক্ত-অনুরাগী মানতে পারছেন না- চলে গেলেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়!

বাংলার শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র নির্মাতা সত্যজিৎ রায়ের ৩৪টি সিনেমার মধ্যে ১৪টিতেই অভিনয় করেছেন তিনি।

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের জন্ম ১৯৩৫ সালের ১৯ জানুয়ারি। তার আদিপুরুষদের বাড়ি ছিল বাংলাদেশের কুষ্টিয়া জেলার শিলাইদহের কাছে কয়া গ্রামে। তার পিতামহের আমল থেকে চট্টোপাধ্যায় পরিবারের সদস্যরা বর্তমান পশ্চিমবঙ্গের নদিয়া জেলার কৃষ্ণনগরে থাকতে শুরু করেন। সৌমিত্রের পিতা কলকাতা হাইকোর্টের আইনজীবী ছিলেন।

সৌমিত্র পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেন কৃষ্ণনগরের সেন্ট জন্স বিদ্যালয়ে। তারপর বাবার চাকরি বদলের কারণে তার বিদ্যালয়ও বদল হতে থাকে। তিনি বিদ্যালয়ের পড়াশোনা শেষ করেন হাওড়া জিলা স্কুল থেকে। তারপর কলকাতার সিটি কলেজ থেকে প্রথমে আইএসসি এবং পরে বিএ অনার্স (বাংলা) পাস করেন। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের আমহার্স্ট স্ট্রীট সিটি কলেজে সাহিত্য নিয়ে পড়াশোনা করেন তিনি।

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় ১৯৫৯ খ্রিষ্টাব্দে প্রথম সত্যজিৎ রায়ের পরিচালনায় ‘অপুর সংসার’ সিনেমায় অভিনয় করেন। পরবর্তীকালে তিনি মৃণাল সেন, তপন সিংহ, অজয় করের মত বিখ্যাত পরিচালকদের সঙ্গেও কাজ করেছেন। সিনেমা ছাড়াও তিনি বহু নাটক, যাত্রা ও টিভি ধারাবাহিকে অভিনয় করেছেন। অভিনয় ছাড়া তিনি নাটক ও কবিতা লিখেছেন, নাটক পরিচালনা করেছেন। তিনি একজন খুব উচ্চমানের আবৃত্তিকার ছিলেন।

চলচ্চিত্রে সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় সর্বপ্রথম কাজ প্রখ্যাত চলচ্চিত্র নির্মাতা সত্যজিৎ রায় নির্মিত ‘অপুর সংসার’ (১৯৫৯) সিনেমায়। তিনি এর আগে রেডিওর ঘোষক ছিলেন এবং মঞ্চেও অভিনয় করতেন। ধীরে ধীরে তিনি সত্যজিৎ রায়ের সঙ্গে ১৪টি সিনেমায় অভিনয় করেন। তার অভিনীত কিছু কিছু চরিত্র দেখে ধারণা করা হয়, তাকে মাথায় রেখেই গল্প বা চিত্রনাট্যগুলো লেখা হয়েছে।

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় অভিনীত চরিত্রগুলোর ভিতরে সব থেকে জনপ্রিয় হলো ফেলুদা। তিনি সত্যজিৎ রায়ের পরিচালনায় ‘সোনার কেল্লা’ এবং ‘জয় বাবা ফেলুনাথ’ সিনেমায় ফেলুদার ভূমিকায় অভিনয় করেন। প্রথমে ফেলুদা চরিত্রে তার চেয়েও ভালো কাউকে নেওয়ার ইচ্ছে থাকলেও তার অভিনীত ফেলুদার প্রথম সিনেমো ‘সোনার কেল্লা’ বের হওয়ার পর সত্যজিৎ রায় স্বীকার করেন, তার চেয়ে ভালো আর কেউ চরিত্রটি করতে পারতেন না।

বাংলাদেশ সময়: ১৩৪৯ ঘণ্টা, নভেম্বর ১৫, ২০২০
ওএফবি/এমকেআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa