ঢাকা, সোমবার, ১৩ আশ্বিন ১৪২৭, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯ সফর ১৪৪২

বিনোদন

প্রিয়াঙ্কার প্রেমে পড়েছিলেন অক্ষয়, ভাঙতে বসেছিল সংসার!

বিনোদন ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৫২৩ ঘণ্টা, আগস্ট ১৩, ২০২০
প্রিয়াঙ্কার প্রেমে পড়েছিলেন অক্ষয়, ভাঙতে বসেছিল সংসার!

শাহরুখ-গৌরীর মতো অক্ষয় কুমার ও টুইঙ্কল খান্নাও বলিউডের অন্যতম সুখী দম্পতি হিসেবে পরিচিত। কিন্তু তাদের দাম্পত্যও টলমল করেছে একসময়।

আর তার কারণ ছিলেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। টুইঙ্কলের কাছে একবার নাকি অক্ষয় স্বীকারও করেছিলেন, তিনি প্রিয়াঙ্কার প্রতি দুর্বল।

ক্যারিয়ারের শুরুতে প্রিয়াঙ্কা অভিনয় করেছিলেন ‘আন্দাজ’ সিনেমায়। সুপারহিট এ সিনেমায় অক্ষয়-প্রিয়াঙ্কা জুটি দর্শকরা খুব পছন্দ করেছিল। এরপর বেশ কয়েকটি সিনেমায় দু’জনে কাজ করেন। ২০০১ সালে টুইঙ্কল খান্নাকে বিয়ের পরেও বলিউডে অক্ষয়ের ‘প্লে বয়’ ভাবমূর্তি বজায় ছিল। টুইঙ্কল অবশ্য নিজের ক্যারিয়ারকে বিদায় দেন। বিয়ের পরে অন্য নায়িকার সঙ্গে অক্ষয়ের নাম জড়িয়ে গেলে টুইঙ্কল ক্ষুব্ধ হতেন স্বাভাবিকভাবেই।

বিয়ের পরেও অক্ষয়ের প্রথম লক্ষ্য ছিল ক্যারিয়ার। কিন্তু প্রিয়াঙ্কার সৌন্দর্য ও ব্যক্তিত্বের আকর্ষণ উপেক্ষা করতে পারেননি তিনি। প্রথম দিকে তাদের সম্পর্কের গুঞ্জনকে গুরুত্ব দিতেন না টুইঙ্কল। উড়িয়ে দিতেন গুজব বলে। কিন্তু ক্রমে টুইঙ্কলের সন্দেহ দৃঢ় হতে থাকে। ‘ওয়াক্ত’ সিনেমার শুটিংয়ে টুইঙ্কল নিজেই গিয়ে হাজির হন। সে সময় ইউনিটের লোকজনের সঙ্গে কথা বলে তিনি আন্দাজ করতে পারেন প্রিয়াঙ্কার সঙ্গে তার স্বামীর সম্পর্ক ‘নিছক বন্ধুত্বের’ সীমানা পেরিয়ে গেছে।

এরপর স্বামীর সঙ্গে কথা না বলে প্রিয়াঙ্কাকেই ফোন করেন টুইঙ্কল। ফোনে দুই নায়িকার মধ্যে উত্তপ্ত কথা কাটাকাটি হয়। এখানেই শেষ হয়নি, জল গড়িয়ে যায় আরও বহুদূর। আরও একবার শুটিংস্পটে হাজির হন টুইঙ্কল। উদ্দেশ্য ছিল, প্রিয়াঙ্কার সঙ্গে মুখোমুখি কথা বলা। কিন্তু সেদিন প্রিয়াঙ্কা ছিলেন না শুটিংয়ে। পরিবর্তে, স্বামীর মুখোমুখি হন টুইঙ্কল। গোয়ার ওই হোটেলের কর্মীদের দাবি, প্রকাশ্যেই চরমে ওঠে দু’জনের বাদানুবাদ। তাদের কথা কাটাকাটিতে বার বার উঠে এসেছিল প্রিয়াঙ্কার নাম।

প্রত্যক্ষদর্শীদের দাবি, ঝগড়ার মধ্যে মেজাজ হারিয়ে স্থান-কাল-পাত্র ভুলে অক্ষয় নাকি বলে ওঠেন, হ্যাঁ, প্রিয়াঙ্কার সঙ্গে তার প্রেম আছে। আর এর মাসুল দিতে হয়েছিল অক্ষয়কে। তাকে এবং দু’বছরের ছেলে আরভকে গোয়ায় রেখে টুইঙ্কল মুম্বাই ফিরে গিয়েছিলেন। যদিও পরে টুইঙ্কল এ প্রসঙ্গে বলেছিলেন, তিনি দুবাই গিয়েছিলেন। ছেলে আরভ ছিল গোয়ায়, তার বাবার সঙ্গে। দাম্পত্য বিবাদের কথা স্বীকার করেননি রাজেশ-কন্যা। এই ঘটনার কথা অস্বীকার করেছিলেন অক্ষয়ও।

সে সময় বলিউডে পরপর বিচ্ছেদ হচ্ছিল তারকা-দম্পতির। তখন রীনা দত্তের সঙ্গে আমির খানের বিয়ে ভেঙে গিয়েছিল। আলাদা হয়ে গিয়েছিলেন সাইফ আলী খান ও অমৃতা। মুখ থুবড়ে পড়েছিল সালমান খান ও ঐশ্বরিয়ার প্রেম। এরকম একটা সময়ে জেগে ওঠে অক্ষয়-টুইঙ্কলের বিচ্ছেদের আশঙ্কাও।

এরপর অক্ষয় জানিয়ে দেন, তিনি আর প্রিয়াঙ্কার সঙ্গে অভিনয় করবেন না। তিনি চেয়েছিলেন তার দাম্পত্যকে বাঁচাতে। তার এ কথায় একই সঙ্গে আহত ও বিস্মিত হয়েছিলেন প্রিয়াঙ্কা। তিনিও বলে দেন, অক্ষয়ের সঙ্গে এরপর আর কাজ করবেন না।

‘ওয়াক্ত’ সিনেমার পরে এই জুটিকে আর পর্দায় দেখা যায়নি। ‘নমস্তে লন্ডন’ সিনেমায় অভিনয় করার কথা ছিল প্রিয়াঙ্কার। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তার জায়গায় অভিনয় করেন ক্যাটরিনা কাইফ। তবে অক্ষয়ের সঙ্গে সম্পর্কের কথা কোনওদিন স্বীকার করেননি প্রিয়াঙ্কা।

বাংলাদেশ সময়: ১৫২০ ঘণ্টা, আগস্ট ১৩, ২০২০
এমকেআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa