bangla news

বৃহস্পতিবার শুরু হচ্ছে ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব

ফিচার ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০১-০৯ ৪:৩১:৩২ পিএম
সংবাদ সম্মেলনে কথা বলছেন ইলিয়াস কাঞ্চন

সংবাদ সম্মেলনে কথা বলছেন ইলিয়াস কাঞ্চন

ঢাকা: ৭২টি দেশের ২১৮টি চলচ্চিত্রের প্রদর্শনী নিয়ে শুরু হচ্ছে সপ্তদশ ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব। ‘নান্দনিক চলচ্চিত্র, মননশীল দর্শক, আলোকিত সমাজ’ প্রতিপাদ্যে ৯ দিনব্যাপী এ চলচ্চিত্র উৎসব চলবে ১৮ জানুয়ারি পর্যন্ত।

বুধবার (৯ জানুয়ারি) উৎসবের আয়োজক রেইনবো ফিল্ম সোসাইটি কর্তৃক রাজধানীর ঢাকা ক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন উৎসবের পরিচালক আহমেদ মুজতবা কামাল, চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন, আয়োজন কমিটির সদস্য ম. হামিদ, উৎসবের চিফ প্রোগ্রামার জোরেহ জামিনসহ অনেকে।

আয়োজকরা জানান, বৃহস্পতিবার (১০ জানুয়ারি) এবারের উৎসবের উদ্বোধন করবেন বিশিষ্ট সংস্কৃতি অনুরাগী ও সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত। এ সময় আরও উপস্থিত থাকবেন তথ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব আব্দুল মালেক। সভাপতিত্ব করবেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম।

অনুষ্ঠান উদ্বোধন হবে তুরস্ক ও জর্ডানের যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত চলচ্চিত্র ‘দ্যা গেস্ট’ প্রদর্শনীর মধ্য দিয়ে। এটি পরিচালনা করেছেন তুরস্কের আন্দাজ হাজানেদারগুল।

উৎসবের নির্বাচিত চলচ্চিত্রগুলো প্রদর্শিত হবে কয়েকটি সেশনে ভাগ করে। এগুলো হলো- এশিয়ান কম্পিটিশন, রেট্টোস্পেকটিভ বিভাগ, বাংলাদেশ প্যানোরমা, সিনেমা অব দ্য ওয়ার্ল্ড, চিলড্রেসন ফিল্ম, স্প্রিরিচুয়াল ফিল্মস, শর্ট অ্যান্ড ইনপিপেন্ডট ফিল্ম এবং উইমেন্স ফিল্মস। নগরীর কেন্দ্রীয় গণগ্রন্থাগারের শওকত ওসমান স্মৃতি মিলনায়তন, জাতীয় জাদুঘরের কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তন ও প্রধান মিলনায়তন, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা, আলিয়ঁস ফ্রঁসেস মিলনায়তন এবং যমুনা ব্লকবাষ্টার সিনেমায় উৎসবের ছবিগুলো প্রদর্শিত হবে।

পরিচয়পত্র দেখিয়ে দিনব্যাপী প্রদর্শনীতে স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বিনামূল্যে চলচ্চিত্র দেখতে পরবেন। শিশুদের জন্যও থাকছে বিনামূল্যে চলচ্চিত্র উপভোগের সুযোগ। আর সাধারণ দর্শকদের জন্য টিকেটের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৫০ টাকা।

উৎসব উপলক্ষে প্রতিবারের মতো এবারও ১১ ও ১২ জানুয়ারি রাজধানীর আলিয়ঁস ফ্রঁসেস মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হবে ‘উইমেন্স ফিল্ম মেকারস কনফারেন্স ’। এতে আন্তর্জাতিক নারী চলচ্চিত্র নির্মাতা ও ব্যক্তিত্বরা অংশ নেবেন। ৬০টি দেশ থেকে উৎসবে যোগ দেবেন সম্মানিত নাগরিকবৃন্দ, আন্তর্জাতিক খ্যাতিমান চলচ্চিত্রকার, সাংবাদিক, চলচ্চিত্র সমালোচকরা। থাকবেন রেইবো ও অন্যান্য চলচ্চিত্র সংসদের সদস্যরা।

আয়োজক প্রতিষ্ঠান থেকে জানানো হয়, সারাবিশ্বেই নারীদের অবস্থান পরিবর্তন ঘটছে। বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশেও নারীদের সর্বক্ষেত্রে উন্নয়ন ঘটছে। এসব বিষয়ে তথ্যাবলী উৎসবে উপস্থাপিত হবে। এই উদ্দেশ্যে এবারের উৎসবে পঞ্চমবারের মতো নারী চলচ্চিত্র নির্মাতারা অংশ নিচ্ছেন। একইসাথে নির্মাতাদের মিথস্ক্রিয়ামূলক দিনব্যাপী সেমিনার ‘ওয়েস্ট মিটস ইস্ট’ শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হবে ১৪ জানুয়ারি। যার মূল উদ্দেশ্য পশ্চিমা ও পাশ্চাত্যের একাত্মতাকে আরও ঋদ্ধ করা।

রেইনবো চলচ্চিত্র সংসদ ১৯৭৭ সাল থেকে চলচ্চিত্র সংসদ আন্দোলনের সাথে সংশ্লিষ্ট থাকলেও ১৯৯২ সাল থেকে দ্বিবার্ষিক পরিকল্পনায় আয়োজন করে চলেছে এদেশের সর্ববৃহৎ এবং জমকালো এ চলচ্চিত্র উৎসব।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৩০ ঘণ্টা, জানুয়ারি ০৯, ২০১৯
এইচএমএস/জেআইএম

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   চলচ্চিত্র
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-01-09 16:31:32