bangla news

ফুটবল ফুটবল সুরধ্বনি

825 |
আপডেট: ২০১৪-০৬-১১ ১২:০০:০০ পিএম
ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ফুটবল মানেই উন্মাদনা আর আবেগে ভেসে যাওয়া। ফুটবলের বৈশ্বিক আয়োজন বিশ্বকাপ ফুটবল উপলক্ষে দেশীয় ফুটবলপ্রেমীদের উৎসাহ ও আনন্দ দিতে গান বেঁধেছেন গানের শিল্পীরা। গত বিশ্বকাপেও অনেকে নতুন গান গেয়েছিলেন অনেকে।

ফুটবল মানেই উন্মাদনা আর আবেগে ভেসে যাওয়া। ফুটবলের বৈশ্বিক আয়োজন বিশ্বকাপ ফুটবল উপলক্ষে দেশীয় ফুটবলপ্রেমীদের উৎসাহ ও আনন্দ দিতে গান বেঁধেছেন গানের শিল্পীরা। গত বিশ্বকাপেও অনেকে নতুন গান গেয়েছিলেন অনেকে। বাংলানিউজের বিনোদন বিভাগের বিশেষ আয়োজনে ফকির আলমগীর, আইয়ুব বাচ্চু, শুভ্রদেব, এসআই টুটুল ও বাপ্পা মজুমদার কথা বলেছেন ফুটবলের নানা স্মৃতি ও তাদের গান নিয়ে।

‘আমি ছোটবেলা থেকেই ব্রাজিলের খেলার ভক্ত। এবারের বিশ্বকাপে শুধু তাদের খেলাই নয়, প্রতিটি ম্যাচই দেখার ইচ্ছে আছে। বাসা ও স্টুডিওতে খেলা দেখব এবার। এবার কোন দলের খেলাই মিস করতে চাই না। দল হেরে গেলে হয়তো চেঁচামিচি করব, কিন্তু খেলাটা উপভোগ করতে চাই।’

যোগ করে তিনি বললেন, বিশ্বকাপের প্রসঙ্গ এলেই ছোটবেলার কথা মনে পড়ে। একসময় স্কুলপড়–য়া বন্ধুদের নিয়ে সারারাত খেলা দেখেছি। ম্যাচ শেষে মালিবাগে গিয়ে একসঙ্গে ডিম-পরাটা খেয়ে ঘরে ফেরা হতো’, বিশ্বকাপ ফুটবল নিয়ে উচ্ছ্বাসের ঢঙে কথাগুলো বলছিলেন সংগীতশিল্পী বাপ্পা মজুমদার।

এবারই প্রথম বিশ্বকাপ ফুটবল নিয়ে গান তৈরি করেছেন বাপ্পা। তার সুর ও সঙ্গীতায়োজনে 'সম্প্রীতির বন্ধনে খেলছে পুরো বিশ্ব/ফুটবলে মেতেছে সবাই/পেলে ম্যারাডোনার শিষ্য’ কথার গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছেন সামিনা চৌধুরী, হাসান আবিদুর রেজা জুয়েল, বাপ্পা মজুমদার, এলিটা করিম, কনা, জয় শাহরিয়ার, পারভেজ ও পূজা। ১০ জুন এফডিসিতে গানটির ভিডিওচিত্রের চিত্রায়ণ হয়েছে। ১২ জুন থেকে এটি প্রচার হবে বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে।

আইয়ুব বাচ্চুও এবারের বিশ্বকাপ ফুটবল নিয়ে গান বেঁধেছেন। ‘দোল লাগে দোল, প্রাণে লাগে দোল/পায়ে লাগে ছন্দ প্রাণে ফুটবল’ কথার গানটি লিখেছেন সাজ্জাদ হুসাইন। এতে কণ্ঠ দিয়েছেন ‘চ্যানেল আই-সেরাকণ্ঠ’ ও ‘ক্ষুদে গানরাজ’-এর ১০ শিল্পী।

গান নিয়ে তো কথা হলো, এবার তার খেলা দেখা নিয়ে পরিকল্পনা কী? উত্তরে আইয়ুব বাচ্চু বললেন, ‘আগে থেকেই ব্রাজিলের খেলা পছন্দ করি। এবার সঙ্গে যোগ দিয়েছে আমার ছেলে তাজোওয়ার। আমরা ঘরে বসে খেলা দেখব। আর এবার ব্রাজিলের খেলা না দেখে প্রিয় খেলোয়াড়ের নাম বলতে চাই না। আগে শুরুর কয়েকটি ম্যাচ দেখতে চাই, তারপর বলব এই দলে কে আমার প্রিয় খেলোয়াড়।’

সঙ্গীত পরিচালক শওকত আলী ইমন বিশ্বকাপ ফুটবল নিয়ে জানালেন ভিন্ন কথা। সবসময়ই ব্রাজিল তার প্রিয় দল। গতবার ব্রাজিল হারার পর রাগে জার্সি খুলে একজনকে দান করে দিয়েছিলেন তিনি। তবে এখন ওই মুহূর্ত মনে পড়লে আপনাআপনি হেসে দেন তিনি। এবার অবশ্য ব্রাজিলকে নিয়ে তার অনেক আশা। ইমন বললেন, ‘আসরের প্রথম খেলা গুলশানে বন্ধু লিটনের বাসায় দেয়ালে বড় প্রজেক্টর লাগিয়ে দেখব। সঙ্গে থাকবে শৈশবের আরও চার বন্ধু রাজন, রাসেল, রুশেদ, মন্টি। তবে ঝামেলা হলো আমি তো ব্রাজিল আর ওরা আর্জেন্টিনাসহ অন্য দলের ভক্ত।’

কণ্ঠশিল্পী ফকির আলমগীরের বয়স ৬৫ ছুঁই ছুঁই করছে। এই বয়সেও রাত জেগে প্রায়ই ফুটবল খেলা দেখেন এই গণসংগীত শিল্পী। তার প্রিয় দল ব্রাজিল। এর আগে তিনি ‘জাদু জানে ফুটবল’ ও ‘বিশ্বকাপ ফুটবল খেলা, অন্তরে অনুভবে দিচ্ছে দোলা’ কথার গান করেছিলেন। এবারও থাকছে তার নতুন একটি গান। ফকির আলমগীর বলেন, ‘এবার নতুন একটি গান করেছি। তপন বাগচীর লেখা গানটির কথা, ‘বাজল বাঁশি বিশ্বজুড়ে/ বিশ্বকাপের বাঁশিরে/ হাসুক জিতুক সবার মুখে ফুটিল আজ হাসিরে..’। ফকির আলমগীর বললেন, ‘যুবকরা তো হৈ-হুল্লোড়ের জন্য খেলা দেখে আর প্রিয় দলের জার্সি উড়িয়ে ভক্ত হয়। আর আমাদের মতো বয়সের মানুষরা ফুটবল খেলা মন দিয়ে দেখে ও যুবকদের চেয়ে বেশি উন্মাদনায় মনে মনে মাতে।’

বিশ্বকাপ ফুটবল নিয়ে শুভ্রদেবের সঙ্গে কথা বলতেই তিনি বলতে শুরু করলেন, ‘ফুটবল বিশ্বকাপ সামনে তাই অন্যরকম একটি আনন্দ মনে। গতবারের বিশ্বকাপে শহীদুল আজমের লেখা ‘এক গোলে বিশ কাঁপে/থেমে যায় সব যুদ্ধ/ ফুটবল বাঁচার প্রেরণা/জীবন করে শুদ্ধ’ কথার একটি গান করেছিলাম। গানটি নতুন করে শব্দ সম্পাদনা করে ভিডিও বানিয়েছি এবারের জন্য। চ্যানেল আইয়ে প্রচার হবে এটি।’

ছোটবেলা থেকেই ব্রাজিলের ভক্ত শুভ্রদেব। এ নিয়ে মজার স্মৃতিও আছে তার। তিনি বললেন, ‘১৯৯৮ সালে ফ্রান্সে বিশ্বকাপ খেলা দেখার জন্য গিয়েছিলাম। সেখানে ব্রাজিলের এক ম্যাচে রোমারিওকে বাদ দেওয়ার কারণে ক্ষোভে খেলা না দেখে দেশে ফিরে আসি। এবার ব্রাজিলের সব ম্যাচ দেখতে চাই।’

‘৩২ জাতি একই মাতামাতি, পায়ে পায়ে বল, হাতে হাতে ফল, বিশ্বকাপ ফুটবল' কথার একটি গান গত বিশ্বকাপে তৈরি করেছিলেন এসআই টুটুল। এটি লিখেছিলেন পলাশ মাহবুব। এবার নতুন কোনো গান তার কণ্ঠে না থাকলেও সুযোগ পেলেই খেলা দেখতে বসে যাবেন বলে জানান তিনি। যদিও অনেকটা আক্ষেপের সুরে তিনি বললেন, ‘আমি মনে হয় এবার খেলা দেখতে পারব না। কারণ প্যারিস, লন্ডন, মালোয়েশিয়াসহ অনেক দেশে কনসার্ট আছে। খেলা ঠিকমতো দেখা হবে না। তবে আমি ব্রাজিলের খেলার ভক্ত। সুযোগ পেলেই খেলা দেখতে চাই।’

বাংলাদেশ সময় : ২১৫৯ ঘণ্টা, জুন ১১, ২০১৪

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
db 2014-06-11 12:00:00