ঢাকা, বুধবার, ৮ ফাল্গুন ১৪৩০, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১০ শাবান ১৪৪৫

বিনোদন

আচমকা কলকাতা বইমেলায় অপু বিশ্বাস

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮৫৫ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২, ২০২৩
আচমকা কলকাতা বইমেলায় অপু বিশ্বাস কলকাতা বইমেলায় অপু বিশ্বাস

কলকাতা: চলছে আন্তর্জাতিক কলকাতা বইমেলা। স্বভাবতই দেশি-বিদেশিদের অতিথিদের ভীড় লেগে রয়েছে বইমেলা প্রাঙ্গনে।

সেই প্রাঙ্গনে বৃহস্পতিবার (২ ফেব্রুয়ারি) আচমকা ঘুরে হাজির হন অভিনেত্রী অপু বিশ্বাস। ঘুরে দেখেন মেলা প্রাঙ্গন। কিছুক্ষণ সময় কাটান বঙ্গ ভবনের আদলে তৈরি বাংলাদেশ প্যাভেলিয়ানে।

অভিনেত্রীর পরনে অ, ক, খ লেখা কালো পেড়ে সাদা শাড়ী। হালকা মেকাপ মুখে একগাল হাসি। হঠাৎ এন্ট্রি কলকাতা বইমেলা প্রাঙ্গনে। অভিনেত্রীর মেলায় এন্ট্রি নিতেই লাগে ভক্তদের ভীড়। অনেকের কণ্ঠে শোনা যায়, ‘দিদি আপনাকে চিনি, আমি আপনার ফ্যান, একটা সেলফি নেবো’।  

মাঘ মাসের দুপুরে কলকাতায় চৈত্রের গরম। সেই গরমকে উপেক্ষা করে মেটালেন ভক্তদের আবদার। এগিয়ে এলেন বই মেলার আয়োজক বুক সেলার্স এন্ড পাবলিসার্স গিল্ডের সভাপতি সুধাংশু শেখর দে, সম্পাদক ত্রিদিব চট্টোপাধ্যায়সহ বিশিষ্টরা।

গিল্ডের পক্ষ থেকে তার হাতে তুলে দেওয়া হয় উপহার। চারিদিকে তখন ভারতীয় প্রতিনিধি এবং বাংলাদেশ গণমাধ্যমের কলকাতা প্রতিনিধিরা। সকলের সামনেই অপুর অভিমত, সবচেয়ে ভালো লাগছে আমার দেশের সংবাদ মাধ্যমের পরিচিত মুখগুলোকে দেখতে পাচ্ছি। এর আগে কলকাতায় ইন্দো-বাংলাদেশ প্রেসক্লাব সংবর্ধিত করে। আমি তাদেরই একজন।  

২০২২ সালের ১২ অক্টোবর ইন্দো-বাংলা প্রেসক্লাব তাকে সম্বর্ধনা দেয় এবং তিনি সাম্মানিক সদস্য পদ গ্রহণ করেন।

অভিনেত্রী বলেন, কলকাতা বইমেলায় আজকেও আমার আসার সৌভাগ্য হয়েছে এবং বইমেলায় সম্বর্ধনা পাওয়া অনেক গর্বের। আমার মনে হয় শিক্ষার শুরু যেখান থেকে, মানুষ যেখান থেকে নিজেকে তৈরি করতে পারেন তার নাম বই। তাই আমার বইমেলা একটা ভালো লাগার জায়গা।

এরপরই তিনি বলেন, একুশের বইমেলা আমাদের জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করেন এবং ৪৬তম কলকাতা বইমেলায় উদ্বোধন করেন মুধ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যেপাধ্যায়। দুইজনেই জননেত্রী। তবে কলকাতার বইমেলায় বাংলাদেশের প্যাভেলিয়ান অন্য একটা গুরুত্ব পায় দিশার দিক থেকে ভালোবাসার দিক থেকে। তাই অনেক বাংলাদেশি এই বইমেলাের অংশগ্রহণ করেন।

বাংলাদেশেও হোক কলকাতা প্যাভেলিয়ান এমন আশা ব্যক্ত করেন গিল্ড কতৃপক্ষ। এর উত্তরে অপু বলেন, আমাদের  প্রধানমন্ত্রী বইমেলাকে সবচেয়ে গুরুত্ব দিয়ে থাকেন এবং ভারত আমাদের বন্ধুপ্রতীম দেশ। আমরাও তাই মনে করি। বন্ধুত্ব শুরু হয় ছোটবেলা থেকে। ছোটবেলায় আমার বন্ধুত্ব হয়েছিল মীনা কার্টুনের বই দিয়ে। আসলে বইয়ে বাইরে আমারা কেউ নই। এখানে যেমন বাংলাদেশ বইয়ের গুরুত্ব পায় তেমন নিশ্চয়ই একদিন বাংলাদেশেও পশ্চিমবঙ্গের বই যাবে।

অভিনেত্রী তার নতুন সিনেমা ‘লাল শাড়ি’ বিষয়ে বলেন, কাজ প্রায় শেষ, সুন্দর একটা দিন দেখে ঈদের মধ্যে মুক্তি দিতে চাই। সলকেই আশীর্বাদ করবেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৮৫৫ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ০২, ২০২২
ভিএস/এনএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।