ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ মাঘ ১৪২৯, ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১০ রজব ১৪৪৪

নির্বাচন ও ইসি

রসিক ভোট: ইসির নিরপেক্ষতা সমুজ্জ্বল রাখতে রিটার্নিং কর্মকর্তাকে নির্দেশ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১১৫ ঘণ্টা, নভেম্বর ১৫, ২০২২
রসিক ভোট: ইসির নিরপেক্ষতা সমুজ্জ্বল রাখতে রিটার্নিং কর্মকর্তাকে নির্দেশ

ঢাকা: আসন্ন রংপুর সিটি করপোরেশন (রসিক) ভোটে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) নিরপেক্ষতা ও গ্রহণযোগ্যতা সমুজ্জ্বল রাখতে রিটার্নিং কর্মকর্তা ছয়টি নির্দেশনা দিল সংস্থাটি।
 
মঙ্গলবার (১৫ নভেম্বর) ইসির নির্বাচন ব্যবস্থাপনা শাখার উপ-সচিব মো. আতিয়ার রহমান নির্দেশনাগুলো রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আবদুল বাতেনকে পাঠিয়েছেন।


 
নির্দেশনায় বলা হয়েছে- রসিক নির্বাচনে নির্বাচন কমিশনের নিরপেক্ষতা ও গ্রহণযোগ্যতা সবার কাছে সমুজ্জ্বল ও রিটার্নিং অফিসার এবং অন্যান্য কর্মকর্তাদের ছয়টি ব্যবস্থা নিতে হবে।
 
(১) বিশেষ কোনো মহলের কোনো প্রকার প্রভাব বা হস্তক্ষেপ নির্বাচনের নিরপেক্ষতা যাতে ক্ষুণ্ন না করতে না পারে তা আইন, বিধিমালা ও আচরণ বিধিমালার আলোকে নিশ্চিত করা;
 
(২) নির্বাচনের ন্যায় একটি সংবেদনশীল, স্পর্শকাতর ও গুরুত্বপূর্ণ কর্মকাণ্ডের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা এমন কোনো কাজ করবেন না, যার দ্বারা তাদেরকে উপযুক্ত কর্তৃপক্ষ বা স্থানীয় জনগণের কাছে হেয় প্রতিপন্ন হতে হয় এবং তারা যে পক্ষপাতদুষ্ট নন এমন ধারণা সৃষ্টির নিশ্চয়তা বিধানকল্পে প্রতিটি কাজে আইন ও বিধির যথার্থ প্রয়োগ ও অনুসরণ করা;
 
(৩) জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের সঙ্গে এলাকার জনগণের যৌথসভা অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সবাইকে ভোটদানে উদ্বুদ্ধ করা;

(8) ভোটদানের জন্য ভোটাররা যাতে নির্বিঘ্নে ও স্বাচ্ছন্দে ভোটকেন্দ্রে আসতে পারেন সে উদ্দেশ্যে নিশ্চয়তামূলক পরিবেশ সৃষ্টির জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী ভ্রাম্যমাণ ইউনিটগুলো কর্তৃক নিবিড় টহলদানের ব্যবস্থা নেওয়া:
 
(৫) ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা এবং গুরুত্বপূর্ণ ভোটকেন্দ্রগুলোতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করতে হবে এবং যে কোনো প্রকার অশুভ কার্যকলাপ প্রতিরোধের উদ্দেশ্যে সদা সতর্ক থাকার জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের কঠোর নির্দেশ দেওয়া; এবং
 
(৬) ভোটকেন্দ্রের অবস্থান সম্পর্কে ভোটারদের জানানোর জন্য নির্বাচনের আগে ব্যাপক প্রচারের ব্যবস্থা করা।
 
তফসিল অনুযায়ী, রসিক ভোটে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষদিন ২৯ নভেম্বর, মনোনয়নপত্র বাছাই ১ ডিসেম্বর, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ৮ ডিসেম্বর, প্রতীক বরাদ্দ ৯ ডিসেম্বর এবং ভোটগ্রহণ করা হবে ২৭ ডিসেম্বর।
 
সকাল সাড়ে ৮টা থেকে বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে ভোটগ্রহণ হবে।
 
২০১৭ সালের ২১ ডিসেম্বর এই সিটিতে সর্বশেষ নির্বাচন হয়েছিল। নির্বাচিত করপোরেশনের প্রথম সভা হয়েছিল ২০১৮ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি। সে অনুযায়ী এ সিটির বর্তমান নির্বাচিতদের মেয়াদ শেষ হবে ২০২৩ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি।

বাংলাদেশ সময়: ২১১২ ঘণ্টা, নভেম্বর ১৫, ২০২২
ইইউডি/এসএ
 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa