ঢাকা, সোমবার, ১৬ ফাল্গুন ১৪২৭, ০১ মার্চ ২০২১, ১৭ রজব ১৪৪২

নির্বাচন ও ইসি

সংশোধিত বাজেটে অতিরিক্ত ১১৫৭ কোটি টাকা চায় ইসি

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১২৪৩ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৯, ২০২১
সংশোধিত বাজেটে অতিরিক্ত ১১৫৭ কোটি টাকা চায় ইসি

ঢাকা: দেশের স্থানীয় সরকার পর্যায়ের বিভিন্ন নির্বাচন আয়োজনের জন্য সংশোধিত বাজেটে অতিরিক্ত এক হাজার ১৫৭ কোটি টাকা চেয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়কে চিঠি দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।  

এছাড়া প্রশিক্ষণ খাতেও অতিরিক্ত ৭৪ কোটি ৩০ লাখ টাকা চেয়েছে সংস্থাটি।

একইসঙ্গে এনআইডি নিবন্ধন অনুবিভাগের চাহিদার প্রেক্ষিত টেলিযোগাযোগ সরঞ্জামাদির জন্য সাত কোটি টাকা এবং  কম্পিউটার সফটওয়্যার ও ডাটাবেজ রক্ষণাবেক্ষণের জন্য ১৫ কোটি টাকা চেয়েছে ইসি।

সম্প্রতি নির্বাচনী ব্যয় খাত, প্রশক্ষিণ, টেলিযোগাযোগ সরঞ্জামাদি এবং সফটওয়‌্যার ও ডাটাবেজ সংরক্ষণের জন্য ২০২০-২০২১ অর্থবছরে পাওয়া বাজেটের সংশোধনী বাজেটে এ অতিরিক্ত টাকা চেয়ে অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব আব্দুর রউফ তালুকদারকে চিঠি দিয়েছেন ইসির সিনিয়র সচিব মো. আলমগীর।

সংশোধনী বাজেট চেয়ে চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, নির্বাচনী ব্যয় হিসাবে ২০২০-২০২১ অর্থবছরের বাজেটে ৪৩৩ কোটি ৪০ লাখ টাকার সংস্থান রাখা হয়েছিল, সেখানে সংশোধিত বাজেটে এক হাজার ৫৯০ কোটি ৯১ লাখ ৮২ হাজার টাকা চাওয়া হয়েছে। নির্বাচনী প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের প্রশিক্ষণ খাতে ৬০ কোটি টাকার সংস্থান রাখা হয়েছিল, সেখানে সংশোধিত বাজেটে ১৩৪ কোটি ৩০ লাখ টাকার বাজেট চাওয়া হয়েছে। ফলে নির্বাচনী ব্যয় খাতে অতিরিক্ত এক হাজার ১৫৭ কোটি ৫১ লাখ ৮২ হাজার টাকা এবং প্রশিক্ষণ খাতে অতিরিক্ত ৭৪ কোটি ৩০ লাখ টাকা প্রয়োজন হবে। একইসঙ্গে জাতীয় পরিচয় (এনআইডি) নিবন্ধন অনুবিভাগের চাহিদার প্রেক্ষিত টেলিযোগাযোগ সরঞ্জামাদির জন্য বাজেটে বরাদ্দ না থাকলেও সংশোধিত বাজেটে সাত কোটি টাকা বরাদ্দ চেয়েছে নির্বাচন কমিশন। এছাড়াও কম্পিউটার সফটওয়্যার ও ডাটাবেজ রক্ষণাবেক্ষণের জন্য ১৫ কোটি টাকা চেয়েছে ইসি।

চিঠিতে আরও বলা হয়েছে, পৌরসভা সাধারণ নির্বাচন, ইউনিয়ন পরিষদ সাধারণ নির্বাচন, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন সাধারণ নির্বাচন, উপজেলা পরিষদের সাধারণ নির্বাচন এবং জাতীয় সংসদ ও স্থানীয় সরকারের শূন্য আসনের উপনির্বাচনসহ চলতি ২০২০-২০২১ অর্থবছরে প্রায় চার হাজার ১০২টি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।
অর্থবছরের শুরুতেই বিশেষ কার্যক্রম নির্বাচনী খাতে এক হাজার ৩৬৮ কোটি ৪৭ লাখ ০৫ হাজার টাকার প্রাক্কলিত বাজেট বরাদ্দের চাহিদা অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছিল। চাহিদার প্রেক্ষিতে পরবর্তীতে অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে আলােচনা সাপেক্ষে চলতি ২০২০-২০২১ অর্থবছরে নির্বাচন খাতে ৪৩৩ কোটি ৪০ লাখ টাকার সংস্থান করা হয়েছে। চলতি অর্থবছরে স্থানীয় সরকারের বিভিন্ন সাধারণ নির্বাচন, উপনির্বাচন ও পরিচালনা ও আইন-শৃঙ্খলা ব্যয় বাবদ ৪৩৩ কোটি ৪০ লাখ টাকার অতিরিক্ত এক হাজার ১৫৭ কোটি ৫১ লাখ ৮২ হাজার টাকার সংশােধিত বাজেট প্রয়ােজন হবে। এ নির্বাচনগুলাে অনুষ্ঠানের বিষয়ে নির্বাচনী ব্যয়ের আর্থিক পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।

এছাড়া নির্বাচনী প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের প্রশিক্ষণ খাতে চলতি অর্থবছরের শুরুতেই ৩৬২ কোটি ৪৯ লাখ ৭৭ হাজার টাকার প্রাক্কলিত বাজেট বরাদ্দের চাহিদা অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছিল। এ চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে পরবর্তীতে অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে চলতি ২০১০-২০২১ অর্থবছরে প্রশিক্ষণ খাতে ৬০ কোটি টাকা সংস্থান রাখা হয়েছে। এসব নির্বাচন ইভিএম ও ব্যালট পেপারের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত আনুমানিক ৬০ কোটি টাকার অতিরিক্ত ৭৪ কোটি ২৯ লাখ ৯৫ হাজার টাকার সংশোধিত বাজেট প্রয়োজন হবে।

এরআগে গত বছরের মে মাসে অর্থ মন্ত্রণালয়ের জারি করা প্রশিক্ষণ বিষয়ক নীতিমালা অনুসরণ করায় প্রশিক্ষণ খাতে প্রাথমিক প্রাক্কলিত চাহিদা ৩৬২ কোটি ৪৯ লাখ ৭৭ হাজার টাকা কমিয়ে ১৩৪ কোটি ৩০ লাখ টাকা সংশোধিত বাজেট প্রস্তাব করা হয়েছে। এছাড়া নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন অনুবিভাগের চাহিদা অনুযায়ী নতুন কোড যুক্ত করে যৌক্তিকতা বিশ্লেষণ করে চাহিদা উপস্থাপন করা হয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ১২৪৫ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৯, ২০২১
জিসিজি/আরআইএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa