ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২১ শ্রাবণ ১৪২৭, ০৬ আগস্ট ২০২০, ১৫ জিলহজ ১৪৪১

নির্বাচন ও ইসি

১৬-১৭ বছর বয়সীদের এনআইডি বিতরণ শুরু ১৭ মার্চ

ইকরাম-উদ দৌলা, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২০-০৩-১৬ ০৭:৫৮:৪২ এএম
১৬-১৭ বছর বয়সীদের এনআইডি বিতরণ শুরু ১৭ মার্চ নির্বাচন কমিশন লোগো

ঢাকা: আগামী ১৭ মার্চ থেকে দেশের ১৬ ও ১৭ বছর বয়সী নাগরিকদের মাঝে জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) বিতরণে যাচ্ছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এখন এ কার্যক্রমটি সীমিত আকারে শুরু হলেও শিগগিরই এর ব্যপ্তি বাড়াবে সংস্থাটি।

ইসি সূত্র জানুয়েছে, মুজিব বর্ষের অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা স্বরুপ এই কার্ড সরবরাহ করা হবে। এরপর ধীরে ধীরে কার্যক্রমটি ব্যপ্তি বাড়াবে কমিশন।

প্রতি উপজেলা বা থানা অন্তত ১০ জন অপ্রাপ্তবয়স্ক নাগরিকের মাঝে এ কার্ড দেওয়া হবে।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর মূল অনুষ্ঠানটি হবে আগামী ১৭ মার্চ। এ বর্ষ উদযাপন হবে ২০২০ সালের ১৭ মার্চ থেকে ২০২১ সালের ১৭ মার্চ পর্যন্ত।

মুজিববর্ষে সরকারের নানা কর্মসূচির সঙ্গে নির্বাচন কমিশনের হাতে নেওয়া বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যে অপ্রাপ্তবয়স্কদের এনআইডি সরবরাহও অগ্রাধিকার ভিত্তিতেই রাখছে কমিশন।

এই কার্যক্রমটি বাস্তবায়নের জন্য রোববার (১৫ মার্চ) মাঠ পর্যায়ের সকল নির্বাচন কার্যালয়কে নির্দেশনা পাঠানো হয়েছে।

এনআইডি অনুবিভাগের উপ-পরিচালক আরাফাত আরা স্বাক্ষরিত নির্দেশনায় বলা হয়েছে-বঙ্গবন্ধু শেষ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে মুজিব শতবর্ষ অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা স্বরূপ প্রতি উপজেলা বা থানায় ১৬ ও ১৭ বছর বয়সী অন্তত ১০ জন নাগরিকের হাতে এনআইডি তুলে দেওয়ার জন্য ২৭ ফেব্রুয়ারি চিঠি দেওয়া হয়েছিল। একইসঙ্গে সব জেলা কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে এনআইডি মুদ্রণ করা হয়েছে কিনা এবং মুদ্রণ করতে না পারলে তার কারণ জানানোর জন্য নির্দেশনা দিয়েছে কমিশন।
আগামী ১৭ মার্চ উপজেলা, জেলা ভিত্তিক এনআইডি বিতরণ সম্পন্ন করে সে তথ্যও জানানোর জন্য মাঠ পর্যায়ের সব নির্বাচন কার্যালয়কে জানানোর জন্যও নির্দেশনা বলা হয়েছে।

এ বিষয়ে জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অণুবিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম বলেছেন, আইনের কোনো ব্যত্যয় না হওয়ায় ১৫ বছরের বেশি বয়সীদের জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়ার সিদ্ধান্ত দিয়েছে নিবাচন কমিশন। আমরা জেলা নির্বাচন কার্যালয়গুলোতে এসব কার্ড প্রিন্ট করে উপজেলা পর্যায়ে বিতরণে যাবো।

১৮ বছরের কম বয়সীদের এনআইডি দেয়ার পক্ষে যুক্তি তুলে ধরে তিনি বলেন, হজ্ব, সরকারি চাকরি বা বিদেশ গমনের জন্য এনআইডি এখন সবার প্রয়োজন পড়ে। এসএসসি পাশে অনেকের নিয়োগ হয়। এছাড়া ব্যাংক হিসাব খুলতেও প্রয়োজন। আমরা চাই সবাইকে এনআইডির আওতায় নিয়ে আসতে।
২০১৯ সালের ২৩ এপ্রিল থেকে সারাদেশে বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কাযক্রম শুরু করে নির্বাচন কমিশন। এবার ১৮ বছরের নিচে বয়সীদেরও তথ্য নেওয়া হয়েছে। ১ মার্চ ১৮ বছরের বেশি বয়সীদের তালিকায় যুক্ত করা হয়েছে। অন্যরা পরবর্তীতে ১৮ বছর পূর্ণ হলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ভোটার তালিকায় যুক্ত হবেন।

হালনাগাদ শেষে এবার দেশের ৫৫ লাখ ৭৯ হাজার ৩০ জন প্রাপ্তবয়স্ক (১৮ বছর বয়স) নাগরিক যুক্ত হয়েছেন ভোটার তালিকায়। নতুন ভোটার তালিকায় যোগ হওয়ায় দেশে মোট ভোটারের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১০ কোটি ৯৮ লাখ ১৯ হাজার ১১২ জন। যাদের স্মার্টকার্ড বিতরণে কার্যক্রম বজায় রেখে নির্বাচন কমিশন।

২০০৮ সালের নবম সংসদ নির্বাচনের পূর্বে ছবিসহ ভোটার তালিকা প্রণয়ন করে নির্বাচন কমিশন। পরবর্তীতের যার মাধ্যমে নাগরিকদের এনআইডি দেওয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়।

বাংলাদেশ সময়: ০৭৫৮ ঘণ্টা, মার্চ ১৬, ২০২০
ইইউডি/এবি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa