ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ ফাল্গুন ১৪২৭, ০২ মার্চ ২০২১, ১৭ রজব ১৪৪২

নির্বাচন ও ইসি

আ. লীগই সন্ত্রাসীদের ঢাকায় জড়ো করছে: ফখরুল

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১০৮ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৩০, ২০২০
আ. লীগই সন্ত্রাসীদের ঢাকায় জড়ো করছে: ফখরুল

ঢাকা: বিএনপি নয়, আওয়ামী লীগই সন্ত্রাসীদের জড়ো করে ঢাকার নির্বাচনে ত্রাসের পরিবেশ সৃষ্টি করতে চাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বৃহস্পতিবার (৩০ জানুয়ারি) দুপুরে নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি অভিযোগ করেন।  

এর আগে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের অভিযোগ করেন, বিএনপি দাগী আসামি ও চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের ঢাকায় এনে নির্বাচনে ভীতি ছড়ানোর পাঁয়তারা করছে।

 

পুলিশও আওয়ামী লীগের মতো ভূমিকা পালন করে চলেছে মন্তব্য করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এরই মধ্যে বিএনপির অনেক সাবেক সংসদ সদস্য ও কেন্দ্রীয় নেতা, যারা চিকিৎসার জন্য অথবা ব্যবসায়িক কাজে ঢাকায় এসেছিলেন, তাদের বেআইনিভাবে গ্রেফতার করে আগের মতো একতরফা নির্বাচন করতে চলেছে। ঢাকার বিএনপি নেতাকর্মীদের বাড়িতে পুলিশ তল্লাশি শুরু করেছে। ’

নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করতে নির্বাচন কমিশন সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে দাবি করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এ নির্বাচনী প্রচারণায় বিএনপি প্রার্থীদের পক্ষে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে। হাজারও মানুষ দখলদারি সরকারের বিরুদ্ধে তাদের রায় দেওয়ার জন্য যখন বেরিয়ে আসতে শুরু করেছে, ঠিক তখনই নিয়ন্ত্রিত পুলিশ বাহিনী দিয়ে মিথ্যা মামলায় গ্রেফতার করে জনগণের ভোটের অধিকার হরণ করার ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। ’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আওয়ামী লীগের কোনো জনসমর্থন নেই। তারা রাজনৈতিকভাবে দেউলিয়া হয়ে পড়েছে। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি, হত্যা, শিশুসহ সব বয়সের নারী ধর্ষণ, অসহনীয় ট্রাফিক ব্যবস্থা, সীমাহীন দুর্নীতি, ব্যাংক লুট, শেয়ারবাজার লুট, মেগা প্রজেক্টের নামে মেগা লুট, জনজীবনকে দুঃসহ করে তুলেছে। গণতন্ত্রের আপসহীন নেত্রী খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়ে রাজনীতি থেকে দূরে রেখে একতরফাভাবে একদলীয় শাসন ব্যবস্থা চাপিয়ে দেওয়ার চক্রান্ত করছে। ’

তিনি বলেন, ‘দৃঢ়তার সঙ্গে বলতে চাই, ধানের শীষের প্রার্থীদের পক্ষে যে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে তা রোধ করার শক্তি এই দখলদারি সরকার ও নির্বাচন কমিশনের নেই। কর্তৃপক্ষকে আহ্বান জানাচ্ছি গণবিরোধী কার্যকলাপ থেকে বেরিয়ে এসে সংবিধানের দায়িত্ব পালন করুন। নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করুন। ভোটাররা যেন নির্ভয়ে সুষ্ঠু পরিবেশে তাদের মতামত দিতে পারেন সেই ব্যবস্থা নিশ্চিত করুন। অন্যথায় জনগণ কোনোদিন আপনাদের ক্ষমা করবে না। সংবিধান লঙ্ঘন এবং জনগণের অধিকার হরণের অভিযোগে আপনাদের জনগণের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে। ’

ঢাকাবাসীর কাছে উদাত্ত আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আপনারা সংবিধান সম্মত অধিকার রক্ষার জন্য ঘর থেকে বেরিয়ে আসুন। ১৯৭১ সালে যুদ্ধের মাধ্যমে যা অর্জন করেছেন তাকে রক্ষায় কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দিন। নিজেদের অধিকার নিশ্চিত করুন। এটা আমাদের সবার দায়িত্ব। আসুন আমরা সব অন্যায়, অবিচার, সন্ত্রাস ও ত্রাস সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে জনগণের প্রতিরোধ গড়ে তুলি এবং ১ ফেব্রুয়ারি কেন্দ্রে গিয়ে আমরা আমাদের মতামত জানাই। নিরাপদ, বাসযোগ্য মহানগরী গড়ে তুলি। ’

এক প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘ভোট চাচ্ছি, ধানের শীষকে সামনে নিয়ে এসেছি। একটা পরিবেশ তৈরি করতে কিছুটা হলেও সক্ষম হয়েছি। রাষ্ট্রে যখন অন্য কোনো গণতান্ত্রিক সুবিধা নেই। সেই সময়ে এই ২০ দিন আমরা জনগণের সামনে গেছি। জনগণের কাছে গিয়ে ধানের শীষের কথা বলেছি। গণতন্ত্রের দুরাবস্থার কথা বলেছি। আমরা গণতন্ত্রে বিশ্বাসী, তাই নির্বাচনে আছি। ’

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান, সেলিমা রহমান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুস সালাম, সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম-মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৬০০ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৩০, ২০২০
এমএইচ/ওএইচ/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa