ঢাকা, বুধবার, ২১ শ্রাবণ ১৪২৭, ০৫ আগস্ট ২০২০, ১৪ জিলহজ ১৪৪১

নির্বাচন ও ইসি

কোর্টের আদেশ মেনে চলা উচিত, ভোটের তারিখ বিষয়ে কাদের 

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২০-০১-১৬ ০৫:০৭:০৩ পিএম
কোর্টের আদেশ মেনে চলা উচিত, ভোটের তারিখ বিষয়ে কাদের 

ঢাকা: আদালতের নির্দেশ মেনে আন্দোলন থেকে সরে আসন্ন ৩০ জানুয়ারি (বৃহস্পতিবার) ঢাকা সিটির ভোটে সবাইকে অংশ নেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেছেন, ভোটের তারিখ নিয়ে কোর্ট যে আদেশ দিয়েছেন, আমি মনে করি তা মেনে চলা উচিত।
 
বৃহস্পতিবার (১৬ জানুয়ারি) সচিবালয়ে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে আয়োজিত সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে ওবায়দুল কাদের এ অনুরোধ জানান।


 
আগামী ৩০ জানুয়ারি ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনের জন্য দিনক্ষণ নির্ধারণ করেছে নির্বাচন কমিশন। তবে ওই দিন হিন্দু ধর্মালম্বীয়দের স্বরসতী পুজা থাকায় ভোটের তারিখ পরির্তনের দাবি উঠেছে।
 
ভোটের তারিখ পরিবর্তনে হইকোর্টে একটি রিট হলেও তা খারিজ হয়ে গেছে। তবে এর বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে আবেদন করা হয়েছে। অন্যদিকে একদল শিক্ষার্থী শাহবাগে আন্দোলন করে যাচ্ছেন।
 
হাইকোর্ট রিট খারিজ এবং শাহবাগে আন্দোলন নিয়ে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, হাইকোর্টে তো বাংলাদেশের জাতীয় স্বার্থের বাইরে কিছু নিশ্চয়ই ভাববে না। আর হাইকোর্টে যারা রায় দিয়েছেন তারা ভেবে-চিন্তে রায় দিয়েছেন। বিষয়টা কোর্ট পর্যন্ত গড়িয়েছে। কোর্টের আদেশ তো মেনে চলা উচিত।
 
‘আমি আন্দোলনকারীদের আহ্বান করবো তারা আদালতের আদেশ মেনে নিয়ে আন্দোলন থেকে বিরত থাকবেন। নির্বাচনটা হোক, সবার এটা প্রত্যাশা। প্রস্তুতিও এগিয়ে চলছে। নির্বাচনকে ঘিরে একটা উৎসব মুখর পরিবেশ ঢাকার দুই সিটিতে বিরাজ করছে। ’
 
আন্দোলনে ছাত্রলীগকেও দেখা যাচ্ছে- এ বিষয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক কাদের বলেন, ছাত্রলীগের দৃষ্টিকোণ থেকে তারা যদি থেকে থাকে সেটা ধর্মীয়  দৃষ্টিকোণ থেকে আছে। এখানে তো পার্টি কোনো বিষয় না। এখানে পার্টিগতভাবে কেউ পার্টিসিপেট করেনি। করলে সেটা ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে করেছে, ছাত্রলীগের যারা হিন্দু সম্প্রদায়ের আছে তাদের অনেকেই যেতে পারে। সেটা তো অসম্ভব কিছু না।
 
নির্বাচন কমিশন যখন তফসিল ঘোষণা করেছে তখন এ বিষয়টা বিবেচনায় নেওয়া উচিত ছিল কিনা- প্রশ্নে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, সেটা নিশ্চয়ই তাদের বিবেচনা করা উচিত ছিল। তাদের বিবেচনার বিষয়ে কোনো ফাঁক-ফোকর আছে কিনা সেটা দেখার বিষয় ছিল আদালতের। আদালত তো এখানে একটা আদেশ দিয়েছে।    
 
একটা ধর্মীয় উৎসবের দিন ভোট- এ বিষয়ে কাদের বলেন, আমি আদালতের আদেশকে তো প্রশ্নবিদ্ধ করতে চাই না, এটা নিয়ে প্রশ্ন করা তো উচিত না। যেহেতু আদালত রায় দিয়েছেন, নির্বাচন কমিশনে হয়তো আমরা পুনর্বিবেচনার জন্য বলতে পারতাম। যেহেতু আদালতে গড়িয়েছে, আদালতের সিদ্ধান্ত তো এখন নির্বাচন কমিশন মেনে চলবে। নির্বাচন কমিশন তো আদালতকে ফলো করবে এবং নির্ববাচন হবে।    
 
নির্বাচন কমিশন বারবার সরকারি ক্যালেন্ডারকে রেফার করছে, তার মানে সরকারি ক্যালেন্ডারে ভুল ছিল- এ বিষয়ে কাদের বলেন, ভুল ছিল বলে তো আমি বলতে পারি না। ভুল থাকলেও আদালতের তো দেখা উচিত যে ভুল আছে।
 
‘সবকিছু মিলে আদালত যে আদেশ দিয়েছে ৩০ তারিখ নির্বাচন হবে এবং ধর্মীয়ভাবে যারা সংক্ষুব্ধ হয়েছেন আমি তাদের অনুরোধ করবো যে, আদালতের আদেশ মেনে অনেক প্রত্যাশিত সিটি করপোরেশন নির্বাচনে তারাও অংশগ্রহণ করবেন। এ উৎসব মুখর পরিবেশে তারাও ভোট উৎসবে যোগ দেবেন, এটা আমি আশা করবো। ’
 
‘আপনারা অসাম্প্রদায়িক চেতনার কথা বলবেন, একটি অন্যতম অনুষ্ঠানের দিন রাষ্ট্রীয় একটা প্রোগ্রাম হবে, এর আগেও দুর্গাপূজার মধ্যে ইসি এই কাজ করেছে। প্রশাসনের মধ্যে কী সাম্প্রদায়িক শক্তি এখনও সোচ্চার’- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, আদালতকে কেন সাম্প্রদায়িক বলবেন? যেখানে বিষয়টি আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছে, সেখানে সাম্প্রদায়িক কীভাবে বলতে পারেন!
 
বাংলাদেশ সময়: ১২০০ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৬, ২০২০/আপডেট: ১৩২৪ ঘণ্টা
এমআইএইচ/এমএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa