ঢাকা, সোমবার, ৮ বৈশাখ ১৪২৬, ২২ এপ্রিল ২০১৯
bangla news

মুন্সিগঞ্জে ২২ প্রার্থীর মধ্যে ১৮ জনের জামানত বাজেয়াপ্ত

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-১২-৩১ ৪:৩৯:৪৪ পিএম
প্রতীকী

প্রতীকী

মুন্সিগঞ্জ: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মুন্সিগঞ্জের তিনটি আসনের মোট ২২ প্রার্থীর মধ্যে ১৮ প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। 

একজন প্রার্থী নির্বাচনে মোট বৈধ ভোটের আট ভাগের এক ভাগ ভোট না পেলে তার জামানত বাজেয়াপ্ত হওয়ার বিধান রয়েছে। 

জামানত বাজেয়াপ্ত না হওয়া চার প্রার্থী হলেন-মুন্সিগঞ্জ-১ আসনের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মাহী বি চৌধুরী, মুন্সিগঞ্জ-২ আসনের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি, মুন্সিগঞ্জ-৩ আসনের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মৃণাল কান্তি দাস ও মুন্সিগঞ্জ-১ আসনের ধানের শীষের প্রার্থী শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন। 
জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে এ তথ্য জানা যায়। 

জামানত বাজেয়াপ্ত হওয়া প্রার্থীরা হলেন-মুন্সিগঞ্জ-১ আসনের ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আতিকুর রহমান (১১ হাজার ৬৯১ ভোট), জাকের পার্টির হাজী আতাউর রহমান (৩ হাজার ৭১০ ভোট), জাতীয় পার্টির অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম (১ হাজার ২০৫ ভোট) ও বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টির সমর দত্ত (৩৬৪ ভোট)। এ আসনে মহাজোট প্রার্থী বিকল্পধারার মাহী বি চৌধুরী ২ লাখ ৮৬ হাজার ৬৮১ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। 

তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির প্রার্থী শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন ৪৪ হাজার ৮৮৮ ভোট পেয়ে আমানত রক্ষা করেছেন। 

এ আসনে মোট ভোট পড়েছে ৩ লাখ ৫৩ হাজার ৯৬৪ ভোট। এক অষ্টমাংশে প্রয়োজন ছিল ৪৪ হাজার ২৪৫ ভোট। 

মুন্সিগঞ্জ-২ আসনে জামানত হারিয়েছেন মুন্সিগঞ্জ-২ আসনের ধানের শীষের প্রার্থী মিজানুর রহমান সিনহা, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. মনসুর হোসেন (৫ হাজার ৬৪৪ ভোট), জাকের পার্টির মো. আশরাফুল আলম (১ হাজার ৫৪৪ ভোট), স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. শফিকুল ইসলাম (৫২৩ ভোট), মো. মেহেদি হাসান (৩৫৮ ভোট) ও বিএনএফ প্রার্থী মো. বাচ্চু শেখ (৩২১ ভোট)। 
এ আসনে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী সাগুফতা ইয়াসমিন (২ লাখ ১৩ হাজার ৯৮৩ ভোট)। 

মুন্সিগঞ্জ-৩ আসনে জামানত হারিয়েছেন বিএনপির প্রার্থী আবদুল হাই (১২ হাজার ৭৩৭ ভোট), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী মো. রুহুল আমিন ভূঁইয়া (৪ হাজার ৮৪ ভোট), বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির শেখ মো. কামাল হোসেন (৮১৬ ভোট), বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়াকার্স পার্টির শেখ মো. কামাল হোসেন (৬৭৬ ভোট), স্বতন্ত্র প্রার্থী চৌধুরী ফাহরিয়া আফরিন (৪২৮ ভোট), বিএনএফ প্রার্থী সৈয়দ মোখলেছুর রহমান (২৮৯ ভোট), জাতীয় পার্টির প্রার্থী গোলাম মোহাম্মদ রাজু (২৭৮ ভোট) ও বাংলাদেশ মুসলীম লীগের প্রার্থী ইকবাল হোসেন (৫৯ ভোট)। এ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী অ্যাডভোকেট মৃণাল কান্তি দাস ৩ লাখ ১৩ হাজার ৩৫৬ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। 

বাংলাদেশ সময়: ১৬৩৩ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৩১, ২০১৮
এসআই

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

নির্বাচন ও ইসি বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa
cache_14