ঢাকা, সোমবার, ৩ আষাঢ় ১৪২৬, ১৭ জুন ২০১৯
bangla news

নির্বাচনে সশস্ত্র বাহিনী মোতায়েন থাকবে: সিইসি

সিনিয়র করেসন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-১১-০৮ ৭:১৩:২০ পিএম
সিইসি কেএম নূরুল হুদা। ছবি: বাংলানিউজ

সিইসি কেএম নূরুল হুদা। ছবি: বাংলানিউজ

ঢাকা: আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পাশপাশি সশস্ত্র বাহিনী মোতায়েন করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা।  

বৃহস্পতিবার (০৮ নভেম্বর) সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশ্যে দেওয়া ভাষণে তফসিল ঘোষণার সময় তিনি একথা জানান। 
 
সিইসি কেএম নূরুল হুদা বলেন, নির্বাচন পরিচালনার জন্য বিভিন্ন পর্যায়ের প্রায় ৭ লাখ কর্মকর্তা নিয়োগের প্রার্থমিক প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে। গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে প্রত্যেক নির্বাচনী এলাকায় নির্বাহী এবং বিচারিক ম্যাজিষ্ট্রেট নিয়োগ দেওয়া হবে।

‘আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্বে ৬ লক্ষাধিক পুলিশ, বিজিবি, র‌্যাব, কোস্টগার্ড, আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর সদস্যকে নির্বাচনের আগে ও পরে মোতায়েন করা হবে।’
 
সিইসি বলেন, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে বেসামরিক প্রশাসনকে সহায়তায় সশস্ত্র বাহিনী মোতায়েন করা হবে। তারা আইনানুগ ও নিরপেক্ষ দায়িত্ব পালনে সুদৃঢ় থাকবে।তাদের দক্ষতা, নিরপেক্ষতা ও একাগ্রতার ওপর বিশেষ দৃষ্টি রাখা হবে। 

দায়িত্ব পালনে ব্যার্থতার কারণে নির্বাচন ক্ষতিগ্রস্ত হলে দায়ী কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি। 
 
কেএম নূরুল হুদা বলেন, জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঘিরে সর্বস্তরের জনগণের মধ্যে স্বতঃস্ফুর্তআগ্রহের জাগরণ ঘটে। তাদের বিপুল উৎসাহ, উদ্দীপনা আর উচ্ছ্বাসে গোটা দেশ উজ্জীবিত হয়। রাজনীতিবিদদের কৌশল প্রণয়ন, প্রার্থীদের নির্ঘুম প্রচারণা, সমর্থকদের জনসংযোগ ভোটারদের হিসেব-নিকেশ সব কিছু নিয়ে একটি আনন্দঘন পরিবেশ সৃষ্টি হয়। 

‘ভোটের দিনে ধর্ম, বর্ণ, গোত্র নির্বিশেষে আবাল বৃদ্ধ-বনিতার মধ্যে সৃষ্ট আনন্দঘন ও উৎসবমূখর পরিবেশ রক্ষায় নির্বাচন কমিশনের পক্ষ হতে সব ধরনের সকর্তামূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

পড়ুন>> স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে থাকছে সেনাবাহিনী
 
তিনি বলেন, ২০১৮ সাল সেই নির্বাচনের বছর, নির্বাচনকে সামনে রেখে রাজনৈতিক দলগুলো প্রস্তুতি নেওয়া শুরু করে দিয়েছে। সুশীল সমাজ সু-চিন্তিত মতামত প্রকাশ অব্যাহত রেখেছে। গণমাধ্যমে নির্বাচন বিশেষজ্ঞ ও রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতামত, বক্তব্য, প্রবন্ধ, প্রতিবেদন, আলোচনা-সমালোচনা ও সুপারিশ প্রকাশ করছে। 

‘নির্বাচন নিয়ে টেলিভিশন চ্যানেলগুলোতে প্রতিনিয়ত টক-শো প্রচারিত হচ্ছে। সব সংবাদ মাধ্যমে বিশেষ খবর ও প্রতিবেদন প্রচার করা হচ্ছে। দেশি-বিদেশি বহুসংখ্যক সংগঠন নির্বাচন পর্যবেক্ষণে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। সার্বিকভাবে দেশে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের একটিঅনুকূল আবহ সৃষ্টি হয়েছে।’
 
ভোটার ও প্রার্থীদের উদ্দেশে সিইসি বলেন, জাতির এমন উচ্ছ্বসিত প্রস্তুতির মধ্যখানে দাঁড়িয়ে আমি প্রত্যাশা করবো, অনুরোধ করবো এবং দাবি করবো; প্রার্থী এবং তাঁর সমর্থক নির্বাচনী আইন ও আচরণ বিধি মেনে চলবেন। স্ব-স্ব এলাকার গণ্য-মান্য ব্যক্তি এবং নির্বাচিত প্রতিনিধি ভোট কেন্দ্রে সুষ্টু পরিবেশ নিশ্চিত করণে সহায়তা করবেন। ফলাফলের তালিকা হাতে না নিয়ে পোলিং এজেন্টরা কেন্দ্র ত্যাগ করবেন না।
 
‘নির্বাচনী কর্মকর্তারা নিরপেক্ষ দায়িত্ব পালনে অটল থাকবেন। নির্বাহী ও বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেটরা আইনের প্রয়োগ এবং আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা ভোটার, প্রার্থী এবং ভোট কেন্দ্রের নিরাপত্তা নিশ্চিত করবেন। গণমাধ্যম কর্মী বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশ ও পর্যবেক্ষকরা নির্বাচন কমিশনের নীতিমালা মেনে দায়িত্ব পালন করবেন,’ প্রত্যাশা করেন সিইসি।

আসছে ২৩ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। 
 
বাংলাদেশ সময়: ১৭০৬ ঘণ্টা, নভেম্বর ০৮, ২০১৮
ইইউডি/এমইউএম/এমএ 

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2018-11-08 19:13:20