ঢাকা, শনিবার, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৩ শাবান ১৪৪৫

নির্বাচন ও ইসি

আচরণবিধি লঙ্ঘনের ব্যাখ্যা দিলেন মায়া

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৯২৩ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৬, ২০২৩
আচরণবিধি লঙ্ঘনের ব্যাখ্যা দিলেন মায়া মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া

চাঁদপুর: চাঁদপুর-২ (মতলব উত্তর ও মতলব দক্ষিণ) আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া’র বিরুদ্ধে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের ব্যাখ্যা দিয়েছেন তার পক্ষের আইনজীবী।

বুধবার (৬ ডিসেম্বর) দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের অনুসন্ধান কমিটির চেয়ারম্যান ও চাঁদপুরের যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ সাইয়েদ মাহবুবুল ইসলামের কার্যালয়ে মায়া চৌধুরীর পক্ষে লিখিত ব্যাখ্যা দেওয়া হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেন মায়া চৌধুরীর পক্ষের আইনজীবী মো. সেলিম মিয়া।  

তিনি বলেন, নির্বাচনী অনুসন্ধান কমিটির চেয়ারম্যানের নির্দেশ অনুযায়ী নির্ধারিত তারিখে ব্যাখ্যা দেওয়া হয়েছে। এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে অনুসন্ধান কমিটি।

মায়া চৌধুরী লিখিত ব্যাখ্যায় বলেন, আমার বিরুদ্ধে নির্বাচন আচরণবিধি মালা ২০০৮ এর ৭ (গ) বিধি লঙ্ঘনের যে অভিযোগ আনা হয়েছে, তা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন এবং প্রার্থীর অভিযোগপত্রে বর্ণিত অভিযোগের সঙ্গে সংগতিপূর্ণ নয়। গত ২ ডিসেম্বর আমার বড় ছেলে ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুর পূর্বে গত ২৭ নভেম্বর থেকে আমি ও আমার রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা শোকার্ত। ওই সময় থেকে আমি ও আমার পরিবার চিকিৎসা এবং অন্যান্য কাজে ব্যস্ত ছিলাম।

তিনি বলেন, অভিযোগে উল্লেখিত গত ১ ডিসেম্বর মটরসাইকেল নিয়ে হুমকি-ধামকি বা অন্য কোন বিষয়ে আমি অবগত নই। আমি চাঁদপুর-২ আসনে দুইবার সংসদ সদস্য ছিলাম এবং মন্ত্রী ছিলাম। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আমি আওয়ামী লীগের প্রার্থী। আমি শতভাগ আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল এবং নির্বাচনী আচরণ সম্পর্কে অবগত। আমি আমার কর্মী-সমর্থক এবং আমার দলের নেতাকর্মীদেরকে তফসিল ঘোষিত নির্বাচনী প্রচারণার সময় ব্যতিরেকে নির্বাচনী প্রচারণা কার্য না করার জন্য নির্দেশ দিয়েছি।

মায়া চৌধুরী বলেন, আমার প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী এম ইসফাক আহসান নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের যে অভিযোগ এনেছেন তা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। আমার নির্বাচনী এলাকার ভোটারদের কাছে আমার রাজনৈতিক ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করা এবং আমাকে হয়রানির অসৎ উদ্দেশ্যে আমার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী এই মিথ্যা অভিযোগ এনেছেন। সর্বোপরি বলতে পারি  নির্বাচনী বিধিমালা অনুসরণ করে সকল প্রকার নির্বাচনী কর্মকাণ্ডের ক্ষেত্রে আমার কোনো ব্যত্যয় ঘটবে না। কোনো ব্যক্তি আমার অজ্ঞাতসারে কোনো অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড ঘটালে আমি তার দায়ভার নেব না।

এর আগে ৪ ডিসেম্বর নির্বাচনী অনুসন্ধান কমিটির চেয়ারম্যান মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়াকে আচরণবিধি লঙ্ঘন বিষয়ে ব্যাখ্যা দেওয়ার জন্য নির্দেশ করেন।

ওই নির্দেশে স্বতন্ত্র প্রার্থী এম. ইসফাক আহসান লিখিত অভিযোগ করেন, গত ৩০ নভেম্বর মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার পর থেকে একই আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রার্থী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়ার সমর্থক ও আশ্রয়কৃত সন্ত্রাসী বাহিনী নানাভাবে স্বতন্ত্র সমর্থক ও এলাকার সাধারণ মানুষের বড়িতে হামলা করে বাড়িঘর ভাঙচুর, মারধর করে বিভিন্ন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে লুটপাট করে। যারা স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে কাজ করবে তাদের বাড়ি ছেড়ে চলে যেতে হবে বলে হুমকি দেয় তারা।  

তিনি আরও অভিযোগ করেন, গত ১ ডিসেম্বর শুক্রবার বিকাল ৪টায় প্রতিপক্ষ কলাকান্দা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সোবান সরকার সুবা ৩০-৪০ জন সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে মোটরসাইকেল মহড়া দেয় এবং প্রার্থীর বাড়িতে প্রকাশ্য হুমকি দেন। যারা স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচন করবে তাদের চোখ তুলে ফেলবেন এবং ঘর-বাড়ি আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেবেন।

নির্বাচনী অনুসন্ধান কমিটির চেয়ারম্যান ও চাঁদপুরের যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ সাইয়েদ মাহবুবুল ইসলাম জানান, স্বতন্ত্র প্রার্থীর অভিযোগের ভিত্তিতে আচরণ বিধি লঙ্ঘনের বিষয়ে আমরা ব্যাখ্যা চেয়েছি। মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া লিখিত ব্যাখ্যা দিয়েছেন। তদন্তপূর্বক বিষয়টি নির্বাচন কমিশনে প্রতিবেদন পাঠানো হবে।

বাংলাদেশ সময়: ১৯১৯ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ০৬, ২০২৩
এসএএইচ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।