ঢাকা, রবিবার, ২৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০, ১১ জুন ২০২৩, ২২ জিলকদ ১৪৪৪

নির্বাচন ও ইসি

চাপ দেবে আর ‘দেবে’ যাবো তা হবে না: সিইসি

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪১৩ ঘণ্টা, মার্চ ২৮, ২০২৩
চাপ দেবে আর ‘দেবে’ যাবো তা হবে না: সিইসি

ঢাকা: প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেছেন, চাপ দেবে আর দেবে যাবো, তা হবে না।

মঙ্গলবার (২৮ মার্চ) নির্বাচন ভবনে সাংবাদিক ডেকে বিএনপিকে আলোচনায় আসার আমন্ত্রণপত্র দেওয়ার নানা দিক তুলে ধরেন কাজী হাবিবুল আউয়াল।

 গত বৃহস্পতিবার (২৩ মার্চ) বিএনপিকে চিঠি দেওয়ার আগের আগের দিন এক কূটনীতিক ক্ষমতাসীন দলগুলো বিরোধী দলগুলোর সঙ্গে দূরত্ব কমিয়ে আনার পরামর্শ দিয়েছেন, এর সঙ্গে বিএনপিকে আলোচনায় আসার চিঠি দেওয়ার কোনো যোগসূত্র আছে কি-না, বা অন্য কোনো চাপ আছে কি-না- এমন প্রশ্নের জবাবে কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, চাপ যেটা বলেছেন এটা একেবারেই একটা অমূলক ধারণা। এটা একটা অমূলক ধারণা, যে এই কতক্ষণ পরপর আমাদের চাপ দেবে আর আমরা দেবে যাবো, এটা হাওয়ার কথা নয়।

সিইসি বলেন, যদি কোনো ভুল বোঝাবুঝি থাকে, সেটা যেন নিরসন হয়, সেজন্য বলছি- পত্রটি আমাদের এখান থেকে গেছে, সরকারের ওখান থেকে নয়। আর এমনটা মনে করায় আমরা অনেক সময় ব্যথিত হই, যে সরকারের আজ্ঞাবহ হয়ে আমরা কোনো কাজ করবো। একটি কমিশন, পাঁচজন কমিশনার আমরা এখানে আছি। নির্বাচন বিষয় নিয়ে আমরা চিন্তা-ভাবনা করছি। আলোচনা করছি। আমাদের চিন্তার মধ্য দিয়ে এটি ফুটে উঠেছে যে বিএনপির মতো একটি দলকে নির্বাচনে আনতে পারলে ভালো হয়।

বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে তিনি আরো বলেন, আমরা বলেছি, আমরা আপনাদের সঙ্গে আলোচনা করতে চাই।  

 বিএনপি বলেছে এই আমন্ত্রণপত্র দেওয়ার বিষয়টি সরকার এবং ইসির নাটক। আলোচনা হতে পারে যদি নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে আলোচনা হয়- এই বিষয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, আমরা কোনো চিঠি পাইনি। সেটা হয়তো আপনাদের বলেছেন। আমি যেহেতু চিঠি দিয়েছি। যে কোনো সাড়া আমাকে চিঠির মাধ্যমেই পেতে হবে।  

কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, আমি বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে একটি পত্র দিয়েছি। তাই তাদের যে কোনো বক্তব্য আমাদের কাছে যদি পত্রের মাধ্যমে আসে সেটিই কাঙ্ক্ষিত।  

আলোচনা কী নিয়ে হবে, তাদের দাবি তো একটাই নির্বাচনকালীন সরকার- এমন প্রশ্নের জবাবে সাবেক এই আইন সচিব বলেন, আমি এই প্রশ্নের উত্তর এখনই দিতে চাচ্ছি না। কথা হচ্ছে বিএনপিকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। ওনারা যদি আসেন, কী আলোচনা করবো সেটা সময়ই বলে দেবে। আলোচনার মধ্যেই ফুটে উঠবে ওনারা কী বললেন আমরা কী বলবো। আগাম কোনো বক্তব্য বা আগাম কোনো ধারণাও আমি দিতে পারছি না।

তারা যদি কোনো এজেন্ডা দিয়ে দেন যেমন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর তত্বাবধায়ক সরকারের কথা বলেছেন, সেক্ষেত্রে কী হবে-এমন প্রশ্নের জবাবে সিইসি আরো বলেন, ওনারা যদি এজেন্ডা ঠিক করে দেন, তখন আমরাও ঠিক করবো, কমিশন সমন্বিতভাবে সিদ্ধান্ত নেবে আলোচনার বিষয়ে।  

অন্য এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, চিঠি দেওয়ার বিষয়টি পুরো কমিশন জানতো। সকলেই চিঠি অক্ষরে অক্ষরে পাঠ করেছেন। সদস্যরা কিছু সংশোধনীও দিয়েছেন। সেটাও সবাই দেখেছেন। কাজেই এটা প্রধান নির্বাচন কমিশনারের পত্র নয়। এটা সিইসি লিখেছেন কমিশনের পক্ষ থেকে।

বাংলাদেশ সময়: ১৪১৩ ঘণ্টা, মার্চ ২৮, ২০২৩
ইইউডি/এসআইএস 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa