bangla news

ভোলায় জেলেদের জন্য চালু হলো ‘জেলে স্কুল’

ছোটন সাহা, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২০-০২-২১ ১০:০৯:০৭ পিএম
পড়ালেখা শিখছেন জেলেরা। ছবি: বাংলানিউজ

পড়ালেখা শিখছেন জেলেরা। ছবি: বাংলানিউজ

ভোলা: মো. হাসান (৩৭) পেশায় একজন জেলে। ২০ বছর ধরে মাছ শিকার করছেন। বাড়ি ভোলা সদর উপজেলার পূর্ব ইলিশা ইউনিয়নের পাকার মাথা এলাকায়। তিনি স্কুলে এসছেন পড়তে। পড়ালেখা শিখে প্রথমেই লিখতে চান নিজের দেশের নাম। তারপর লিখবেন নিজের ও পরিবারের নাম। শিখতে চান হিসাব-নিকাশও।

হাসান বাংলানিউজকে বলেন, আগে পড়ালেখা জানতাম না, আমাদের জন্য স্কুলও ছিল না, এখন স্কুল হয়েছে। মাছ শিকারের ফাঁকে পড়ালেখা শিখতে চাই।

জামাল (৪০)। তিনিও জেলে। লিখতে পড়তে জানেন না। তিনিও স্কুলে এসে হাজির। ‘অ আ’ লেখার চেস্টা করছিলেন। তিনি বাংলানিউজকে বলেন, দুই ছেলের কেউ লিখতে পড়তে জানেন না। একটা মেয়ে ছিল, তার বিয়ে দিয়েছি। সে নিজের নাম লিখতে পারতো। আমিও নিজের নাম শিখতে চাই, পড়ালেখা শিখে সব কিছু পড়তেও চাই।

শুধু হাসান বা জামাল নয়, পড়ালেখা শিখতে স্কুলে এসছেন রিয়াজ, রহিম, বুলবুল, আলাউদ্দিন, কালু, রহিম ও সবুজসহ অন্যরা।
জেলেদের জন্য চালু হলো ‘জেলে স্কুল’ভোলা সদরের পূর্ব ইলিশা ইউনিয়নের ফেরিঘাট সংলগ্ন বাঁধের পাশে চালু হয়েছে ‘জেলে স্কুল’। জেলেদের অক্ষর জ্ঞান দিতে এ স্কুলটি চালু করে ‘পূর্ব ইলিশা ফাউন্ডেশন’র একদল যুবক।

আন্তজার্তিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবসে শুক্রবার (২১ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে এ স্কুলটির উদ্বোধন করেন ফাউন্ডেশনটির সভাপতি মো. আনোয়ার হোসেন।

উদ্বোধনী দিনে স্কুলের জেলে শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেওয়া হয় বই, চক ও সিলেট (বোর্ড)। শিক্ষা উপকরণ পেয়ে হাসি ফুটে জেলেদের মুখে।

এসময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সাংবাদিক ছোটন সাহা, সংগঠনের সহ-সভাপতি নুরু উদ্দিন সোহাগ, যুগ্ম সম্পাদক কামাল হোসেন, মো. সুমন, সাংগঠনিক সম্পাদক শাহরিয়ার জিলন, দপ্তর সম্পাদক মো. ইউসুফ, রুবেল বেপারী প্রমুখ।
 জেলেদের জন্য ‘জেলে স্কুল’ উদ্বোধন উদ্বোধনী দিনে শিক্ষকরা তাদের শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করেন। জেলেদের আগ্রহের সঙ্গে শিক্ষা নিতে দেখা গেছে। বোর্ড, চকসহ শিক্ষা উপকরণ হাতে নিয়েই অক্ষর লেখার ও শেখার চেস্টা করেছেন তারা।

ফাউন্ডশনের সভাপতি ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মো. আনোয়ার হোসেন বাংলানিউজকে বলেন, জেলেরা পড়ালেখা জানেন না, তাদের মধ্যে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিয়ে ভাষার মাসে স্কুলটি চালু করেছি। শুক্রবার ছাড়া প্রতিদিন অবসর সময়ে জেলেরা এখানে এসে পড়ালেখা করবেন। স্কুলটি প্রতিষ্ঠার জন্য অনেকদিন থেকে ভাবছিলাম, অবশেষে জেলেদের জন্য স্কুলটি চালু করতে পেরে অনেক ভালো লাগছে। সম্পূর্ণ বিনা বেতনে এখানে শিক্ষা নিতে পারবেন তারা।

বাংলাদেশ সময়: ২২০৫ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২১, ২০২০
এসআরএস

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   ভোলা
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2020-02-21 22:09:07