bangla news

বরিশালে প্রধান শিক্ষক ছাড়াই চলছে মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলো

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২০-০১-২৯ ১১:০৫:৩৭ এএম
বিভাগীয় সদর বরিশালে স্থায়ী প্রধান শিক্ষক আছে শুধু জিলা স্কুলে।

বিভাগীয় সদর বরিশালে স্থায়ী প্রধান শিক্ষক আছে শুধু জিলা স্কুলে।

বরিশাল: বরিশাল বিভাগের ছয় জেলায় ২২টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বেশিরভাগই চলছে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক দিয়ে। ফলে বিদ্যালয়গুলোর পাঠদানসহ প্রশাসনিক কার্যক্রম পরিচালনা মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিভাগীয় শহর বরিশালে নতুন ও পুরনো মিলে চারটি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় রয়েছে। যেখানে সহকারী শিক্ষকদের পদগুলো প্রায় পরিপূর্ণ। তবে এরমধ্যে ২০১৬ সালে স্থাপিত দু’টি নতুন সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পর থেকেই ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক দিয়ে চলছে।

নগরের কাউনিয়ার শহীদ আরজু মনি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষকের অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকা মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা আঞ্চলিক কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. এমাদুল ইসলাম জানান, বিভাগীয় সদর বরিশালে স্থায়ী প্রধান শিক্ষক আছে শুধু জিলা স্কুলে।

এছাড়া, ভোলা জেলায় চারটি বিদ্যালয়ের সবগুলো চলছে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক দিয়ে। পিরোজপুরের ছয়টি বিদ্যালয়ের একমাত্র সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ে স্থায়ী প্রধান শিক্ষক আছেন। ঝালকাঠীতে দু’টি বিদ্যালয়ের একটিতেও প্রধান শিক্ষক নেই। আর এসব প্রতিষ্ঠানগুলোতে সহকারী শিক্ষকও আছে সৃষ্টপদের অর্ধেক।

অপরদিকে, বরগুনা জেলার সরকারি বালিকা ও বালক মাধ্যমিক বিদ্যালয় দু’টি। শিক্ষক সংকটের কারণে এতটাই রুগ্ন দশায় ভুগছে বিদ্যালয় দু’টি যে, সেখানে ভর্তির জন্যও পাওয়া যাচ্ছে না শিক্ষার্থী।

চলতি বছর বরগুনা সরকারি বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তি পরীক্ষায় সেটি দৃশ্যমান হয়। এ বিদ্যালয়ের শিক্ষকের ৫২টি পদের বিপরীতে কর্মরত রয়েছেন মাত্র ১৫ জন। আর শিক্ষক সংকটে সেখানে পাঠদান ব্যাহত হওয়ায় কয়েক বছর আগেই তৃতীয় থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। স্কুলটির প্রধান শিক্ষক আজহারুল হক জানান, শিক্ষক সংকটের কারণে স্বাভাবিক পাঠদান মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে।

এদিকে বালিকার মতোই করুণ অবস্থা বরগুনার সরকারি বালক মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের। এখানেও ৫১টি পদের বিপরীতে শিক্ষক রয়েছে মাত্র ২২ জনের মতো।

সার্বিক বিষয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বরিশাল অঞ্চলের পরিচালক অধ্যাপক মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, বরিশাল বিভাগের ২২টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক সংকট ভয়াবহ। সেখানে স্থায়ী প্রধান শিক্ষক রয়েছে মাত্র দু’টিতে।

তিনি বলেন, দীর্ঘদিন শিক্ষক নিয়োগ এবং পদন্নোতি বন্ধ থাকায় এ জটের সৃষ্টি হয়েছে। প্রত্যন্ত এলাকা বিশেষ করে ভোলার দৌলতখান, পিরোজপুরের কাউখালী এবং বরগুনার বিদ্যালয়গুলোর অবস্থা খুবই খারাপ। চলতি সপ্তাহে মাউশি’র পরিচালককে (মাধ্যমিক) এ বিষয়ে লিখিত তথ্য দেওয়া হয়েছে। এ সংকট দূর করার চেষ্টা চলছে।

বাংলাদেশ সময়: ১১০০ ঘণ্টা, জানুয়ারি ২৯, ২০২০
এমএস/এফএম

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   বরিশাল
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2020-01-29 11:05:37