bangla news

শিক্ষার্থী টানতে ‘বই উৎসব’র আগেই বই বিতরণ

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-১২-০৪ ৬:২৬:৪৯ পিএম
শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই। ছবি: বাংলানিউজ

শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই। ছবি: বাংলানিউজ

গোপালগঞ্জ: পার্শ্ববর্তী স্কুলের চেয়ে বেশি শিক্ষার্থী ভর্তি করতে বই উৎসবের আগেই নতুন বই বিতরণ করা হয়। গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার গোহালা টি.সি.এ.এল উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা শিক্ষার্থীদের ভর্তিতে আকৃষ্ট করতে অভিনব এ ব্যবস্থা নেন। বিষয়টি জানতে পেরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) চাপের মুখে বিতরণকৃত বই ফেরত নিয়েছেন শিক্ষকরা। 

বিষয়টি স্বীকার করে ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক গিয়াসউদ্দিন গাজী বাংলানিউজকে বলেন, পার্শ্ববর্তী গোহালা বালিকা বিদ্যালয়ের চেয়ে অধিক শিক্ষার্থী ভর্তি করতে এই কৌশল অবলম্বন করা হয়। ওই স্কুল কর্তৃপক্ষ বিষয়টি প্রশাসনের কাছে অভিযোগ করায় বই বিতরণের বিষয়টি ফাঁস হয়ে যায়। বিতরণকৃত বই শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ফেরত আনা  হয়েছে।
   
স্থানীয়রা জানান, গত ২৭ নভেম্বর জেলার মুকসুদপুর উপজেলার গোহালা টি.সি.এ.এল উচ্চ বিদ্যালয় বই উৎসবের আগেই ষষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তি হতে ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের মধ্যে বই বিতরণ করে আলোচনা সমালোচনার জন্ম দেয়। স্কুল এলাকার গোহালা গ্রামের বাসিন্দা আলমগীর হোসেনের মেয়ে তামিমা, রবিউল আলমের মেয়ে পরশী ও হেমায়েত হোসেনের মেয়ে ইভাসহ প্রায় ৩০ জন ছাত্রীর হাতে ষষ্ঠ শ্রেণির নতুন বই তুলে দেওয়া হয়। এ ঘটনায় এলাকায় আলোচনা-সমালোচনার শুরু হয় এবং বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ করা হয়। পরে নির্বাহী কর্মকর্তা তাসলিমা আলীর নির্দেশে বই বিতরণ বন্ধ ও বিতরণকৃত বই ফেরত নেওয়া হয়। 

প্রতিবছর সারাদেশে পহেলা জানুয়ারি জাতীয়ভাবে বই উৎসব পালন করা হয়। এদিন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নতুন বই শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দিয়ে বই বিতরণ অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন। এর আগে, কোথাও বই বিতরণ করা অন্যায় বলে জানান মুকসুদপুর এলাকার বেশ কয়েকজন শিক্ষক।

মুকসুদপুর উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সাহাদাত হোসেন মোল্যা বাংলানিউজকে জানান, ওই বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের মধ্যে বই বিতরণের বিষয়টি আমি শুনেছি। ইউএনওর নির্দেশে স্কুল কর্তৃপক্ষ বইগুলো শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ফেরত নিয়েছেন। 

এ ব্যাপারে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হবে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিষয়টি ইউএনওর সিদ্ধান্তের ওপর নির্ভরশীল। 

ইউএনও তাসলিমা আলী বাংলানিউজকে জানান, বিষয়টি জানার পর বই ফেরত নিতে বলা হয়েছে এবং তদন্ত পূর্বক যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। 

বাংলাদেশ সময়: ১৮১৮ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ০৪, ২০১৯
এনটি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   গোপালগঞ্জ
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-12-04 18:26:49