bangla news

বঙ্গবন্ধুকে হত্যা রাজনীতিবিদদের জন্য লজ্জা: ভিপি নূর

ইউনিভার্সিটি করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৯-০১ ১১:৩০:২৫ পিএম
টিএসসিতে ডাকসু আয়োজিত বঙ্গবন্ধুর সংস্কৃতি ভাবনা ও স্বাধীনতার গান’ শীর্ষক অনুষ্ঠান

টিএসসিতে ডাকসু আয়োজিত বঙ্গবন্ধুর সংস্কৃতি ভাবনা ও স্বাধীনতার গান’ শীর্ষক অনুষ্ঠান

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়: বাকশাল গঠনের পরিপ্রেক্ষিতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বপরিবারে হত্যা করা তৎকালীন সময়ের রাজনীতিবিদদের জন্য লজ্জার বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের ভিপি নুরুল হক নূর।

রোববার (০১ সেপ্টেম্বর) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে ডাকসু আয়োজিত বঙ্গবন্ধুর সংস্কৃতি ভাবনা ও স্বাধীনতার গান’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামান অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন। অনুষ্ঠানে বাংলা একাডেমির সাবেক মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান, নাট্যকার রামেন্দু মজুমদার, রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বিশ্বজিৎ ঘোষ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডিন শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম, ডাকসুর জিএস গোলাম রাব্বানী, এজিএস সাদ্দাম হোসেন বক্তব্য রাখেন।

নুরুল হক বলেন, সুশৃঙ্খল একটি রাষ্ট্র কীভাবে গড়ে তোলা যায়, সেই ভাবনা থেকে বঙ্গবন্ধু বাকশাল গঠন করতে চেয়েছিলেন। বাকশাল গঠনে যদি কোনো ভুল থেকে থাকে, আমার মনে হয় তখন যারা রাজনৈতিক অঙ্গনে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন, বঙ্গবন্ধুর খুব কাছের ছিলেন, যারা তাকে মুজিব ভাই বলে সম্বোধন করতেন, তারা চাইলে বসে আলোচনা-সমালোচনার মাধ্যমে আরও সম্পাদনা, বর্জন-পরিমার্জন করতে পারতেন। কিন্তু এরজন্য এমন একজন নেতাকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হবে, এটি আমাদের এবং ওই সময়ের রাজনীতিবিদদের জন্য একটি লজ্জার বিষয়।

ডাকসু ভিপি বলেন, বঙ্গবন্ধু অন্যায় ও বৈষম্যের বিরুদ্ধে একটি প্রতিবাদী নাম, বঞ্চিত মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় একটি প্রেরণার নাম। যিনি আমৃত্য মানুষের অধিকার আদায়ে লড়াই-সংগ্রাম করে গেছেন। রাজনীতিবিদ তথা ছাত্র নেতাদের সে চেতনা ধারণ করে মানুষের জন্য কাজ করতে হবে। এখন ঢাবিতে ছাত্রলীগের একটা শক্ত অবস্থান ও প্রভাব রয়েছে। সুতরাং শিক্ষার্থীদের গণরুম ও গেস্টরুম নামক কারাগারের নির্যাতন থেকে মুক্তির জন্য ছাত্রলীগকে সোচ্চার হতে হবে।

উদ্বোধনকালে ঢাবি উপাচার্য বলেন, বঙ্গবন্ধুর সংস্কৃতির ভাবনা কেমন ছিল তা আমরা সহজেই জানতে পারি, যদি আমরা মুক্তিযুদ্ধের গানগুলোর দিকে নজর দেই। জাতির পিতা সেই রকম গান পছন্দ করতেন যেই গানে স্বাধীনতার কথা রয়েছে, যেই গানে ভাষার কথা রয়েছে। উদার নৈতিকতা ও মানবিকতায় বঙ্গবন্ধু উৎসাহ দিতেন।

ড. বিশ্বজিৎ ঘোষ বলেন, বঙ্গবন্ধু ছিলেন রাজনীতির মানুষ। কিন্তু তার আরেকটি জগত আছে সেটা হলো তার সংস্কৃতি ভাবনার জায়গা, ভাষা ভাবনার জায়গা, শিল্প ভাবনার জায়গা। আমাদের সামনে এখন দু’টি বই আছে অসমাপ্ত আত্মজীবনী ও কারাগারের রোজনামচা। তার এই বইগুলো দেখলে আমরা নতুন একজন লেখক বঙ্গবন্ধুকে আবিষ্কার করতে পারি। তিনি প্রথম সারির লেখক ছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ২৩১২ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ০১, ২০১৯
এসকেবি/এসএইচ

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
db 2019-09-01 23:30:25