bangla news

‘টেকসই উন্নয়নে নতুন প্রযুক্তি উদ্ভাবন প্রয়োজন’

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৪-১৬ ১১:২৫:১৩ পিএম
অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন যবিপ্রবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেন। ছবি: বাংলানিউজ

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন যবিপ্রবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেন। ছবি: বাংলানিউজ

যশোর: যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেন বলেছেন, প্রযুক্তি ভিক্ষা করে উন্নত দেশ হওয়া যাবে না। এ উন্নয়ন টেকসইও হবে না। টেকসই উন্নয়ন করতে হলে আমাদের নতুন নতুন প্রযুক্তি উদ্ভাবন করতে হবে। 

মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) দুপুরে যবিপ্রবির বঙ্গবন্ধু একাডেমিক ভবনের গ্যালারিতে পেট্রোলিয়াম অ্যান্ড মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং (পিএমই) বিভাগের নবীনবরণ ও বিদায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। 

অনুষ্ঠানে নবীনদের ফুল দিয়ে বরণ করে নেওয়া হয় এবং বিদায়ী শিক্ষার্থীদের সম্মাননা স্মারক দিয়ে বিদায় জানানো হয়। 

বক্তব্যে পেট্রোলিয়াম অ্যান্ড মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, আমাদের সাগরের বিশাল অংশ জয় হয়েছে। কিন্তু এর তলদেশে কি ধরনের খনিজ সম্পদ ও পেট্রোলিয়াম পদার্থ আছে তা এখনও জানি না। পিএমই বিভাগের শিক্ষার্থীরাই তাদের আহরিত জ্ঞানের মাধ্যমে এসব বিষয় আমাদের জানাতে পারবে বলে বিশ্বাস করি। এজন্য পিএমই বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের কাঁধে অনেক দায়িত্ব। 

তিনি বলেন, আজকে দেশ নিম্ন মধ্যম আয়ের থেকে উন্নত দেশ হওয়ার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। তবে উন্নত দেশ হতে গেলে আমাদের দক্ষ মানবসম্পদ তৈরি করতে হবে। যুগোপযোগী ও দক্ষ মানবসম্পদ তৈরি করতে পারে কেবলমাত্র বিশ্ববিদ্যালয়গুলো। এই কাজেও আমরা পিছিয়ে যাচ্ছি শিক্ষাঙ্গনে অস্থিরতার জন্য। এটা আমাদের দূর করতে হবে।  

র‌্যাগিংয়ের ভয়াবহতা তুলে ধরে যবিপ্রবি উপাচার্য বলেন, দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে র‌্যাগিং এমন পর্যায়ে চলে গেছে যে, তা ভাবতেই আমাদের লজ্জা লাগে। আমি দৃঢ় ভাষায় বলতে চাই, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে মোট চার হাজার দুইশ’ শিক্ষার্থী আছে। র‌্যাগিংয়ে জড়িত থাকলে প্রয়োজনে সবাইকে বহিষ্কার করা হবে। তবুও কোনো র‌্যাগারের স্থান বিশ্ববিদ্যালয়ে হবে না। কারণ দুষ্টু গরুর চেয়ে শূন্য গোয়াল অনেক ভালো। 

পেট্রোলিয়াম অ্যান্ড মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চেয়ারম্যান ড. মো. জাকির হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদের ডিন ড. এ এস এম মুজাহিদুল হক, পিএমই বিভাগের বিদায়ী শিক্ষার্থী রাসেল জানি রাফি, নবীন শিক্ষার্থী ফয়সাল আহমেদ আকাশ, জারিন তাসনিম খুশবু প্রমুখ।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন পিএমই বিভাগের শিক্ষার্থী আতিফ আল নূর ও রাফিকা আক্তার অন্তরা। 

বিকেলে বঙ্গবন্ধু একাডেমিক ভবনের গ্যালারিতে পিএমই বিভাগের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হয় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

বাংলাদেশ সময়: ২৩১৯ ঘণ্টা, এপ্রিল ১৬, ২০১৯
ইউজি/একে/আরবি/

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
db 2019-04-16 23:25:13