ঢাকা, রবিবার, ২৮ আষাঢ় ১৪২৭, ১২ জুলাই ২০২০, ২০ জিলকদ ১৪৪১

শিক্ষা

শিক্ষায় তথ্য-প্রযুক্তির ব্যবহারে শিক্ষক সম্মেলন

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৪-০৫-০৫ ০২:৪৫:০০ পিএম
শিক্ষায় তথ্য-প্রযুক্তির ব্যবহারে শিক্ষক সম্মেলন ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Ismail_hossainকক্সবাজার থেকে: শিক্ষায় তথ্য-প্রযুক্তির ব্যবহার নিশ্চিত এবং শিক্ষকদের পেশাগত উন্নয়নের লক্ষ্যে শুরু হয়েছে তিন দিনব্যাপী শিক্ষক সম্মেলন।

‘একুশ শতকের শিক্ষায় আলোকিত শিক্ষক’- স্লোগানকে সামনে রেখে সোমবার দেশে প্রথমবারের মতো এ সম্মেলন শুরু হলো।

চলবে বুধবার পর্যন্ত।  

কক্সবাজার সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে আয়োজিত এ সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রাম ও ব্রিটিশ কাউন্সিলের যৌথ উদ্যোগে শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় এ সম্মেলনের আয়োজনে করা হয়।   মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম, ডিজিটাল কনটেন্ট ও শিক্ষক বাতায়নে যারা বিশেষ অবদান রেখেছেন সারা দেশের এমন ১০০ জন শিক্ষক এ সম্মেলনে অংশ নিচ্ছেন।

শিক্ষকদের একুশ শতকের চেতনায় উদ্বুদ্ধকরণ, আধুনিক প্রযুক্তি-কলাকৌশলের মাধ্যমে পাঠদানে উৎসাহ প্রদান, শিক্ষায় তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার নিশ্চিত করা, পারস্পরিক মতবিনিময়ের সুযোগ সৃষ্টি, শিক্ষকদের পেশাগত উন্নয়ন এবং জাতি গঠনে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি প্রদানের উদ্দেশ্যেই এ সম্মেলনের আয়োজন। সম্মেলনে ৪২ জন সেরা শিক্ষককে পুরস্কৃত করা হবে।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে বর্তমান সরকারের ইতিবাচক পদক্ষেপের মধ্যে এটুআই প্রোগ্রাম উদ্ভাবিত ‘মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম’, ‘শিক্ষকদের তৈরি ডিজিটাল কনটেন্ট’ এবং ব্রিটিশ কাউন্সিলের সহায়তায় তৈরি ‘শিক্ষক বাতায়ন’ উল্লেখযোগ্য।

যারা ওয়েবসাইটে বিভিন্ন কনটেন্ট তৈরি ও উপস্থাপন করেছিলেন, শিক্ষক বাতায়নের www.teachers.gov.bd ওয়েবসাইটির মাধ্যমে তাদের মধ্য থেকে সেরা শিক্ষকদের নির্বাচিত করা হয়েছে।
 
এটুআইয়ের প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ৩০ হাজারের বেশি শিক্ষক নিজেরাই শিক্ষার্থীদের উপযোগী কনটেন্ট তৈরি করে শ্রেণি কার্যক্রম পরিচালনা করছেন।

শিক্ষকদের তৈরি সেরা কনটেন্ট নির্বাচনের জন্য ২০১১ সাল থেকে তিন বছরের প্রতিযোগিতার আয়োজন করে আসছে এটুআই প্রোগ্রাম। ২০১১ ও ২০১২ সালের মোট ২০ জন সেরা কনটেন্ট প্রস্তুতকারী শিক্ষক এবং শিক্ষক বাতায়নে গত এক বছরে কন্টেন্ট আপলোড, ডাউনলোড, ইউজার রেটিং, পেডাগজি রেটিং এবং অন্যান্য সক্রিয়তার ভিত্তিতে স্বয়ংক্রিয়ভাবে প্রতি সপ্তাহের সেরা শিক্ষকদের মধ্য থেকে বাছাই করা হয়েছে আরও ২২ জন সেরা শিক্ষককে।

শিক্ষক সম্মেলনের দ্বিতীয় দিন সন্ধ্যায় শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ ৪২ জন শিক্ষককে পুরস্কৃত করবেন।
 
সম্মেলনের প্রতিপাদ্য বিষয়কে উপস্থাপনের জন্য প্রথম দিন ‘কার্যকর শিখন শেখানো কৌশল: জাতীয় ও আন্তর্জাতিক প্রেক্ষিত’ শীর্ষক সেমিনারের আয়োজন করা হয়।

এতে ময়মনসিংহ শিক্ষক প্রশিক্ষণ কলেজের সহযোগী অধ্যাপক মজিবুর রহমান ডিজিটাল কনটেন্ট উপস্থাপন করেন।

কিভাবে শ্রেণিকক্ষকে আনন্দদায়ক করা যায় তার বিভিন্ন পদ্ধতির কথাও উল্লেখ করেন তিনি। শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার্থীদের দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য সমসাময়িক স্থিরচিত্র, চলচ্চিত্র উপস্থাপনের মাধ্যমে পাঠদানের কথাও বলেন অধ্যাপক মজিবুর।

পাঠদান কৌশল, পাঠগ্রহণ ও আলোচনা তিনটি উপাদানের সমন্বয় করে শ্রেণিকক্ষকে আনন্দদায়ক করতে হবে। প্রথমবার উপস্থাপনের পর শিশুরা না বুঝলে একাধিকবার বোঝাতে হবে বলেও মনে করেন তিনি।
 
চট্টগ্রাম শিক্ষক প্রশিক্ষণ কলেজের প্রভাষক জয়দেব দে অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যত শিক্ষা পদ্ধতি নিয়ে প্রেজেন্টেশন করেন। তার আলোচনায় উন্নত বিশ্বের শিখন পদ্ধতি, তথ্য-প্রযুক্তির সর্বোত্তম ব্যবহার এবং বাংলাদেশে প্রযুক্তি সহজে ব্যবহারের উপকরণ নিশ্চিত করে পঠন-পাঠনকে আরো প্রাণবন্ত করা যায় বলে আলোচনায় উঠে আসে।

ভিকারুননিসর নূস স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক তাসনিফা খানম শিক্ষার্থীদের মনোভাব বুঝে পাঠ দেওয়ার গুরুত্ব তুলে ধরে বলেন, মনোভাব, বয়সের ভিত্তিতে উদাহরণ টেনে বোঝালে প্রিয় শিক্ষক হওয়া যাবে।

সম্মেলনে সেমিনার ছাড়াও থাকছে ২০টি শিক্ষা বিষয়ক প্রতিষ্ঠানের অংশগ্রহণে শিক্ষা মেলা, শিক্ষার্থীদের জন্য কুইজ প্রতিযোগিতা ও তাৎক্ষণিক উপহার, পুরস্কার বিতরণ, শিক্ষামূলক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।
 
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব এবং এটুআই প্রোগ্রামের জাতীয় প্রকল্প পরিচালক নজরুল ইসলাম খান।

স্বাগত বক্তব্য রাখেন ব্রিটিশ কাউন্সিলের ভারপ্রাপ্ত কান্ট্রি ডিরেক্টর ব্রেনডান ম্যাকশেরি এবং এটুআই প্রোগ্রামের ই-লার্নিং বিশেষজ্ঞ ফারুক আহমেদ।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসক রুহুল আমিনের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্থানীয় সাংসদ মো. ইলিয়াস, মাল্টিমিডিয়া কন্টেন্ট প্রতিযোগিতার জুরি বোর্ডের সদস্য, শিক্ষক প্রশিক্ষণ কলেজের শিক্ষক এবং জেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, শিক্ষানুরাগী উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৪৩৪ ঘণ্টা, মে ০৫, ২০১৪

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa