ঢাকা, সোমবার, ১৯ শ্রাবণ ১৪২৭, ০৩ আগস্ট ২০২০, ১২ জিলহজ ১৪৪১

শিক্ষা

সমাবর্তনে অব্যবস্থাপনা: রাবি প্রশাসনকে লিগ্যাল নোটিশ

রাবি প্রতিনিধি | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১২-১২-১৭ ০৯:৩৩:৩২ পিএম

রাবি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) অষ্টম সমাবর্তনে অব্যবস্থাপনার অভিযোগ এনে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে ক্ষমা চাওয়ার জন্য লিগ্যাল নোটিশ দিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক এক শিক্ষার্থী।

সোমবার অ্যাডভোকেট জহুরুল ইসলাম নামের ওই শিক্ষার্থী এ নোটিশ দিয়েছেন।



তবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এ ধরনের কোনো নোটিশ পাননি বলে জানান।

জহুরুল ইসলামের আইনজীবী শহিদুল ইসলাম রানা স্বাক্ষরিত ওই নোটিশে উল্লেখ করা হয়, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সমাবর্তন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়টির আচার্য রাষ্ট্রপতি বিভিন্ন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনে অতিথি হলেও দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম বিদ্যাপিঠের সমাবর্তনে আনতে না পারা প্রশাসনের ব্যর্থতা বলে দাবি করেন। যা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থীদের দেশের মানুষের কাছে হেয় করেছে।

নোটিশে আরও উল্লেখ করা হয়, শত ব্যস্ততার মধ্যে সাবেক শিক্ষার্থীরা সমাবর্তনে যোগ দিতে আসলেও তাদের কোনো খোঁজখবর রাখা হয়নি। সমাবর্তনে দুই হাজার টাকা রেজিস্ট্রেশন ফি নেওয়া হলেও তার পরিবর্তে যা দেওয়া হয়েছে তা খুবই নগণ্য।

সমার্তনের দিন দুপুরের খাবার নিম্নমানের ছিল উল্লেখ করে নোটিশে আরও বলা হয়, খাবারের জন্য অনেকে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করেও খাবার পায়নি অনেকে। সমাবর্তনে প্রায় সাত হাজার সাবেক শিক্ষার্থী অংশ নিলেও দুর্বল বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সমাবর্তন মঞ্চে সবার বসার জায়গা করে দিতে পারেনি। শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন যে ব্যবহার করেছে তা ‘আপত্তিকর’ বলেও নোটিশে উল্লেখ করা হয়।

দীর্ঘদিন পর সমাবর্তন আয়োজনের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানিয়ে নোটিশ প্রাপ্তির তিন দিনের মধ্যে গণমাধ্যমের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে আনুষ্ঠানিক ক্ষমা চাওয়ার জন্য বলা হয়।

আইনজীবী শহিদুল ইসলাম বাংলানিউজকে জানান, সমাবর্তন আয়োজনের সাংগঠনিক কমিটির সভাপতি, সদস্য সচিব এবং আপ্যায়ন উপ কমিটির আহ্বায়ককে এ নোটিশ দেওয়া হয়েছে। আগামীকালের মধ্যে তারা নোটিশ হাতে পেয়ে যাবেন।

নোটিশ প্রাপ্তির তিনদিনের মধ্যে ক্ষমা না চাইলে প্রতারণার জন্য প্রচলিত আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার ও সমাবর্তন আয়োজন কমিটির সদস্য সচিব এমএ বারী বাংলানিউজকে বলেন, “এখানো আমরা কোনো নোটিশ পাইনি। নোটিশ পেলে দেখা যাবে। ”

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ উপাচার্য অধ্যাপক মুহম্মদ নূরুল্লাহ জানান, এ বিষয়ে এখনো কোনো নোটিশ পাওয়া যায়নি। নোটিশ পাওয়ার পর বিষয়টি সম্পর্কে বলা যাবে।

বাংলাদেশ সময়: ২১২৭ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১৭, ২০১২
সম্পাদনা: শামীম হোসেন, নিউজরুম এডিটর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa