ঢাকা, শুক্রবার, ১৭ আষাঢ় ১৪২৯, ০১ জুলাই ২০২২, ০০ জিলহজ ১৪৪৩

অর্থনীতি-ব্যবসা

৩০ কোটির দেনা মাথায় নিয়ে ১১৫ কোটির বাজেট ঘোষণা লক্ষ্মীপুর পৌরসভার 

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১১৪৯ ঘণ্টা, জুন ২৩, ২০২২
৩০ কোটির দেনা মাথায় নিয়ে ১১৫ কোটির বাজেট ঘোষণা লক্ষ্মীপুর পৌরসভার 

লক্ষ্মীপুর: লক্ষ্মীপুর পৌরসভার ২০২২-২০২৩ অর্থ বছরের বাজেট ঘোষণা করা হয়েছে।  

বুধবার (২২ জুন) দুপুরে নতুন অর্থ বছরের জন্য ১১৫ কোটি ৮ লাখ ৮৩ হাজার ৯২৬ টাকার বাজেট ঘোষণা করেন পৌর মেয়র মোজাম্মেল হায়দার মাসুম ভূঁইয়া।

 

তিনি জানান, ২০২২-২০২৩ অর্থ বছরের জন্য প্রণীত বাজেটের রাজস্ব খাতে আয় ধরা হয়েছে ৪৩ কোটি ৯৮ লাখ ৫০ হাজার টাকা। উন্নয়ন খাতে আয় ধরা হয়েছে ৭০ কোটি ২৫ লাখ টাকা। প্রারম্ভিক স্থিতি ৮৫ লাখ ৩৩ হাজার ৯২৬ টাকাসহ সর্বমোট আয় ধরা হয়েছে ১১৫ কোটি ৮ লাখ ৮৩ হাজার ৯২৬ টাকা। নতুন অর্থ বছরের জন্য ব্যয় ধরা হয়েছে ১১৪ কোটি ৭২ লাখ ৩২ হাজার ৩০০ টাকা। উদ্বৃত্ত ধরা হয়েছে ৩৬ লাখ ৫১ হাজার ৬২৬ টাকা।  

বাজেট অনুষ্ঠানে পৌর মেয়র তার ৫-৬ মাসের মেয়াদকালে বাস্তবায়িত কাজের তালিকা ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা তুলে ধরেন।  

তিনি বলেন, এটি লক্ষ্মীপুর পোরসভার ৪৫তম বাজেট। বর্তমান পরিষদের প্রথম বাজেট। প্রায় ৩০ কোটি টাকার দায়-দেনা নিয়ে আমি বর্তমান পরিষদের দায়িত্ব গ্রহণ করেছি। পৌরসভার চারটি পানির ট্রিটমেন্ট প্লান্টের জন্য প্রতিমাসে ৩০ লাখ টাকা বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করতে হয়। বিভিন্ন সেবা এবং বেতনভাতা মিলিয়ে মাসে প্রায় কোটি টাকা ব্যয় হচ্ছে। নতুন অর্থ বছরে বাজেটে যে করারোপ করা হয়েছে, তা সহনশীল পর্যায়ে রেখেছি। পৌরবাসীর ধার্যকৃত বাৎসরিক হোল্ডিং কর মাত্র ২ কোটি ৮ লাখ টাকা। যা দিয়ে পৌরসভার ২ মাসের ব্যয়ও মেটে না।  

তিনি বলেন, এ বিশাল দায়-দেনা, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বকেয়া বেতন-ভাতা পরিশোধের পাশাপাশি নাগরিক সেবা ও পৌরসভার উন্নয়ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা কত কষ্টকর হবে, তা আমার চেয়ে আপনারা ভালো বোঝেন। তবে আপনাদের সার্বিক সহযোগিতা ও আমার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় পৌরবাসীর সেবা সুনিশ্চিত করার দৃঢ় মনোভাব রয়েছে।  

পূর্বের পরিষদের সমালোচনা করে তিনি বলেন, পৌরসভা দায়-দেনার পাহাড় দেখে অনেকটা বিচলিত হয়ে পৌরবাসীর সেবা ও উন্নয়নে আমার দেওয়া নির্বাচনী ইশতেহার বাস্তবায়নের দিক বিবেচনা করে বিভিন্ন দফতর ও প্রকল্পের কার্যালয়ে হন্যে হয়ে দিনের পর দিন সময় দিয়ে আসছি। প্রধানমন্ত্রী দেশের উন্নয়নে যে আন্তরিক পদক্ষেপ নিয়েছেন, তা আমি সরাসরি অনুধাবন করেছি।  

জেলা সদরের প্রথম শ্রেণির পৌরসভা হওয়া সত্ত্বেও আমাদের পৌরসভার নিজস্ব কোনো ভবন নেই। এতে জনগণকে প্রতিনিয়ত নানা ভোগান্তির শিকার হতে হয়। ভবন করার মতো পৌরসভার নিজস্ব কোনো জমি নেই। এছাড়া পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের আবাসন প্রকল্প থেকে ৩৬টি ফ্ল্যাটের ৭তলা বিশিষ্ট ১টি ভবন বরাদ্দ হয়েছে, নতুন পানির ট্রিটমেন্ট প্লান্টের জন্য ৩২ কোটি টাকা একনেকে পাস হয়েছে। কিন্তু নিজস্ব ভূমির অভাবে এগুলো বাস্তবায়ন করা সম্ভব হচ্ছে না। এজন্য প্রায় ৫ একর জমি প্রয়োজন। এমন পরিস্থিতিতে আমাদের একটু বেগ পেতে হচ্ছে। আমরা কেনার পদক্ষেপ হাতে নিয়েছি। আশা করি, আমার মেয়াদকালে পৌরসভাকে নতুন একটি ভবন উপহার দিতে পারব।  

পৌর মেয়র মোজাম্মেল হায়দার মাসুম ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে বাজেট ঘোষণা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন লক্ষ্মীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট নুর উদ্দিন চৌধুরী নয়ন।  

এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন সাবেক এমপি মোহাম্মদ উল্যা, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম ফারুক পিংকু, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ নূর-এ-আলম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও প্রশাসন) পলাশ কান্তি নাথ, রামগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মনির হোসেন চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি এম আলাউদ্দিন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহিম, লক্ষ্মীপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি হোসাইন আহম্মদ হেলালসহ অনেকে।  

বাংলাদেশ সময়: ১১৪৮ ঘণ্টা, জুন ২২, ২০২২
এসআই

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa