ঢাকা, শনিবার, ৫ আষাঢ় ১৪২৮, ১৯ জুন ২০২১, ০৮ জিলকদ ১৪৪২

অর্থনীতি-ব্যবসা

দেশি ব্র্যান্ড তৈরির স্বপ্ন বেগবান করবে নতুন বাজেট

নিউজ ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১৫৭ ঘণ্টা, জুন ১০, ২০২১
দেশি ব্র্যান্ড তৈরির স্বপ্ন বেগবান করবে নতুন বাজেট ...

ঢাকা: স্বাধীনতার সূবর্ণ জয়ন্তীতে দেশীয় শিল্পের বিকাশ, কর্মসংস্থান ও বাংলাদেশি ব্র্যান্ড তৈরির স্বপ্ন সুসংহত করবে এবারের ৫০ তম বাজেট। ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে দেশীয় শিল্পের জন্য বিভিন্ন নীতি সহায়তা দেশি ব্র্যান্ড তৈরির অগ্রযাত্রার পথে নতুন মাইলফলক হিসেবে কাজ করবে বলে মনে করছেন ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই-এর সহ-সভাপতি ও মিনিস্টার গ্রুপের চেয়ারম্যান এম এ রাজ্জাক খান রাজ।

বাজেট প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেন, স্থানীয় শিল্পের জন্য বিভিন্ন কাঁচামাল আমদানিতে শুল্ক কমানোয় গৃহস্থালি কাজে ব্যবহৃত ফ্রিজ, এসি, ব্লেন্ডারসহ বিভিন্ন ইলেকট্রনিক শিল্পের বিকাশ ঘটবে। একইসঙ্গে এসব পণ্যের দাম কমার সঙ্গে সঙ্গে মানও ভালো হবে বলে মনে করছেন এই ব্যবসায়ী নেতা।

তিনি বলেন, নতুন বাজেট দেশীয় শিল্প ও ব্যবসাবান্ধব হলেও এ ক্ষেত্রে প্রয়োজন নীতির ধারাবাহিকতা এবং দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা। তবে প্রস্তাবিত বাজেটে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, সামাজিক নিরাপত্তা, অবকাঠামো, আইনশৃঙ্খলা, কর্মসংস্থান ইত্যাদি খাতে গত অর্থবছরের চেয়ে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। কিন্ত দেশীয় শিল্প বিকাশের জন্য  ইলেকট্রনিক্স ও ইলেকট্রিক্যাল পণ্য উৎপাদনকারী শিল্প, ওষুধ শিল্প, কৃষি যন্ত্রপাতি উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান, লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং, কম্পিউটার সামগ্রী উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান, খেলনা উৎপাদন, হাঁস-মুরগি মাছের খাবার উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান, স্যানিটারি ন্যাপকিন অর্ডার উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানসহ নানান শিল্পের জন্য বিভিন্ন ধরনের সুযোগ-সুবিধা বেড়েছে। এতে দেশের জিডিপির প্রবৃদ্ধির গতিও বাড়বে বলে মনে করেন তিনি।

বর্তমানে দেশের উদীয়মান শিল্প হচ্ছে ইলেক্ট্রনিক শিল্প। এ শিল্প বর্তমানে দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও পণ্য রপ্তানি করছে। ফলে এ শিল্পকে আরও চাঙ্গা রাখতে ফ্রিজ, টেলিভিশন, এয়ারকন্ডিশনসহ এসব পণ্য দেশীয় ইলেক্ট্রনিক্স শিল্প মূল্য সংযোজন কর বা ভ্যাট অব্যাহতি সুবিধা দিচ্ছে। এতে এসব খাতে উৎপাদিত পণ্যের বিপরীতে ১৫ শতাংশ ভ্যাট দিতে হবে না। আবার যারা এসব কারখানা স্থানীয়ভাবে স্থাপন করবেন, তাদের জন্য ১০ শতাংশ কর অবকাশ সুবিধা (ট্যাক্স হলিডে) দেওয়ার প্রস্তাব রয়েছে এ বাজেটে।

করোনাকালের বাজেট শিল্পবান্ধব হওয়ায় দেশীয় শিল্প খাতের সঙ্গে যারা জড়িত তারা ব্যাপক সুবিধা পাবে এবং মার্কেটেরও প্রসার হবে। কিন্তু এই শিল্পগুলোকে শুধু দেশের ভেতরে না রেখে বিশ্ববাজারে নিয়ে যেতে হবে। বাংলাদেশি পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে নীতি সহায়তা দেওয়ার তাগিদও জানিয়েছেন এফবিসিসিআই-এর সহ-সভাপতি।  এক্ষেত্রে তিনি পণ্য রপ্তানিতে নগদ সহায়তার পরিমাণ বাড়ানোর প্রস্তাব করেন।

বাংলাদেশ সময়: ২১৫৭ ঘণ্টা, জুন ১০, ২০২১
কেএআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa