ঢাকা, সোমবার, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২

অর্থনীতি-ব্যবসা

যথা সময়ে প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা হয়েছে

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭২৪ ঘণ্টা, অক্টোবর ২৪, ২০২০
যথা সময়ে প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা হয়েছে ...

ঢাকা: প্রণোদনা প্যাকেজের বাস্তবায়ন নিয়ে অনেক প্রশ্ন থাকলেও উদ্যোগটি যথা সময়ে ঘোষণা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সানেম-এর গবেষণা পরিচালক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. সায়েমা হক বিদিশা।

শনিবার (২৪ অক্টোবর) সানেম আয়োজিত নেটিজেন ফোরামের নবম পর্বে ‘অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের পথ’ শীর্ষক এক ভার্চ্যুয়াল আলোচনায় উপস্থাপিত প্রবন্ধে এ কথা বলেন তিনি।

ড. সায়েমা হক বলেন, বৈশ্বিকভাবে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আমাদের অর্থনীতির চালিকাশক্তিগুলোকে প্রভাবিত করতে পারে। সরকারের সহায়তা তৃণমূল পর্যায়ে কীভাবে পৌঁছাচ্ছে তা নিশ্চিত করবে প্রণোদনা প্যাকেজের সঠিক বাস্তবায়ন, যা একটি বড় চ্যালেঞ্জ। অনানুষ্ঠানিক খাতকে গুরুত্ব দিতে হবে, করোনা সংক্রমণকে নিয়ন্ত্রণে আনতে হবে। এজন্য প্রস্তুতি নিতে হবে যেন করোনার দ্বিতীয় ঢেউ এলে তা অভ্যন্তরীণ চাহিদাকে আর প্রভাবিত না করতে পারে। এছাড়া আমাদের রয়েছে প্রাতিষ্ঠানিক চ্যালেঞ্জ, সেটিও মোকাবিলা করতে হবে।

বৈদেশিক মুদ্রার যথাযথ ব্যবহারের বিষয়ে তিনি বলেন, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ব্যবহারের ক্ষেত্রটি খুবই সীমিত, এখানে বিভিন্ন সমন্বয়ের বিষয় আছে।

এক প্রশ্নের উত্তরে ড. সায়েমা হক বলেন, কুটির শিল্প, ক্ষুদ্র শিল্প, মাঝারি শিল্পগুলোকে যদি আরো শ্রেণিকরণ করে দেখা হয়, তাহলে সার্বিক নীতি নির্ধারণ আরো কার্যকরী হবে।

ড. সায়েমা হক বলেন, উৎপাদনশীল কাজের কারণে প্রবৃদ্ধি হচ্ছে, কিন্তু তা কীভাবে হচ্ছে? তা কি অন্তর্ভুক্তিমূলক? প্রবৃদ্ধির গুণগত মান সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। প্রবৃদ্ধির সুফল কি সবাই পাচ্ছে কিনা তা নিয়ে আলোচনা হতে হবে। মানুষের কর্মসংস্থান, আয়, দারিদ্র্য, অসাম্য এ ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ। সংখ্যাগত প্রবৃদ্ধির দিকে লক্ষ্য না রেখে অন্তর্ভুক্তির দিকে বেশি লক্ষ্য রাখতে হবে এবং দীর্ঘমেয়াদি চিন্তা করতে হবে। প্রবৃদ্ধি ছাড়াও অন্যান্য সূচক, যা দেশের মানুষের প্রকৃত অবস্থান তুলে ধরে, সেগুলো বিবেচনায় আনতে হবে।

বাংলাদেশ অর্থনীতির পুনরুদ্ধারের প্রকৃতি নিয়ে আলোচনা করে ড. সেলিম রায়হান বলেন, কোনো কোনো খাত পুনরুদ্ধার হচ্ছে, কোনো কোনো খাতে হচ্ছে না; অর্থাৎ সার্বিক পুনরুদ্ধার সম্ভব হচ্ছে না। অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের পাশাপাশি সামাজিক পুনরুদ্ধার সমান্তরালভাবে হচ্ছে কিনা সেটি খেয়াল রাখার ওপর জোর দেন তিনি।

সানেমের নির্বাহী পরিচালক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. সেলিম রায়হানের পরিচালনায় আলোচনায় জুম এর মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে শিক্ষক, গবেষক, সাংবাদিক, শিক্ষার্থীসহ প্রায় ৫০ জন ব্যক্তি এই পর্বে অংশ নেন।

সানেম টিমে ছিলেন সানেম-এর গবেষণা পরিচালক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. সায়েমা হক বিদিশা এবং সানেমের রিসার্চ ইকোনমিস্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের প্রভাষক মাহতাব উদ্দিন।

বাংলাদেশ সময়: ১৭২০ ঘণ্টা, অক্টোবর ২৪, ২০২০
এসই/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa