ঢাকা, বুধবার, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১ সফর ১৪৪২

অর্থনীতি-ব্যবসা

নওগাঁর বাজারে বেড়েছে চালের দাম 

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১২৩৯ ঘণ্টা, আগস্ট ১০, ২০২০
নওগাঁর বাজারে বেড়েছে চালের দাম  চালের মোকাম। ছবি: বাংলানিউজ

নওগাঁ: নওগাঁর খুচরা চাল বাজারে ক্রেতা নেই বল্লেই চলে। এজন্য অলস সময় কাটছে খুচরা চাল ব্যবসায়ীদের।

কিন্তু ক্রেতাশুন্য বাজারেও বেড়েছে চালের দাম।  

নওগাঁর মোকামগুলোতে বেড়েছে চালের চাহিদা। ফলে দাম বেড়েছে খুচরা বাজারে। সপ্তাহের ব্যবধানে সব ধরনের চালের কেজিতে বেড়েছে ১ থেকে ২ টাকা। আর বস্তা প্রতি বেড়েছে ৫০ থেকে ৭০ টাকা।  

বর্তমানে নওগাঁর খুচরা বাজারে প্রতিকেজি কাটারি চাল আগে ছিল ৪৪ টাকা বর্তমানে ৪৬ টাকা, জিরা আগে ছিল ৪৬ বর্তমানে ৪৮, আটাশ আগে ছিল ৪০ বর্তমানে ৪২, স্বর্না আগে ছিল ৪১ বর্তমানে ৪২ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। অর্থাৎ গেলো ৯ দিনের ব্যবধানে প্রতি কেজি চালের দাম বেড়েছে ১ থেকে ২ টাকা পর্যন্ত।  

নওগাঁর খুচরা চাল বাজারের ব্যবসায়ী কৃষ্ণ চন্দ্র মণ্ডল বাংলানিউজকে বলেন, মিলাররা চাল দিতে চাচ্ছেন না। আবার দিলেও তা কিনতে হচ্ছে বেশি দামে। ফলে চালের দাম অল্প বেড়েছে। তবে বাজারে কোনো ক্রেতা নেই। একে তো বাজারে ক্রেতা নেই অন্যদিকে চালের দাম বেড়েছে। সব মিলে বেকায়দায় পড়তে হয়েছে আমাদের।  

নওগাঁ ফারিহা রাইস মিল মালিক শেখ ফরিদ বাংলানিউজকে জানান, 
নওগাঁয় আটো ও হাসকিং মিলিয়ে ১ হাজারের বেশি মিল চাল উৎপাদন করছে। সরকারের সংগ্রহ নীতিতে ধান ও চালের দামে সমন্বয়হীনতার কারণেই চাল বাজারের এমন পরিস্থিতি। এ মৌসুমে সরকার ধান কিনেছেন চড়া দামে। কিন্তু তার বিপরীতে যে দামে চাল কিনছেন তা বিক্রি করে উৎপাদন খরচ মেটানো দায়। আবার এর মধ্যে মজুদ সিন্ডিকেট তো আছেই।  

নওগাঁ খাদ্য নিয়ন্ত্রক (ডিসি ফুড) জিএম ফারুক হোসেন পাটোয়ারী বাংলানিউজকে জানান, চালের বাজার ঠিক রাখতে খাদ্য বিভাগ সারাবছরই কাজ করে। এর মধ্যে চালের দাম সহনীয় পর্যায়ে রাখতে জেলার বাজারগুলোতে নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের সমন্বয় কাজ শুরু হয়েছে। বাজার নিয়ন্ত্রণে আমাদের চেষ্টা অব্যাহত থাকবে।

বাংলাদেশ সময়: ১২৩৫ ঘণ্টা, আগস্ট ১০, ২০২০
আরএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa