bangla news

১১ এপ্রিল পর্যন্ত সব কারখানা বন্ধ রাখার আহ্বান বিজিএমইএ‘র

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২০-০৪-০৪ ৯:৫৮:৪৫ পিএম
কারখানায় কর্মরত শ্রমিক (ফাইল ছবি)

কারখানায় কর্মরত শ্রমিক (ফাইল ছবি)

ঢাকা: সঙ্গত কোনো কারণে শ্রমিক যদি পোশাক কারখানায় উপস্থিত না থাকেন, তবে মানবিক দিক বিবেচনায় তার চাকরিটি হারাবেন না বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) সভাপতি ড. রুবানা হক।  পাশাপাশি ১১ এপ্রিল পর্যন্ত সব কারখানা বন্ধ রাখার জন্য কারখানা মালিকদের কাছে অনুরোধ করেন তিনি।

শনিবার (০৪ এপ্রিল) গণমাধ্যমে পাঠানো এক অডিও বার্তায় এসব কথা জানান তিনি।

অডিও বার্তায় ড. রুবানা বলেন, ‘আমাদের কযেকটি জায়গা স্পষ্ট করা প্রয়োজন। কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর আমাদের যে সার্কুলার দিয়েছেন তাতে স্পষ্ট করে লেখা আছে, যে সমস্ত রপ্তানিমুখী শিল্প প্রতিষ্ঠান আন্তর্জাতিক ক্রয়াদেশ আছে এবং যারা পিপিই বানাচ্ছেন এবং যাদের উৎপাদন চলমান আছে সে সমস্ত মালিকরা শ্রমিকদের স্বাস্থ্য নিরাপত্তা ব্যবস্থা সুনিশ্চিতকরন সাপেক্ষে শিল্প কলকারখানা চালু রাখতে পারবেন। কাজে সবচেয়ে বড় দায়িত্ব হলো কিভাবে আমাদের শ্রমিকদের কিভাবে স্বাস্থ্য নিরাপত্তা দেবো, এটাই প্রথম।’

ড. রুবানা বলেন, ‘আমাদের দ্বিতীয়টি হলো মার্চ মাসের বেতন নিয়ে। মার্চ মাসের বেতন নিয়ে কোনো রকম অনীহা, অনাগ্রহ প্রকাশ করা যাবে না। আমরা বেতন দেবো যত কষ্ট হোক, যাই হোক বেতন দেবো, ইনশাআল্লাহ।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের তৃতীয়টি হলো শ্রমিকদের উপস্থিতির বিষয়। কোনো শ্রমিক কোনো সঙ্গতকারনে বা কোনো কারনে যদি কারখানা উপস্থিত না থাকেন তাহলে মানবিক বিবেচনায় তার চাকরিটি হারাবেন না। এটুকু আমাদের প্রত্যক সদস্যদের কাছে অনুরোধ করবো।'

সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে  ১১ এপ্রিল পর্যন্ত কারখানা বন্ধ রাখার জন্য অডিও বার্তায় কারখানা মালিকদের প্রতি অনুরোধ করেন ড. রুবানা হক।

বাংলাদেশ সময়: ২১৫৮ ঘণ্টা, এপ্রিল ০৪, ২০২০
ইএআর/এবি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   পোশাক শিল্প
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2020-04-04 21:58:45