bangla news

‘মধ্যস্বত্বভোগী ঠেকাতে লটারির মাধ্যমে কৃষক বাছাই হচ্ছে’

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-১২-০৫ ৪:০৬:১৪ পিএম
নওগাঁর খাদ্যগুদাম পরিদর্শনকালে খাদ্যমন্ত্রী।

নওগাঁর খাদ্যগুদাম পরিদর্শনকালে খাদ্যমন্ত্রী।

ঢাকা: কৃষকের স্বার্থ রক্ষায় সরকারের শস্য ক্রয় নীতি পরিবর্তন করে চলতি আমন মৌসুমে ছয় লাখ টন ধান কেনা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। পাশাপাশি মধ্যস্বত্বভোগী ঠেকাতে লটারির মাধ্যমে কৃষক বাছাই করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার (৫ ডিসেম্বর) সকাল ১১টায় নওগাঁর সাপাহার উপজেলা খাদ্যগুদামে ধান সংগ্রহ পরিদর্শনে গিয়ে তিনি এসব কথা জানান। এসময় গুদামে আসা কৃষকদের সঙ্গে কথা বলেন ও ধান দেখে সন্তোষ প্রকাশ করেন খাদ্যমন্ত্রী। খাদ্য মন্ত্রণালয়ের দেওয়া এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেন, সরকারি গুদামে আমন মৌসুমের ধান সংগ্রহ চলছে। শিগগিরই চাল কেনা শুরু হবে। এরপর উৎপাদন, চাহিদা ও মজুতের হিসাব করা হবে। অধিক উদ্বৃত্ত হলে চাল রপ্তানি করবে সরকার। 

তিনি বলেন, কৃষকের স্বার্থ রক্ষায় সরকার শস্য ক্রয় নীতিতে পরিবর্তন এনেছে। এর আগে কখনই আমনের ধান কেনা হয়নি। এবার ছয় লাখ টন ধান কেনা হচ্ছে। এই ধান সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে সংগ্রহ করা হচ্ছে। স্বচ্ছ প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে ধান সংগ্রহ করা হচ্ছে। দালাল, ফরিয়া বা মধ্যস্বত্বভোগীরা যাতে কৃষকের ধানে ফায়দা লুটতে না পারে, সেজন্য সংগ্রহের শুরুতেই নানামুখী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ডেকে সতর্ক করা হয়েছে। কোনো অনিয়ম হলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

খাদ্যমন্ত্রী আরও বলেন, খাদ্য বিভাগ ছাড়াও স্থানীয় প্রশাসন ও কৃষি বিভাগের কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে সঠিক চাষি তালিকা তৈরি ও সেই তালিকা ধরে ধান সংগ্রহ করা হচ্ছে। কোথাও কৃষকের আবেদন বেশি জমা পড়লে প্রশাসন ও কৃষকের উপস্থিতিতে তাদের সামনেই লটারির মাধ্যমে কৃষক বাছাই করা হচ্ছে।

এসময় সরকারিভাবে ধান ও চাল সংগ্রহে কৃষকসহ সবাইকে সহযোগিতা করার আহ্বান জানান খাদ্যমন্ত্রী।

গুদাম পরিদর্শনের সময় জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক জিএম ফারুক হোসেন পাটওয়ারী ও স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। 

বাংলাদেশ সময়: ১৬০৬ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ০৫, ২০১৯
এসকে/এসএ

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-12-05 16:06:14