bangla news

রাজশাহীতে এবার রেকর্ড কর আদায়ের প্রত্যাশা

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-১১-১২ ৪:৩৪:০৮ পিএম
সংবাদ সম্মেলনে কথা বলছেন কর কমিশনার ড. খন্দকার মো. ফেরদৌস আলম, ছবি: বাংলানিউজ

সংবাদ সম্মেলনে কথা বলছেন কর কমিশনার ড. খন্দকার মো. ফেরদৌস আলম, ছবি: বাংলানিউজ

রাজশাহী: বিগত ২০১৪-১৫ অর্থবছরে রাজশাহী কর অঞ্চলে আয়কর আদায় হয়েছিল প্রায় ৩২১ কোটি ৬৬ লাখ টাকা। আয়কর আদায়ের এ পরিমাণ পাঁচ বছরে দ্বিগুণেরও বেশি বেড়েছে। সর্বশেষ ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে প্রায় ৭৪১ কোটি টাকা আয়কর আদায় হয়েছে। একই সময়ে বেড়েছে করদাতার সংখ্যাও। তাই আয়কর বাড়ার এ ধারা অব্যাহত রাখতে চায় রাজশাহী কর অঞ্চল। এবার রেকর্ড পরিমাণ কর আদায় হবে বলেও প্রত্যাশা করছে সরকারি এ প্রতিষ্ঠানটি।

মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) দুপুরে রাজশাহী কর অঞ্চলের সপ্তাহব্যাপী আয়কর মেলা উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে কর কমিশনার ড. খন্দকার মো. ফেরদৌস আলম এ প্রত্যাশা কথা জানান।

নিজস্ব সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত এ সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন- রাজশাহী কর অঞ্চলের যুগ্ম কর কমিশনার মির্জা আশিক রানা, যুগ্ম-কর কমিশনার জাফর ইমাম ও উপ-কর কমিশনার (সদর দফতর-প্রশাসন) আবু নসর মো. মাহবুবুজ্জামান। এছাড়া রাজশাহী কর অঞ্চলের উপ-কর কমিশনার জাহাঙ্গীর আলম, মকবুল হাসেন ও নবাব সিরাজউদ্দৌলাও  এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, করদাতাদের উদ্বুদ্ধ করতে এবং কর ও আয়কর রিটার্ণ জমা নিতে আগামী ১৪ থেকে ২০ নভেম্বর রাজশাহী কর অঞ্চল আয়োজন করেছে আয়কর মেলার। 

মহানগরীর হেলেদানাবাদে করভবন প্রাঙ্গণে প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত চলবে এ মেলা। এছাড়া ১৬ থেকে ১৯ নভেম্বর নওগাঁ সদর উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়াম, নাটোর সদরের কানাইখালী এলাকার আয়কর অফিস প্রাঙ্গণ, পাবনা জেলা পরিষদের রশিদ হল ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ সরকারি কলেজ অডিটোরিয়ামে চার দিনব্যাপী আয়কর মেলার আয়োজন করা হয়েছে।

১৭ ও ১৮ নভেম্বর দু’দিনব্যাপী আয়কর মেলার আয়োজন করা হয়েছে পাবনার ঈশ্বরদী ঈক্ষু গবেষণা ইনস্টিটিউট, রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার ভবানীগঞ্জ বাজারের আয়কর অফিস প্রাঙ্গণ ও নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলার মাতাজি রোডের রোকেয়া কমিউনিটি সেন্টারে। এছাড়া ১৯ ও ২০ নভেম্বর নাটোরের সিংড়া উপজেলা চত্বরের কৃষি হল ঘরেও আয়কর মেলার আয়োজন করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, আয়কর মেলায় আকরদাতারা তাদের রিটার্ন দাখিল ও ই-রেজিস্ট্রেশন করতে পারবেন। নতুন করদাতাদের ই-টিআইএন সনদ দেওয়া হবে। মেলায় আগতরা আয়কর অধিক্ষেত্র জানতে পারবেন। আয়করদাতাদের রিটার্ন ফরম পূরণে সহযোগিতা করা হবে। ব্যাংক বুথে আয়কর জমা দেওয়া যাবে। মুক্তিযোদ্ধা, নারী ও প্রতিবন্ধী করদাতার জন্য থাকবে আলাদা ব্যবস্থা।

পরিসংখ্যান তুলে ধরে বলা হয়, প্রতিবছর আয়কর মেলায় আয়কর আদায় এবং রিটার্ন জমা দেওয়ার হার বাড়ছে। ২০১৭ সালের মেলায় যেখানে ১৬ হাজার ৫১০টি আয়কর রিটার্ন জমা পড়েছিল, সেখানে গত বছর জমা পড়ে ২৮ হাজার ৫০৩টি। ২০১৭ সালের মেলা থেকে আয়কর আদায় হয়েছিল ১১ কোটি ৯১ লাখ ৬১ হাজার ৬৪৭ টাকা। গতবছর মেলায় আদায় হয় ১৫ কোটি ৫৩ লাখ ৬ হাজার ৭৪১ টাকা। ২০১৭ সালে ৯২১ জন এবং গত বছরের মেলায় ৮৭৫জন ই-টিআইএন নেবেন। ২০১৭ সালে ৪৯ হাজার ৩৫৬ জন সেবা নেবেন। গত বছরের মেলায় সেবা নেবেন ৬৬ হাজার ১৩৬জন।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ১৩ নভেম্বর মহানগরীর সিঅ্যান্ডবি মোড়ের শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান মিলনায়তনে গত অর্থবছরের সর্বোচ্চ আয়কর প্রদানকারীদের ক্রেস্ট দেওয়া হবে। এছাড়া ৩০ নভেম্বর করভবন প্রাঙ্গণ থেকে আয়কর দিবসের বনাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হবে।

বাংলাদেশ সময়: ১৬২৪ ঘণ্টা, নভেম্বর ১২, ২০১৯
এসএস/ওএইচ/

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-11-12 16:34:08