ঢাকা, সোমবার, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭, ১০ আগস্ট ২০২০, ১৯ জিলহজ ১৪৪১

শেয়ার

পুঁজিবাজারে জনগণের আস্থা ফিরিয়ে আনবো: অর্থমন্ত্রী

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১০৯ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৯
পুঁজিবাজারে জনগণের আস্থা ফিরিয়ে আনবো: অর্থমন্ত্রী অর্থমন্ত্রীসহ অন্যরা বৈঠকে

ঢাকা: অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠিত করে পুঁজিবাজারে জনগণের আস্থা ফিরিয়ে আনবো। পুঁজিবাজারে আমরা ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠিত করতে চাই। অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমাদের জিরো টলারেন্স। এই বাজারে আমরা শতভাগ আস্থা অর্জন করতে চাই।

সোমবার (১৬ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর শেরে-বাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কক্ষে ‘পুঁজিবাজার উন্নয়নের লক্ষ্যে অংশীজনদের সঙ্গে মতবিনিময়’ সভায় তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, পুঁজিবাজারের শেয়ার যেন যথাযথ দামে আসে এটা নিশ্চিত করবো।

আমরা আশ্বস্ত করতে পারি, পুঁজিবাজারে সুশাসন প্রতিষ্ঠিত করবো। এখন থেকে আপনারা কেউ অপবাদ দিতে পারবেন না যে, আমরা ন্যায়বিচার করি না অথবা আমরা কারোর প্রতি দুর্বল। পুঁজিবাজারে যিনি অপরাধ করবেন, তিনি যেই হউন না কেন, যতো বড় শক্তিশালী হউন না কেন, আইন অনুযায়ী ন্যায়বিচার করবো।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘পুঁজিবাজারের যেসব চ্যালেঞ্জ আছে সেগুলো আমরা দূর করবো। পুঁজিবাজারের সক্ষমতা ফেরাবো। যাতে করে পুঁজিবাজারটা যেন টেকসই হয়। বাজারটি যেন একটা ভালো অবস্থানে আসতে পারে। আপানারা সবাই জানেন আমাদের অর্থনীতি কতো শক্তিশালী। আমরা বেশি কিছু আশা করি না। আমাদের অর্থনীতি যতটা গতিশীল, পুঁজিবাজারকে ততটা গতিশীল হিসেবে দেখতে চাই। এই বাজারে যে বিশ্বাস অবিশ্বাস আছে এগুলো দূর করবো। ’

পুঁজিবাজার অর্থনীতির অন্যতম মৌলিক এলাকা উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী সবসময় পুঁজিবাজার উন্নয়নের কথা বলেন। মধ্য, উচ্চ থেকে সাধারণ, সবাই পুঁজিবাজারে জড়িত। এই বাজারে আরো কিছু কাজ করতে হবে। আমরা সবাই ঐক্যমতে পৌঁছে গেছি, পুঁজিবাজার উন্নয়নে সবাইকে কাজ করতে হবে। সরকারের সব সংস্থাও একমত পোষণ করেছে পুঁজিবাজার উন্নয়ন করতেই হবে, যেকোনো মূল্যে।

তিনি আরো বলেন, ভালো ভালো সরকারি কোম্পানিগুলো পুঁজিবাজারে আসবে। পুঁজিবাজারে শেয়ারের মূল্য যাতে যথাযথ হয় সেই কাজও করবো। এজন্য বিশেষ কমিটি করে দিয়েছি, তারা ঘুরে ঘুরে এসব দেখবে। যারা লাফিয়ে লাফিয়ে পুঁজিবাজারে শেয়ারের দাম বাড়িয়ে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করবে তারা ছাড় পাবে না।

বৈঠকে আরো উপস্থিত ছিলেন আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. আসাদুল ইসলাম, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির, বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান, বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের (আইডিআরএ) চেয়ারম্যান, ফিন্যান্সিয়াল রিপোর্টিং কাউন্সিলের চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের চেয়ারম্যান, ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশের (আইসিবি) চেয়ারম্যান এবং সাধারণ বিমা করপোরেশনের চেয়ারম্যান প্রমুখ।

বাংলাদেশ সময়: ১৭০৬ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৯
এমআইএস/জেডএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa