ঢাকা, সোমবার, ৩১ ভাদ্র ১৪২৬, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯
bangla news

খাগড়াছড়িতে দেশি-উপসী জাতের মরিচে লাভবান কৃষক

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৯-০১ ৪:৩৯:০৯ পিএম
খাগড়াছড়ির পাহাড়ের মরিচ ক্ষেত। ছবি: বাংলানিউজ

খাগড়াছড়ির পাহাড়ের মরিচ ক্ষেত। ছবি: বাংলানিউজ

খাগড়াছড়ি: খাগড়াছড়িতে দেশি ও উপসী জাতের মরিচ চাষ করে লাভবান হচ্ছেন কৃষকরা। স্থানীয় বাজারে কৃষকরা এ মরিচের দামও ভালো পাচ্ছেন। প্রতিকেজি উপসী জাতের মরিচের দাম ৩০ থেকে ৪০ টাকা আর দেশি মরিচ ৫০ থেকে ৬০ টাকায় বিক্রি করছেন তারা।

এদিকে, কাঁচা মরিচ শুকিয়ে সংরক্ষণ করা যায়। তবে প্রতি কেজি শুকনা মরিচ বিক্রি হয় ১০০ থেকে ১৫০ টাকায়।
 
খাগড়াছড়িসহ তিন পার্বত্য জেলায় মরিচের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। তরকারিতে মরিচের ব্যবহার প্রাচীনকাল থেকেই। তবে পার্বত্য অঞ্চলগুলোতে তরকারির পাশাপাশি বিভিন্ন রকমের মরিচ ভর্তা খাওয়ারও প্রচলন রয়েছে। পাহাড়ে মূলত দুই ধরনের মরিচের চাষ হয়। দেশি মরিচ ও উপসী জাতের মরিচ।
 
এক হেক্টর পাহাড়ি জমিতে ৮০০ গ্রাম থেকে এক কেজি মরিচের বীজ অথবা ৪০ হাজার চারা প্রয়োজন হয়। দেশি মরিচ এক হেক্টর জমিতে কাঁচা অবস্থায় ফলন আসে ১০ থেকে ১২ টন। এদিকে, উপসী জাতের প্রতিটি গাছে ৪০০ থেকে ৫০০টি মরিচ ধরে। স্থানীয় বাজারেই এসব মরিচ বিক্রি হয়। স্থানীয় বাজারে বিক্রি হওয়ায় পরিবহন খরচ কমে যায় এবং লাভ ও অনেক বেশি হয়। এতে খুশি পাহাড়ের কৃষকরা।
 
খাগড়াছড়ির এপিবিএন এলাকার বাসিন্দা কৃষক আশরাফ উদ্দিন বলেন, স্থানীয়ভাবে মরিচের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। তাই দামও ভালো পাওয়া যায়। তবে বাজারজাতের ব্যবস্থা না থাকায় সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় বলেও জানান তিনি।

কৃষি কর্মকর্তারা জানান, এ বছর খাগড়াছড়িতে ৩৮৯ হেক্টর জমিতে মরিচের চাষ হয়েছে। সে হিসেবে খাগড়াছড়িতে মোট মরিচের ফলন হয়েছে চার হাজার ৬৬৮ টন। পাহাড়ের মাটি উর্বর হওয়ায় মরিচের ফলন ভালো হয়। এছাড়া স্থানীয় মরিচের চাহিদা বেশি থাকায় কৃষক ভালো দাম পাচ্ছেন।

খাগড়াছড়ি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মর্তুজ আলী বাংলানিউজকে বলেন, স্থানীয়রা ঝাল একটু বেশি পছন্দ করে। তাই স্থানীয়ভাবে মরিচের চাহিদাও বেশি। এতে করে কৃষকরা লাভবান হচ্ছে। তবে প্রত্যন্ত এলাকা থেকে চাষিদের মরিচ বাজারজাত করতে গিয়ে সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। আমাদের পক্ষ থেকে চেষ্টা করছি তাদের সহায়তা দেওয়ার।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৩৭ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ০১, ২০১৯
এডি/আরআইএস/

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-09-01 16:39:09