ঢাকা, শনিবার, ৫ আশ্বিন ১৪২৬, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯
bangla news

পাট চাষ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন মেহেরপুরের কৃষকরা

জুলফিকার আলী কানন, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৭-১০ ৯:২৩:৫৯ এএম
পাট ক্ষেতে কাজে ব্যস্ত কয়েকজন কৃষক। ছবি: বাংলানিউজ

পাট ক্ষেতে কাজে ব্যস্ত কয়েকজন কৃষক। ছবি: বাংলানিউজ

মেহেরপুর: দেশি জাতের পাট বীজ না পাওয়া, পাটের ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত, জেলার একমাত্র পাট ক্রয়কেন্দ্রে বাকিতে পাট বিক্রি, পাট ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেট ও পাট চাষে উৎপাদন খরচ না ওঠাসহ বিভিন্ন কারণে সোনালি আঁশ পাট চাষ থেকে দিন দিন মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন মেহেরপুরের কৃষকরা।

একসময় মেহেরপুরে প্রচুর পরিমাণ পাটের চাষ হলেও গত কয়েক বছরে এ জেলায় পাট চাষ কমেছে আশঙ্কাজনক হারে। 

মেহেরপুর জেলা কৃষি বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৫ সালে ২৩ হাজার ৭৫৫ হেক্টর, ২০১৬ সালে ২৭ হাজার ২১০ হেক্টর, ২০১৭ সালে ২৫ হাজার ৮৪৫ হেক্টর, ২০১৮ সালে ২০ হাজার ৭৯০ হেক্টর জমিতে পাটের চাষ হয়েছিল। চলতি বছর মেহেরপুরের তিনটি উপজেলায় ১৯ হাজার ৯২০ হেক্টর জমিতে করা হয়েছে পাট চাষ।

কৃষকরা বলছেন, ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটের কারণে পাটের ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন তারা। ফলে উৎপাদন খরচ তুলতে তাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে। তাই লোকসানের ভয়ে দিন দিন পাট চাষে আগ্রহ হারাচ্ছেন মেহেরপুরের কৃষকরা। 

তবে কৃষি বিভাগ বলছে, কৃষকদের পাট চাষে উদ্বুদ্ধ করার জন্য নানা কর্মসূচি হাতে নিচ্ছে সরকার। পাট চাষে মাঠ পর্যায়ের কৃষকদের সঙ্গে নানাভাবে কাজ করছেন উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা।

গাংনী উপজেলার বাওট গ্রামের কৃষক রমজান আলী, কামাল হোসেন, তেরাইল গ্রামের আব্দুল মান্নান বাংলানিউজকে জানান, গত কয়েক বছর ধরে পাট চাষে লোকসান গুনতে হয়েছে কৃষকদের। তাই অনেকেই মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন পাট চাষ থেকে। বিঘাপ্রতি জমিতে পাট আবাদে ১০/১১ হাজার টাকা খরচ হলেও বিক্রি হয় আট থেকে নয় হাজার টাকা। ফলে দিন দিন কমছে পাটের চাষ।

পাট চাষি আব্দুল হামিদ, মিলন রহমান ও আব্দুল জাব্বার বাংলানিউজকে বলেন, দেশি জাতের বীজ না পাওয়ায় বেশি দামে বিদেশি বীজ কিনতে হয়। অনেক সময় নিম্নমানের বীজের কারণে ফলন ভালো হয় না। প্রতি বিঘা জমিতে উৎপাদন খরচের চেয়ে বিক্রি হয় কম। কৃষককে তিন থেকে চার হাজার টাকা লোকসান গুনতে হয়। তাই দিন দিন পাট চাষ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন চাষিরা।
পাট ক্ষেতে কাজে ব্যস্ত কয়েকজন কৃষক। ছবি: বাংলানিউজ
কৃষকরা আরও বলছেন, জেলার একমাত্র পাট ক্রয়কেন্দ্রে পাট বিক্রি করতে হয় বাকিতে। তাছাড়া সময়মতো কৃষকদের কাছ থেকে পাট না কেনায় অন্য ফসল আবাদে যেতে পারেন না তারা। ফলে কম দামে পাট বিক্রি করে দিতে হয় স্থানীয় ব্যবসায়ীদের কাছে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, পাট ওঠার সময় মিলগুলোতে পাট কেনা বন্ধ থাকে। আর এ সুযোগ নেন বড় বড় ব্যবসায়ীরা। তারাই সিন্ডিকেট করে কমিয়ে দিচ্ছেন পাটের দাম।

মেহেরপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক ড. আক্তারুজ্জামান বাংলানিউজকে বলেন, নিম্নমানের পচন পদ্ধতির কারণে পাটের ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন চাষিরা। তবে কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে তাদের দেওয়া হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের পরামর্শ।

বাংলাদেশ সময়: ০৯২০ ঘণ্টা, জুলাই ১০, ২০১৯
এসআরএস

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   কক্সবাজার মরদেহ উদ্ধার মেহেরপুর কৃষি
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-07-10 09:23:59