ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৬ আষাঢ় ১৪২৬, ২০ জুন ২০১৯
bangla news

আইসিটিতে আশা-আশঙ্কা দুই-ই দিয়েছে বাজেট

শাওন সোলায়মান, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৬-১৪ ৯:৫৫:৪১ পিএম
গ্রাফিক্স ছবি

গ্রাফিক্স ছবি

ঢাকা: ইতোমধ্যে সংসদে উত্থাপিত হয়েছে ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট। চলছে বিশ্লেষণ। সংশ্লিষ্টরা খুঁজছেন আশা ও সম্ভাবনার ইঙ্গিত। তেমনি দেশিয় তথ্যপ্রযুক্তি বা আইসিটি খাত নিয়ে বাজেট প্রস্তাবে আশা ও আশঙ্কা দুই-ই দেখছেন এ খাত সংশ্লিষ্টরা।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) জাতীয় সংসদে পাঁচ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকার বাজেট প্রস্তাব পেশ করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। এতে আইসিটি খাতে প্রায় ১৫ হাজার ৭৭৩ কোটি টাকা বরাদ্দের সুপারিশ করা হয়। বিগত অর্থবছর অর্থাৎ ২০১৮-১৯ এর তুলনায় এ বরাদ্দ সুপারিশ দুই হাজার ৬৬২ কোটি টাকা বেশি। আর আইসিটি বিভাগের জন্য প্রায় এক হাজার ৯৩০ কোটি টাকা বরাদ্দের সুপারিশ করা হয় যা গত অর্থবছরের থেকে প্রায় ২১৭ কোটি টাকা বেশি।
 
বরাদ্দ বাড়ানোর এ সুপারিশকে ইতিবাচক হিসেবে মনে করছেন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসের (বেসিস) সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবীর। 

তিনি বলেন, যদিও আমরা আরও বেশি আশা করেছিলাম, তবুও যেহেতু গত বছরের থেকে বেশি, সেহেতু অবশ্যই একটি ভালো দিক। এখন গুরুত্বপূর্ণ যে বিষয়টি হচ্ছে, তাহলো এ বরাদ্দকৃত অর্থ সতর্কতার সঙ্গে খরচ করতে হবে। বিশেষ করে দক্ষ মানবসম্পদ তৈরি এবং অবকাঠামো তৈরি ও উন্নয়নে প্রকল্প তৈরি করে এ অর্থ খরচ করতে হবে সরকারকে।
 
স্টার্টাপ কোম্পানিগুলোর জন্য ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দের সুপারিশ রাখার প্রশংসা করেছেন বেসিসের সভাপতি ও ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ড্রাস্ট্রির (এফবিসিসিআই) পরিচালক আলমাস কবীর। একইসঙ্গে বাজেটে ‘টেকনিক্যাল অ্যাসিসটেন্স’ বাবদ অর্থ বরাদ্দ না থাকায় দেশিয় আইসিটি খাতের জন্য ‘সুযোগ হাতছাড়া’ বলে মনে করছেন এ ব্যবসায়ী নেতা। 

তিনি বলেন, টেকনিক্যাল অ্যাসিসটেন্স নামক একটি প্রকল্পে আমরা সরকারের কাছে ৫০০ কোটি টাকা বরাদ্দ চেয়েছিলাম। এর মাধ্যমে আমরা অনুন্নত কোনো দেশের সরকারকে আইসিটি সেবা দেওয়ার জন্য কাজ করতাম যা বাংলাদেশের কোনো কোম্পানি করবে। এমনটা হলে দেশের আইটি ইন্ডাস্ট্রির জন্য বিরাট একটা বিপ্লব হতো। এখন পর্যন্ত বাজেটে এ বিষয়ে আমরা কিছু দেখিনি। এটা হলে খুব ভালো হতো।
 
এদিকে, কম্পিউটার এবং এ ধরনের পণ্যে আগের বছরের বাজেট থেকে তেমন কোনো পরিবর্তন না আনায় অনেকটাই স্বস্তি প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির ব্যবসায়ীরা। প্রস্তাবিত বাজেটের বিভিন্ন দিক অধিকতর বিশ্লেষণের পর আনুষ্ঠানিকভাবে এ বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানানো হবে বলে জানান সংগঠনটির সভাপতি শহিদ উল মুনির এবং সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ হোসেন সুমন।
 
অন্যদিকে ই-কমার্সকে ‘ভার্চুয়াল ব্যবসা’ হিসেবে তালিকাভুক্ত করে এর ওপর মূসক এক শতাংশ থেকে বাড়িয়ে পাঁচ শতাংশ করার সুপারিশে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন এ খাতের ব্যবসায়ীরা। 

ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ই-ক্যাব) সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওয়াহেদ তমাল বলেন, আমরা ই-কমার্সকে আলাদা ক্যাটাগরিতে রাখার প্রস্তাব করেছিলাম। কিন্তু এটিকে ভার্চুয়াল বিজনেসের মধ্যে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এর ফলে ই-কমার্স ব্যবসায়ীদের অনেক বেশি অর্থ খরচ হবে, তারা ক্ষতির সম্মুখীন হবেন। ফলে নতুন উদ্যোক্তারাও নিরুৎসাহিত হবেন।
 
তবে এমন আশঙ্কার সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করেছেন তথ্য ও যোগাযোগ বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। ই-কমার্স খাত সংশ্লিষ্টদের প্রস্তাবিত বাজেটের কিছু দিক নিয়ে দ্বিমত থাকার বিষয়ে অবগত আছেন বলে জানান প্রতিমন্ত্রী। শুক্রবার (১৪ জুন) বাজেট নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সংবাদ সম্মেলনের পর এ খাত সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনা করবেন বলেও জানান তিনি। 

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমাদের হাতে এখনও কিছু সময় আছে; ১৫ দিনের মতো। ই-কমার্স নিয়ে কারও যদি পরামর্শ বা মতামত থাকে আমরা সেগুলো শুনবো এবং এ খাতের জন্য ভালো হয় এমন সিদ্ধান্তই যেন আসে সে বিষয়ে কাজ করবো।
 
একইসঙ্গে প্রস্তাবিত বাজেটকে ‘ইয়ুথ ও আইসিটির জন্য যুগোপযোগী’ বাজেট বলে অভিহিত করেন জুনাইদ আহমেদ পলক। 

বাংলানিউজকে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘তারুণ্যের শক্তি বাংলাদেশের সমৃদ্ধি’। সেখানে তথ্যপ্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে তরুণদের জন্য কর্মসংস্থান তৈরিতে এক অনন্য সাধারণ দৃষ্টান্ত হবে এ বাজেট। তরুণরা যেন শুধু চাকরি খুঁজে না বেড়ায় বরং চাকরি দিতে পারে তাই তাদের উদ্যোক্তা হতে উৎসাহিত করতে এবারের বাজেটে প্রথমবারের মতো ১০০ কোটি টাকার বরাদ্দ সুপারিশ করা হয়েছে। স্টার্টাপ বাংলাদেশ কোম্পানি লিমিটেডের খসড়া আমরা ইতোমধ্যে মন্ত্রিপরিষদে পাঠিয়েছি। এটি কোম্পানি আকারে নিবন্ধিত হয়ে গেলে এবং এ বরাদ্দ অর্থ কাজে লাগিয়ে তরুণদের মধ্যে উদ্যোক্তা হতে উৎসাহ-উদ্দীপনা তৈরি হবে।  
 
বাংলাদেশ সময়: ২১৫২ ঘণ্টা, জুন ১৪, ২০১৯
এসএইচএস/আরবি

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-06-14 21:55:41