[x]
[x]
ঢাকা, রবিবার, ৫ ফাল্গুন ১৪২৫, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯
bangla news

বাণিজ্যমেলায় স্বাস্থ্যসম্মত খাবার দিচ্ছে ‘ঝটপট’

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০১-১৫ ৬:২৫:৩৮ পিএম
বাণিজ্যমেলায় ‘ঝটপট’

বাণিজ্যমেলায় ‘ঝটপট’

ঢাকা: ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলায় আগত দর্শনার্থীদের কাছে বড় উদ্বেগের বিষয় সাশ্রয়ী দামে মানসম্মত খাবার পাওয়ার নিশ্চয়তা। এটি মাথায় রেখে মেলায় স্বাস্থ্যসম্মত খাবারের বড় প্যাভিলিয়ন দিয়েছে রেডি খাবারের জনপ্রিয় ব্র্যান্ড ‘ঝটপট’।

মেলার ১২ নম্বর জেনারেল প্যাভিলিয়নে ‘ঝটপট’ ব্র্যান্ডের চিকেন বিরিয়ানী, পরোটা, সিঙ্গারা, সমুচা, রুটি, চিকেন স্প্রিং রোল, চিকেন নাগেট, চিকেন পেটি, চিকেন সসেজ, পুরি, পপকর্ন, স্ট্রিপস, ফ্রেঞ্চফ্রাইসহ বিভিন্ন ফ্রোজেন ফুড বিক্রি হচ্ছে।

পণ্যভেদে সব খাবারে সর্বনিম্ন ১০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ১২০ টাকা পর্যন্ত ছাড় পাচ্ছেন ক্রেতারা। 

‘ঝটপট’ ফ্রোজেন ফুডস’র অ্যাসিসটেন্ট ব্র্যান্ড ম্যানেজার আনিসুল ইসলাম বলেন, পরোটা, সিঙ্গারা, সমুচা, ফ্রেঞ্চ ফ্রাই, চিকেন নাগেটসহ নিত্যকার খাবারের জন্য সবাইকে ছুটতে হতো রেস্টুরেন্ট বা হোটেলে। এখন সেই ধারণায় পরিবর্তন আসতে শুরু করেছে। এসব নিত্য প্রয়োজনীয় খাবার এখন পাওয়া যাচ্ছে প্যাকেটজাত অবস্থায়।

তিনি আরও বলেন, এবারের ঝটপটের প্যাভিলিয়নে সবচেয়ে বড় আকর্ষণ মাত্র ১৫০ টাকায় অত্যন্ত স্বাস্থ্যসম্মত চিকেন বিরিয়ানি। এছাড়া প্যাভিলিয়নে খাবারও পরিবেশন করা হচ্ছে মনোরম ও স্বাস্থ্যকর পরিবেশে।

প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের বিপণন পরিচালক কামরুজ্জামান কামাল বলেন ‘মুখরোচক খাবারে ক্রেতারা স্বাস্থ্যের বিষয়টি সবার আগে মাথায় রাখেন। ঝটপট’র খাবার টেস্টিং সল্ট ও ক্ষতিকর প্রিজারভেটিভ মুক্ত। ‘ঝটপট’ ফ্রোজেন ফুড পণ্য উৎপাদনে কমপ্লায়েন্স নিশ্চিত করায় বিআরসি ও আইএসও সনদপত্র অর্জন করেছে। 

তিনি বলেন, আমরা ক্রেতাদের খুব ভাল সাড়া পাচ্ছি। শুধু দেশের বাজারে নয়, গুণগত মানের কারনে ঝটপট বর্তমানে আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড, ইটালি, নিউজিল্যান্ড এবং সিঙ্গাপুরের বাজারেও ভাল করছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৮২২ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৫, ২০১৯
এএটি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   বাণিজ্যমেলা
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache