ঢাকা, রবিবার, ৭ বৈশাখ ১৪২৬, ২১ এপ্রিল ২০১৯
bangla news

ব্যবসায়ীদের বড় চ্যালেঞ্জ দুর্নীতি

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-১০-১৭ ৭:০৬:৫২ পিএম
দ্য গ্লোবাল কম্পিটিটিভনেস রিপোর্ট ২০১৮’র প্রতিবেদন প্রকাশ অনুষ্ঠান/ছবি: শাকিল আহমেদ

দ্য গ্লোবাল কম্পিটিটিভনেস রিপোর্ট ২০১৮’র প্রতিবেদন প্রকাশ অনুষ্ঠান/ছবি: শাকিল আহমেদ

ঢাকা: বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের বড় চ্যালেঞ্জ দুর্নীতি বলে চিহ্নিত করা হয়েছে ওয়ার্ল্ড ইকোনোমিক ফোরাম দ্য গ্লোবাল কম্পিটিটিভনেস রিপোর্ট ২০১৮’র প্রতিবেদনে।

বুধবার (১৭ অক্টোবর) রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে এ প্রতিবেদন প্রকাশ করেন সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) গবেষক খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম।

এতে বলা হয়, বিগত বছরগুলোর মতোই ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত সময়েও ব্যবসায়ীদের সবচেয়ে বড় সমস্যা ছিল দুর্নীতি। এটি ব্যবসায়ীদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। এটি এখন এতো বড় আকার ধারণ করছে যে কোনো জায়গায় ব্যবসায়ীদের ফেস করতে হচ্ছে।

‘সাম্প্রতিক বছরগুলোতে দুর্নীতি লিডিং ‌পর্যায়ে ছিল। এখন দুর্নীতি নিয়ে ব্যবসায়ীরা সবেচেয়ে বেশি দুর্ভাবনা রয়েছেন। দুর্নীতির ক্ষেত্রে সরকারের সুস্পষ্ট অবস্থান এবং ব্যবসার পরিবেশের দিকে নজর দেওয়া উচিত।

তিনি বলেন, এশিয়াসহ দক্ষিণ এশিয়ার প্রায় সব দেশের বৈশ্বিক প্রতিযোগিতা সক্ষমতা সূচকে এগিয়ে এসেছে। বাংলাদেশ কেবল দুর্নীতি, প্রশাসনিক অদক্ষতা ও শিক্ষিত শ্রমিকের অভাবের কারণে পিছিয়ে পড়ছে। এ অবস্থা থেকে উত্তোরণে ব্যাংক থেকে স্বল্প সুদে ঋণ পাওয়া, নীতির ক্ষেত্রে স্ট্যাবিলিটির অভাব এবং উচ্চ কর হারের নীতিতে পরিবর্তন আনা উচিত। পাশাপাশি সরকারের অস্থিতিশীলতাও জরুরি। 

এক প্রশ্নের জবাবে মোয়াজ্জেম বলেন, আগামী নির্বাচন বিনিয়োগে কোনো নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে না। তবে এটির কারণে উৎপাদন, রফতানি, কর্মসংস্থান ও রেমিটেন্সে কিছুটা হলেও নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন সিপিডির সম্মানীয় ফেলো অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান, নির্বাহী পরিচালক ড. ফাহমিদা খাতুন এবং সিনিয়র রিসার্চ ফেলো তৌফিকুল ইসলাম খান।

বাংলাদেশ সময়: ১৮৫৮ ঘণ্টা, অক্টোবর ১৭, ২০১৮
এসএফআই/এএ

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14