bangla news

এইমস: রিটের শুনানি ফের পেছানোয় বিনিয়োগকারীরা বিপাকে

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১০-০৮-১৮ ৭:০৭:৫১ পিএম

সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (এসইসি) আইনজীবীর সময় প্রার্থনার কারণে আবারো  পেছালো এইমস মিউচুয়াল ফান্ডের রাইট বোনাস নিয়ে করা রিটের শুনানি। বৃহস্পতিবার এসইসির আইনজীবী প্রবীর কুমার নিয়োগী ব্যক্তিগত ব্যস্ততা দেখিয়ে আদালতে সময় প্রার্থনা করলে আদালত তা মঞ্জুর করেন। বিচারপতি মামনুন রহমান ও বিচারপতি সৈয়দা আফসার জাহানের বেঞ্চ এ আদেশ দেন ।

ঢাকা: সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (এসইসি) আইনজীবীর সময় প্রার্থনার কারণে আবারো  পেছালো এইমস মিউচুয়াল ফান্ডের রাইট বোনাস নিয়ে করা রিটের শুনানি। বৃহস্পতিবার এসইসির আইনজীবী প্রবীর কুমার নিয়োগী ব্যক্তিগত ব্যস্ততা দেখিয়ে আদালতে সময় প্রার্থনা করলে আদালত তা মঞ্জুর করেন। বিচারপতি মামনুন রহমান ও বিচারপতি সৈয়দা আফসার জাহানের বেঞ্চ এ আদেশ দেন ।

মামলার পরবর্তী শুনানি একই বেঞ্চে ২৫ আগস্ট।

বারবার সময় প্রার্থনার কারণে রিটের দ্রুত নিষ্পত্তি হচ্ছে না। এর আগে ১৮ আগস্ট বুধবার এসইসির আইনজীবী অ্যাডভোকেট মাহমুদুল ইসলাম অনুপস্থিত থাকায় রিটের শুনানি হয়নি। একারণে বড় ধরনের আর্থিক ক্ষতির শিকার  হচ্ছেন সাধারণ বিনিয়োগকারীরা। তাদের অভিযোগ, এসইসি পরিকল্পিতভাবেই সময় ক্ষেপণ করছে। আর মাঝখান থেকে সুযোগ নিচ্ছে জুয়াড়িরা আর পুঁজি খোয়াচ্ছেন বিনিযোগকারীরা’


এদিকে, এইমসের ট্রাস্টি বোর্ড রাইট বোনাস ইউনিট ঘোষণার ছয় মাস পার হলেও এইমস মিউচ্যুয়াল ফান্ডের লভ্যাংশ বন্টনের ব্যাপারে কোনো সুরাহা হচ্ছে না। এইমসের ট্রাস্টি বোর্ড ঘোষিত রাইট বোনাস ইউনিট এসইসি বাতিল করে দেওয়ার কারণেই এই অচলাবস্থা। গত ছয় মাসে এসইসি দুই দফায় প্রায় চার মাস এইমস মিউচুয়াল ফান্ডের লেনদেন স্থগিত রাখে।

এ ব্যাপারে এসইসির সদস্য মো. আনিসুজ্জামান বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডিকে বলেন, ‘নিয়মের মধ্যে থেকেই এইমসের রাইট বোনাস সংক্রান্ত ঘোষণা আমরা বাতিল করেছি। এখন এটি আদালতে শুনানি চলছে। আদালতের সিদ্ধান্ত আমরা মেনে নেব।’
 
এইমসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. ইয়াওয়ার সাঈদ বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডিকে বলেন, ‘এটা আমাদের বিষয নয়। এইমসের একজন বিনিযোগকারী এসইসির বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। আমরা তো করিনি। আমরা কোনো পক্ষ নই।  তবে আমরা চাই বিষয়টির দ্রুত সমাধান হোক।’
 
তবে এ প্রসঙ্গে আবুল কালাম নামের রাজধানীর  সেনানিবাস এলাকার বাসিন্দা এক ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারী বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডিকে বলেন, ‘এসইসি পরিকল্পিতভাবেই সময় ক্ষেপণ করছে। এতে  করে আমরা বড় ধরনের আর্থিক ক্ষতির শিকার হচ্ছি। আর জুয়াড়িরা বাজারে গুজব ছড়িয়ে হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি কোটি টাকা। এসব দেখেও না দেখার ভান করছে এসইসি।  ’
 
আবুল কালামের অভিযোগ উড়িয়ে দেওয়ার নয়। রিট শুনানিকে ঘিরে বাজারে গুজব ছড়িয়ে এইমসের ইউনিটের দাম বাড়ানোর ঘটনা ঘটছে। তারপর এক সময় দাম কমেও যায়। এভাবে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের পকেটের টাকা চলে যাচ্ছে জুয়াড়িদের পকেটে।
 
উল্লেখ্য, গত ফেব্রুয়ারি থেকে এইমস মিউচুয়াল ফান্ড নিয়ে বিনিয়োগকারীরদের মধ্যে এক ধরনের অস্থিরতা কাজ করছে।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি এইমস মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ট্রাস্টি বোর্ড দুই বছরের রাইট ও বোনাস ইউনিট দেয়ার ঘোষণা দেয়। এই ঘোষণার পরদিন ২৫ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (এসইসি) এইমস মিউচ্যুয়াল ফান্ডের লেনদেন স্থগিত করে। পরে ৭ মার্চ এসইসি এইমসের রাইট বোনাস দেওয়ার প্রস্তাব বাতিল করে ৮ মার্চ থেকে লেনদেন চালুর নির্দেশ দেয়।

আবুল হোসেন নামের একজন বিনিয়োগকারী এসইসির সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট করলে ২৮ মার্চ আদালত এইমসের রাইট বোনাস বাতিল করতে এসইসির দেওয়া সিদ্ধান্ত ৩ মাসের জন্য স্থগিত করেন। একই সঙ্গে আদালত এইমসের রাইট বোনাস বাতিল করা কেন অবৈধ হবে না তা জানতে চেয়ে এসইসির প্রতি রুল জারি করেন।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে ২৯ মার্চ থেকে এসইসি এইমসের লেনদেন দ্বিতীয় দফায় স্থগিত করে। টানা ৩ মাস লেনদেন বন্ধ থাকার পর ব্যাপক সমালোচনার মুখে এসইসি ৪ জুলাই থেকে এইমসের লেনদেন চালু করে। কিন্তু রিটের চুড়ান্ত নিস্পত্তি না হওয়ায় রাইট বোনাসের বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া সম্ভব হয়নি। ফলে ৬ মাস আগে এইমসের ট্রাস্টি বোর্ড রাইট বোনাস ঘোষিত হলেও এখনো তা বিনিযোগকারীদের হাতে পৌঁছায়নি।
 
স্থানীয় সময়: ১৬৪২ ঘন্টা, ১৯ আগস্ট ২০১০

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2010-08-18 19:07:51