ঢাকা, রবিবার, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ২২ রবিউস সানি ১৪৪৩

অর্থনীতি-ব্যবসা

বাংলাদেশ এডিবল অয়েলের ডিপো সিলগালা

বিদেশিরাও বাজার অস্থির করার চেষ্টা করছেন: শিল্পমন্ত্রী

স্টাফকরেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৭৫৬ ঘণ্টা, আগস্ট ১০, ২০১০
বিদেশিরাও বাজার অস্থির করার চেষ্টা করছেন: শিল্পমন্ত্রী

ঢাকা: শুধু বসায়ীরাই নন, বিদেশিরাও দেশের বাইরে থেকে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে দেশের পণ্যবাজার অস্থির করার চেষ্টা করছেন বলে জানিয়েছেন শিল্পমন্ত্রী দিলীপ বড়ুয়া।

মঙ্গলবার ভেজালবিরোধী অভিযানে বাংলাদেশ এডিবল অয়েল লিমিটেডের তেজগাঁও ডিপো সিলগালা এবং ৪৩ হাজার ৯৩০ লিটার ভোজ্যতেল বাজেয়াপ্ত করার পর তিনি এ কথা বলেন।



শিল্পমন্ত্রী বলেন, ‘প্রতিষ্ঠানটি তাদের রূপচাঁদা ব্র্যান্ডের দুই হাজার নয়শ’ কার্টন মোড়কজাত তেল কোনো ঘোষণা ছাড়াই এক সপ্তাহে লিটার প্রতি চার টাকা দাম বাড়িয়েছে। মালয়েশিয়াভিত্তিক প্রতিষ্ঠানটির এ ধরনের প্রতারণা অপ্রত্যাশিত। ’

তিনি বলেন, ‘এরা ইচ্ছাকৃতভাবে সরকারের নির্দেশ অমান্য করে অধিক লাভের উদ্দেশ্যে সপ্তাহে সপ্তাহে দাম বাড়ায়। অনেক ব্যবসায়ী নেতাও এ সিন্ডিকেটের সদস্য থাকতে পারেন। ’

দিলীপ বড়–য়া বলেন, ‘সরকারের হাতে চিনি থাকায় এরা এবার এ পণ্যটি নিয়ে বাণিজ্য করতে পারছে না। তাই তেলসহ অন্যান্য ভোগ্যপণ্যের সিন্ডিকেট গড়ে তুলছে। ’

মন্ত্রী আরও বলেন, ‘আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রাখতে এবং ন্যায্যমূল্যে মানসম্মত পণ্য সরবরাহে ব্যবসায়ীদের বাধ্য করতে এমন তদারক চলবে। ’

বিএসটিআই মহাপরিচালক একে ফজলুল আহাদ এ সময় বলেন, ‘আইন অনুযায়ী মোড়কজাত পণ্যের দাম বৃদ্ধির আগে বিএসটিআই মহাপরিচালককে চিঠি দিয়ে অবহিত করা বাধ্যতামূলক হলেও এখন পর্যন্ত কেউই আমাকে তা জানাননি। ’

অভিযানে অংশ নেওয়া ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আল-আমিন বলেন, ‘আইনে মোড়কজাত পণ্যের দাম বাড়নোর ক্ষেত্রে দুই মাস আগে একাধিক জাতীয় পত্রিকায় বিজ্ঞাপন প্রকাশ করা এবং বিএসটিআই মহাপরিচালককে চিঠি দিয়ে অবহিত করার কথা রয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশ এডিবল ওয়েল লিমিটেড তা করেনি। ’

তিনি বলেন, ‘এ অপরাধে ভোক্তা অধিকার আইন ২০০৯-এর ৪০ ধারা অনুযায়ী এ ডিপোর জব্দ করা তেল বিএসটিআই-এর কাছে হস্তান্তর করা হচ্ছে প্রকাশ্য নিলামের মাধ্যমে বিক্রির জন্য। এছাড়া ডিপোটি সিলগালা করে র‌্যাব-২-এর হেফাজতে হস্তান্তর করা হচ্ছে। ’

অভিযুক্ত প্রতিষ্ঠানের ডিপো ম্যানেজার তারেক আলম বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডিকে জানান, ‘২৭ জুলাই রূপচাঁদা ব্র্যান্ডের দুই লিটারের এক বোতল তেলের খুচরা দাম ছিল ১৭৬ টাকা। আর ৯ আগস্ট এর দাম দাঁড়ায় ১৮৪ টাকা। এভাবে সব সাইজের মোড়কজাত তেলের দাম বেড়েছে লিটার প্রতি চার টাকা। ’

ছয় মাস আগে এ প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালিয়ে পাঁচ লিটারের বোতলে ৮০ মিলিলিটার কম পায় আদালত। তখন প্রতিষ্ঠানটিকে দুই লাখ টাকা জরিমানা করে সতর্ক করে দেওয়া হয়।

এর আগে রমজান উপলক্ষে শিল্পমন্ত্রী দিলীপ বড়–য়ার নেতৃত্বে দুপুর ১২টায় কারওয়ান বাজারে অভিযান চালায় ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় বিএসটিআই মহাপরিচালক একে ফজলুল আহাদ এবং পরিবেশ ও মৎস্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তারাও অংশ নেন।

এতে মাছে ফরমালিন মেশানোর অপরাধে কাওরান বাজার কিচেন মার্কেটের ১৯৩ দোকানের হর চরণকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এছাড়া হলুদ এবং মরিচের গুড়ায় রঙ মেশানো ও মজুদ এবং হাইপারঅক্সাইড মজুদের অপরাধে বাজারের দোতলার শরীয়তপুর স্টোরকে ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

এ সময় চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জের ইলিয়াস ব্রাদার্সের ‘দাদা’ ব্র্যান্ডের সয়াবিন তেলের পাঁচ লিটারের বোতলে খুচরা মূল্য না থাকায় প্রতিষ্ঠানের ডিলার মোশারফ হোসেনকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। মামলা পরিচালনা করেন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আল আমিন।

বাংলাদেশ সময়: ১৭৩০ ঘণ্টা, আগস্ট ১০, ২০১০

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa