ঢাকা, বুধবার, ৫ আষাঢ় ১৪৩১, ১৯ জুন ২০২৪, ১১ জিলহজ ১৪৪৫

অর্থনীতি-ব্যবসা

ওয়াশ খাতের বাজেটে বরাদ্দ বাড়ানোর দাবি

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬৫৫ ঘণ্টা, মে ২৩, ২০২৪
ওয়াশ খাতের বাজেটে বরাদ্দ বাড়ানোর দাবি

ঢাকা: আগামী ২০২৩-২৪ অর্থবছরের জাতীয় বাজেটে পানি, স্যানিটেশন ও হাইজিন (ওয়াশ) খাতে পর্যাপ্ত বরাদ্দ দেওয়া উচিত। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে এ খাতে বরাদ্দ বাড়লেও নানা ধরনের বৈষম্য রয়ে গেছে।

সামগ্রিকভাবে এ খাতে তিন ধরনের বৈষম্য লক্ষ করা যায়, যা সমাধান করা উচিত। গ্রাম-শহরের বৈষম্য, আন্তঃনগর বৈষম্য এবং বিশেষ করে হাওর অঞ্চলে পৌঁছানো কঠিন এমন কিছু এলাকায় কম মনোযোগ দেওয়া। বরাদ্দের ক্ষেত্রে আঞ্চলিক সব ধরনের বৈষম্য দূর করা প্রয়োজন। পাশাপাশি ওয়াশ খাতের বরাদ্দ এডিপি বৃদ্ধির আকারের সমানুপাতিক বা উচ্চতর হতে হবে।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) জাতীয় প্রেস ক্লাবে এ সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়। পিপিআরসি, ওয়াটারএইড, ফানসা, এফএসএম নেটওয়ার্ক, স্যানিটেশন অ্যান্ড ওয়াটার ফর অলসহ কয়েকটি বেসরকারি সংস্থা এবং সংস্থার ফোরাম/প্ল্যাটফর্ম যৌথভাবে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে।

অর্থনীতিবিদ ও পিপিআরসি নির্বাহী চেয়ারম্যান ড. হোসেন জিল্লুর রহমান বলেন, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার (এসডিজি) ছয় নম্বর লক্ষ্য হলো সবার জন্য নিরাপদ পানীয় জল এবং স্যানিটেশন নিশ্চিত করা। এই লক্ষ্যমাত্রা সঠিক সময়ে অর্জন নিশ্চিত করতে হলে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) বৃদ্ধির হার এবং উন্নয়ন বাজেটের সাথে ওয়াশ খাতের বরাদ্দকেও তাল মিলিয়ে চলতে হবে।

তিনি বলেন, আগামী ২০২৪-২৫ অর্থবছরের জাতীয় বাজেটে এডিপি বরাদ্দের ক্ষেত্রে আঞ্চলিক বৈষম্য নিরসন এবং সংশ্লিষ্ট সম্প্রদায়ের সম্পৃক্ততাকে অগ্রাধিকার দেওয়া জরুরি। চর, হাওর, পাহাড়ি অঞ্চলসহ জলবায়ুগত ঝুঁকির আওতাধীন সুবিধাবঞ্চিত এলাকা এবং নগরের মধ্যকার বরাদ্দ বৈষম্য নিরসন করা প্রয়োজন।

ড. হোসেন জিল্লুর রহমান বলেন, ওয়াশ খাতের জন্য এডিপির বরাদ্দ ওঠানামা এবং কম আনুপাতিক বৃদ্ধির প্রবণতা দেখায়। সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রাতে (এমডিজি) ওয়াশ খাতের তুলনায় এসডিজি যুগের ওয়াশ খাতের লক্ষ্যমাত্রা আরও জটিল এবং চ্যালেঞ্জিং, এখন নিরাপদ খাবার পানি এবং নিরাপদ স্যানিটেশনের ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। ২০২১ সালের তথ্যানুযায়ী আমরা এই লক্ষ্যমাত্রায় যথাক্রমে ৫৯ এবং ৩৯ শতাংশ পূরণ করেছি। এসডিজি সিক্সে লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য ছয় বছর বাকি আছে।

আমাদের শুধু ওয়াশ খাতের বরাদ্দ বাড়ালে হবে না বরং আরও গুরুত্ব সহকারে আমাদের পর্যাপ্ত বরাদ্দ প্রয়োজন, বিশেষ করে ওয়াশ খাতের বরাদ্দ এডিপি বৃদ্ধির আকারের সমানুপাতিক বা উচ্চতর হতে হবে। পরিবেশ রক্ষার জন্য, পাবলিক প্লেসসহ সব প্রতিষ্ঠানে নারী, শিশু এবং প্রতিবন্ধীবান্ধব স্যানিটেশন সেবা নিশ্চিত করার দাবি জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ২০২২-২৩ অর্থবছরের এডিপির দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনায় ওয়াশ খাতের বেশ প্রশংসনীয় ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা দেখা যায় যদিও বিশ্লেষণাত্মক রিপোর্ট দেখায় যে প্রবৃদ্ধি সামগ্রিক এডিপির আকার বৃদ্ধির হারের সমানুপাতিক ছিল না। লক্ষ্য করা যায় যে, এডিপির প্রবৃদ্ধির হার ৭ দশমিক ৪ শতাংশ থেকে ওয়াশ খাতের বরাদ্দের জন্য ৫ দশমিক ৪৪ শতাংশ খুবই কম। ওয়াশ খাতের বরাদ্দের ক্ষেত্রে অনুপাতের তুলনায় এই ধরনের কম বৃদ্ধি এসডিজি সিক্সে সরকারের প্রতিশ্রুতি সময় মতো অনুধাবনের বেলায় নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে। এভাবে ২০২৩-২৪ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে ২৩ শতাংশ কমেছে। ২০১২-১৩ এবং ২০১৩-১৪ অর্থবছরে ওয়াশের জন্য এডিপি বরাদ্দের ওঠানামাও পরিলক্ষিত হয়েছে। কিন্তু ২০২২-২৩ অর্থবছরের সংশোধিত এডিপির তুলনায় ২০২৩-২৪ অর্থবছরের আকারে ১১ দশমিক ৮ শতাংশ বৃদ্ধি (২ দশমিক ৬৩ ট্রিলিয়ন টাকা) থাকা সত্ত্বেও ২০২২-২৩ অর্থবছরে নিম্নগামী ওঠানামা ছিল বরাদ্দের প্রায় এক-চতুর্থাংশ। এই ধরনের বাজেট কাটছাঁট লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের পাশাপাশি ১শ’শতাংশ নিরাপদ পানি এবং ১শ’শতাংশ নিরাপদ স্যানিটেশন দেওয়ার প্রতিশ্রুতি পূরণে বাধার সৃষ্টি করে।

২০২২-২৩ অর্থবছরে বরাদ্দ করা সম্পূর্ণ বাজেট ব্যবহার করা যায়নি। ২০২২-২৩ অর্থবছরে ব্যয় ছিল ১২৪ দশমিক ৪৭ কোটি টাকা, যার ফলস্বরূপ সংশোধিত বাজেট ১৩৯ দশমিক ৬৩ কোটি টাকা নির্ধারণ করা হয়েছিল। কিন্তু সেই পরিমাণ সম্পূর্ণরূপে ব্যবহার করা হয়নি। একই ঘটনা প্রায় প্রতিবছর ঘটেছে। ২০২০-২১ অর্থবছরে করোনার কারণে সংশোধিত বাজেট ১১২ দশমিক ৩২ বিলিয়ন টাকা নির্ধারণ করা হয়েছিল, কিন্তু ব্যবহার করা হয়েছে ৭০ দশমিক ৬ বিলিয়ন টাকা।

বরাদ্দের এ ধরনের ওঠানামা আনুপাতিকহারে ওয়াশ খাতের বিকাশের সঙ্গে জিডিপি, জাতীয় বাজেট, এবং উন্নয়ন বাজেটের ব্যবধানকে উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি করে যা শেষ পর্যন্ত শহর ও গ্রামের মধ্যকার ব্যবধানের প্রতিফলন দেখায়- ২০২১-২২ অর্থবছরে ২২ দশমিক ৫ শতাংশ থেকে ২০২২-২৩ অর্থবছরে ২৭ দশমিক ৭ শতাংশ ওয়াশ খাতের জন্য বরাদ্দে গ্রাম এবং শহরের মধ্যে যে ব্যবধান তা ২০২৩-২৪ অর্থবছরেও ব্যাপকভাবে অব্যাহত ছিল।

অনুষ্ঠানে আরও জানানো হয়, ওয়াশ খাতের জন্য নেওয়া বরাদ্দ (৫ দশমিক ৪৪ শতাংশ) এডিপির বর্ধিত (৭ দশমিক ৪ শতাংশ) আকারের সাথে তাল মিলিয়ে এগোতে পারেনি। ওয়াশ খাতের এমন ‘অনুপাতের চেয়ে কম বৃদ্ধি সরকারের এসিডিজ সিক্স এবং জাতীয় অগ্রাধিকার লক্ষ্যমাত্রার প্রতিশ্রুতি, যেমন, ১০০ শতাংশ সুপেয় খাবার পানি এবং ১০০ শতাংশ নিরাপদে পরিচালিত স্যানিটেশন ব্যবস্থার ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে।

সবশেষে ২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেটে, পূর্ববর্তী অর্থবছরগুলোর মতো এই বছরেও, কিশোরী ও প্রজননক্ষম নারীদের মাসিককালীন স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা নিশ্চিতকরণে স্যানিটারি ন্যাপকিন তৈরিতে ব্যবহৃত কাঁচামালসহ স্থানীয় পর্যায়ে স্যানিটারি ন্যাপকিন বিক্রির ওপর ধার্য করা বিদ্যমান সব ধরনের শুল্ক ও কর শতভাগ মওকুফ করার আশু প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য জোর দাবি জানানো হয়।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৫৫ ঘণ্টা, মে ২৩, ২০২৪
এমএমআই/এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।