ঢাকা, বুধবার, ৪ কার্তিক ১৪২৮, ২০ অক্টোবর ২০২১, ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

দিল্লি, কলকাতা, আগরতলা

৫ম দফা ভোট: তৃণমূল-বিজেপি সংঘর্ষ একাধিক জেলায়

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১২৫৪ ঘণ্টা, এপ্রিল ১৭, ২০২১
৫ম দফা ভোট: তৃণমূল-বিজেপি সংঘর্ষ একাধিক জেলায় ...

কলকাতা: পশ্চিমবঙ্গে চলছে পঞ্চম দফার নির্বাচন। তার সঙ্গে চলছে ভোটের হিংসা।

দিকে দিকে তৃণমূল-বিজেপির সংঘর্ষে উত্তপ্ত একাধিক জেলায়। সল্টলেকের বিধাননগরের শান্তিনগরে উভয়পক্ষের মধ্যেই চলে ইট বৃষ্টি, হাতাহাতি। পরে কেন্দ্রীয়বাহিনী টিম রণক্ষেত্র ছত্রভঙ্গ করে।

অপরদিকে ভোটের শুরুতেই উত্তেজনা ছড়িয়েছে উত্তর ২৪পরগনার কল্যাণী বকুলতলা ও গয়েশপুরে। সেখানে বিজেপি এজেন্টকে বসতে বাধা, মারধরসহ বিজেপি ভোটাদের ভোটদানে বাধা, সংঘর্ষ অভিযোগ তৃণমূল বিরুদ্ধে। ওই জেলার কামারহাটিতে বুথেই অসুস্থ হয়ে মৃত্যু হয়েছে এক বিজেপি এজেন্টের। পূর্ব বর্ধমানে বিজেপি এজেন্টের মাথা ফাটিয়ে দেওয়াসহ একাধিক অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে। এছাড়া নদিয়া জেলা থেকে একই খবর সামনে আসছে।

রাজ্যে ৬ জেলায় মোট ৪৫টি আসনে শনিবার (১৭ এপ্রিল) ভোট চলছে সকাল ৭টা থেকে, চলবে সন্ধ্যা সাড়ে ছটা পর্যন্ত। এর মধ্যে রয়েছে উত্তর ২৪পরগনা জেলার ১৬টি আসন, নদিয়া জেলার ৮টি আসন, পূর্ব বর্ধমান জেলার ৮টি আসন, দার্জিলিং জেলার ৫টি আসন, কালিম্পং জেলার ১টি আসন এবং জলপাইগুড়ি জেলার ৭টি আসন।

২০১৬ বিধানসভা ভোটে তৃণমূল এই ৬ জেলার ক্ষমতা ধরে রাখলেও, ২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনের বিধানসভাভিত্তিক ফলাফলে আসন সংখ্যার নিরিখে সমানে সমানে টক্কর ছিল তৃণমূল ও বিজেপির। লোকসভা ভোটের ফল অনুযায়ী এই ৪৫টি বিধানসভার মধ্যে তৃণমূল ২৩টি আসনে ও বিজেপি ২২টি আসনে এগিয়ে ছিল।

অপরদিকে, পঞ্চম দফার ভোটে কোচবিহার জেলার শীতলকুচির মতো ঘটনার পুনরাবৃত্তি যেন না হয় সেদিকে বাড়তি নজর রয়েছে নির্বাচন কমিশনের। আর তাই আইনশৃঙ্খলা রক্ষার জন্য কেন্দ্রীয়বাহিনী ও রাজ্য পুলিশ মিলিয়ে মোট ১ লাখ ২২ হাজার নিরপত্তারক্ষী মোতায়েন আছে ৪৫টি আসনে। তারই মধ্যে বিক্ষিপ্ত হিংসার ঘটনা সামনে আসছে। তবে কেন্দ্রীয়বাহিনীর তৎপরতাও চোখে পড়ার মতন। প্রথম ২ ঘণ্টায় ভোটের হার ২০ শতাংশে কাছাকাছি।

তবে এখন পর্যন্ত কালিম্পং, দার্জিলিং থেকে হিংসার ঘটনা সামনে আসেনি। হাইভোল্টেজ জেলা হিসেবে এই দুই জেলায় বাড়তি নজর রয়েছে নির্বাচন কমিশনের। অপরদিকে রাজ্যে করোনাগ্রাফ ঊর্ধ্বমুখী। তাই বাকি তিনদফা ভোটের প্রচার ৭২ ঘণ্টা আগে বন্ধ করে দিতে হবে এবং বাকি দফায় সন্ধ্যা ৭টা থেকে সকাল ১০টা পর্যন্ত প্রচার বন্ধ রাখতে হবে বলে নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

বাংলাদেশ সময়: ১২৫৩ ঘণ্টা, এপ্রিল ১৭, ২০২১
ভিএস/এইচএডি/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa