ঢাকা, সোমবার, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৫ আগস্ট ২০২২, ১৬ মহররম ১৪৪৪

দিল্লি, কলকাতা, আগরতলা

বিদ্যুৎ বিল প্রত্যাহারের দাবিতে আগরতলায় গণঅবস্থান

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪৪৭ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১৭, ২০২০
বিদ্যুৎ বিল প্রত্যাহারের দাবিতে আগরতলায় গণঅবস্থান গণঅবস্থান কর্মসূচি

আগরতলা (ত্রিপুরা): বিদ্যুৎ বিল-২০২০ অভিলম্বে বাতিল বলে ঘোষণা দেওয়া, বিদ্যুৎ ক্ষেত্রকে বেসরকারিকরণ বন্ধ করা, বিদ্যুৎ নিগম গ্রাহকদের ওপর অতিরিক্ত বিল চাপিয়ে দিচ্ছে অভিলম্বে তা বন্ধ করতে হবে, বিদ্যুৎ নিগমে স্থায়ীভাবে কর্মচারী নিয়োগ করা, বিদ্যুতের মূল্য বৃদ্ধি হ্রাস করা ইত্যাদি দাবিকে সামনে রেখে আগরতলায় গণঅবস্থান কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৭ ডিসেম্বর) রাজধানীর ভুতুরিয়া এলাকার ত্রিপুরা স্টেট ইলেকট্রিসিটি করপোরেশনের প্রধান কার্যালয়ের সামনে সি আই টি এইউ'র ত্রিপুরা রাজ্য কমিটি এ গণঅবস্থান কর্মসূচি পালন করে।

 

এ সময় উপস্থিত ছিলেন সি পি আই (এম) দলের পশ্চিম জেলা কমিটির সম্পাদক তথা ত্রিপুরা বিধান সভার সাবেক ডেপুটি স্পিকার ও মন্ত্রী পবিত্র কর।  

তিনি বলেন, বিদ্যুৎ হচ্ছে বর্তমান সময়ে অত্যাবশ্যকীয় সামগ্রী। বিদ্যুৎ ছাড়া জনজীবনের এক মুহূর্ত অচল, কল-কারখানা-শিল্প অচল, ঠিক তেমনি কৃষি কাজেও ব্যাঘাত ঘটছে। জমিতে সেচ দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। সবকিছু জেনেও ত্রিপুরা সরকার চুপ করে বসে আছে। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী, উপ-মুখ্যমন্ত্রী ও বিদ্যুৎ মন্ত্রীসহ অন্য মন্ত্রীদের বিল দিতে হয় না তাই তাদের হেলদোল নেই। কিন্তু সাধারণ মানুষ যারা বিদ্যুৎ বিল দিচ্ছেন তারা বুঝতে পারছেন কী পরিমাণ বেশি বিল দিতে হচ্ছে। তিনি শুধু বিদ্যুৎ ব্যবস্থা নিয়ে কথা বলেননি। পাশাপাশি তিনি কৃষি বিলসহ অন্য বিষয়েও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, ভারত সরকার, ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রীসহ সরকারের তীব্র সমালোচনা করেন।

একদিনের এ গণঅবস্থানে পবিত্র কর ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন- ত্রিপুরা রাজ্যের বিদ্যুৎ দপ্তরের সাবেক মন্ত্রী মানিক দে, সিপিআইএম দলের ত্রিপুরা রাজ্য কমিটির সদস্য অমল চক্রবর্তী, নবারুণ দেব প্রমুখ।

বাংলাদেশ সময়: ১৪৪৫ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১৭, ২০২০
এসসিএন/আরবি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa