ঢাকা, রবিবার, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৬ মে ২০২৪, ১৭ জিলকদ ১৪৪৫

দিল্লি, কলকাতা, আগরতলা

উপনির্বাচনে ভোটযুদ্ধে মুখোমুখি বিজেপি-তৃণমূল

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১২৫৫ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৪
উপনির্বাচনে ভোটযুদ্ধে মুখোমুখি বিজেপি-তৃণমূল

কলকাতা: পশ্চিমবঙ্গের দুই বিধানসভা চৌরঙ্গি ও বসিরহাট দক্ষিণ বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচন শনিবার। একদিকে সারদা কেলেঙ্কারি, অন্যদিকে মোদী হাওয়া, দিল্লিতে কেন্দ্র সরকারের ১০০ দিনের কাজে নিরিখে বিচার, রাজ্যে তৃণমূল কংগ্রেসের সাংগঠনিক শক্তি- সব মিলিয়ে এই দুই কেন্দ্রের উপনির্বাচন বিজেপি ও তৃণমূল কংগ্রেসের কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ।



রাজনৈতিক মহলের মত, মাত্র দুটি কেন্দ্রের নির্বাচন হলেও বিজেপি এবং তৃণমূলের কাছে নিজেদের শক্তি প্রমাণ করার লড়াই এ নির্বাচন।

দেখার বিষয় সারদা কাণ্ড বাস্তবে ভোট বাক্সে কতটা প্রভাব ফেলে। আবার এটাও দেখার বিষয় যে বিপুল মোদী হাওয়ায় লোকসভা নির্বাচনে নিজেদের ভোট বাড়িয়েছিল বিজেপি। সেই ভোটকে তারা আরও বাড়াতে পারে কি-না।

এর সঙ্গে বামদের ভোটের বিষয়টিও লক্ষ্য করার মতো। ২০১১ পরবর্তী সমস্ত নির্বাচনে বামফ্রন্টের ভোটের হার ক্রমান্বয়ে কমেছে। অভিযোগ ছিল বাম নেতারা রাস্তায় নেমে আন্দোলন করছেন না। ফলে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে বাম দলগুলি। কিন্তু সারদা কেলেঙ্কারি ও রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা নিয়ে পথে নেমেছে বাম তারা। সেই পথে নামার কোনো সুফল বাম দলগুলি পায় কিনা সেটাও দেখার।

চৌরঙ্গী কেন্দ্রে তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী হিসেবে লড়াইয়ে নামিয়েছে অভিনেত্রী তথা তৃণমূল দলের লোকসভার মুখ্য সচেতক সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্ত্রী নয়না বন্দ্যোপাধ্যায়কে। অন্যদিকে বিজেপি প্রার্থী করেছে তাদের তরুণ নেতা রীতেশ তেওয়ারিকে। লড়াইয়ে আছেন বাম এবং কংগ্রেস প্রার্থীরাও।

তবে মূল লড়াই হবে বিজেপি ও তৃণমূলের মধ্যে। অন্যদিকে বসিরহাট কেন্দ্রে তৃণমূল প্রার্থী ভারতের জাতীয় দলের ফুটবলার দিপেন্দু বিশ্বাস। এই কেন্দ্রে বিজেপি তাদের প্রার্থী করেছে তরুণ বিজেপি নেতা শমীক ভট্টাচার্যকে।

লোকসভা ভোটের নিরিখে বসিরহাট কেন্দ্রে বিজেপি এগিয়ে। তবে প্রচারের শেষ বেলায় তৃণমূলের দীপেন্দু বিশ্বাস পুরোটাই কাজে লাগিয়েছেন। তিনি অভিনেত্রী সংসদ সদস্য শতাব্দী রায়, অভিনেতা ও বিধায়ক চিরঞ্জিৎ, অভিনেত্রী মুনমুন সেনেদের সঙ্গে আলাদা আলাদা রোড শো করেন। এছাড়া টলিউডের এক ঝাঁক শিল্পী বসিরহাটে বিভিন্ন জায়গায় দীপেন্দুর সমর্থনে ছোট ছোট সভা করেছেন। প্রাচারে হাজির ছিলেন ‘সুপারস্টার’ দেবও।

তবে বিজেপিও পিছিয়ে ছিলো না। বসিরহাটকে পাখির চোখ করা বিজেপির হয়ে প্রচারে নামেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি রাহুল সিনহা, জাদুকর পি সি সরকার, অভিনেতা নিমু ভৌমিক প্রমুখ।

কলকাতার চৌরঙ্গীতেও দুই দলকেই সমানভাবে প্রচারে নামতে দেখা যায়। দুই দলের মিছিল কেন্দ্র করে গণ্ডগোলের খবরও পাওয়া গেছে। এই মুহূর্তে দুই কেন্দ্রে নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে প্রশাসনের ব্যস্ততাও তুঙ্গে। ইতোমধ্যেই কেন্দ্রীয় বাহিনী এসে গেছে বলে জানা গেছে।

বাংলাদেশ সময়: ১২৪২ ঘণ্টা, সেপ্টম্বর ১২, ২০১৪

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।