ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৮ মে ২০২৪, ১৯ জিলকদ ১৪৪৫

দিল্লি, কলকাতা, আগরতলা

সারদা কাণ্ডের প্রামাণ জোগাড়ে তৎপর সিবিআই

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৩২২ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ৯, ২০১৪
সারদা কাণ্ডের প্রামাণ জোগাড়ে তৎপর সিবিআই ছবি: সংগৃহীত

কলকাতা: পশ্চিমবঙ্গের সর্ববৃহৎ আর্থিক কেলেঙ্কারি  সারদা কাণ্ডে সোমবার সিবিআই–এর 'ম্যারাথন' জেরার পরও তথ্য মিললো সামান্যই।

সারদা কাণ্ডে জড়িত অভিযোগে সোমবার টানা ৭-৮ ঘণ্টা জেরার চললেও খুব বড় কোনো তথ্য পাওয়ার বিষয়টি জানা যায়নি।



এদিকে ভারতীয় আইনে ৯০ দিনের মধ্যে অভিযোগপত্র আদালতে না দিলে গ্রেফতার হওয়াদের জামিন আবেদন মঞ্জুর হওয়‍ার সম্ভাবনা থাকে।

তাই নির্দিষ্ট সময় শেষের পথে চলে এলেও দু’জনকে গ্রেফতার এবং তল্লাশি ও জেরা করা ছাড়া আর বিশেষ কিছু প্রমাণ সামনে আনতে পারেনি সিবিআই।

আর এ কারণেই সোমবার দফায় দফায় জেরা চলে আসিফ খান, বাদল ভট্টাচার্য ও প্রশান্ত প্রামাণিকের।

এর মধ্যে আসিফ খান সাবেক তৃণমূল কংগ্রেস  নেতা। তিনি তৃণমূল কংগ্রেসের এক সর্বভারতীয় নেতার খুবই ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত।

প্রশান্ত প্রামাণিক পশ্চিমবঙ্গের পরিবহন মন্ত্রী মদন মিত্রের কাছের লোক বলে পরিচিত। বাদল ভট্টাচার্য সাবেক তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদ তথা বর্তমানে জাতীয় কংগ্রেসে যোগ দেওয়া নেতা সোমেন মিত্রের ঘনিষ্ঠ।

এছাড়া সোমবারের জেরায় হাজির ছিলেন সারদা গোষ্ঠীর সংবাদ মাধ্যমের সিইও এবং তৃণমূল কংগ্রেসের বহিষ্কৃত সাংসদ কুণাল ঘোষ।

জেরা শেষে বের হয়ে সাবেক তৃণমূল নেতা আসিফ খান জানান, তিনি সিবিআই–কে সাহায্য করার চেষ্টা করেছেন।

বাদল ভট্টাচার্য জানান, সিবিআই-এর সব প্রশ্নের উত্তর তিনি দিয়েছেন।

তবে প্রশান্ত প্রামাণিক সাংবাদিকদের কিছু বলতে রাজি হননি।

অন্যদিকে কুণাল ঘোষের সিবিআই দপ্তরে আসা যাওয়ার সময়ে অতিরিক্ত পুলিশি তৎপরতায় অখুশি সিবিআই।

গত কয়েকদিন সিবিআই দপ্তরে প্রবেশের সময় সাংবাদিকদের উদ্দেশে বিস্ফোরক কিছু মন্তব্য করেন এই বহিষ্কৃত রাজ্যসভার তৃণমূল সাংসদ।

তিনি বলেছিলেন, সারদা গোষ্ঠী পরিচালিত সংবাদ মাধ্যমের প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষ উপকার সব থেকে বেশি পেয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এরপর থেকেই বল প্রয়োগ করে কুণাল ঘোষকে গণমাধ্যমের প্রতিনিধিদের নাগাল থেকে দূরে সরিয়ে রাখার চেষ্টা করা হচ্ছে।

এই বলপ্রয়োগের ফলেই সিবিআই-এর দপ্তরে প্রবেশের মুখে পড়ে আঘাত পান কুণাল ঘোষ।

সোমবার রাতে কুণাল ঘোষকে সিবিআই দপ্তর থেকে বের করার সময় বিশাল পুলিশ বাহিনী হাজির হয়। এসময় কুণাল ঘোষের সঙ্গে কথা বলার সুযোগ পাননি সংবাদমাধমের লোকজন।

সূত্র জানায়, দুই-একদিনের মধ্যে আবার তলব করা হতে পারে ‘কলম’ পত্রিকার সাবেক সম্পাদক এবং তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্যসভার সাংসদ হাসান ইমরানকে।

এদিকে চলতি মাসের শেষ সপ্তাহে অভিযোগ দাখিল করা হতে পারে বলে জানিয়েছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি) সূত্র।

বাংলাদেশ সময়: ১৩১৭ ঘণ্টা, সেপ্টম্বর ০৯, ২০১৪

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।