ঢাকা, শুক্রবার, ১৯ মাঘ ১৪২৯, ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১১ রজব ১৪৪৪

চট্টগ্রাম প্রতিদিন

জুনিয়র চেম্বারের ১০ বছর পূর্তিতে বর্ণিল আয়োজন

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২৩২৯ ঘণ্টা, নভেম্বর ২৬, ২০২২
জুনিয়র চেম্বারের ১০ বছর পূর্তিতে বর্ণিল আয়োজন জুনিয়র চেম্বারের ১০ বছর পূর্তিতে বর্ণিল আয়োজন

চট্টগ্রাম: জুনিয়র চেম্বার ইন্টারন্যাশনালের (জেসিআই) ১০ বছর পূর্তি উদযাপিত হলো বর্ণিল আয়োজনে। এ উপলক্ষে শনিবার (২৬ নভেম্বর) রাতে ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টারে বসেছিল ব্যবসায়ী নেতা, পেশাজীবী নেতা, নবীন-প্রবীণ বিনিয়োগকারী, উদ্যোক্তাদের মিলনমেলা।

শতবর্ষী বাণিজ্য সংগঠন চট্টগ্রাম চেম্বারের সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, ১০ বছরে নিয়াজ মোর্শেদ এলিটের নেতৃত্বে জেসিআই এগিয়ে গেছে অনেক দূর। ইতোমধ্যে জেসিআইর ১০ জন সভাপতি পেয়েছি আমরা।

চট্টগ্রামে আছে প্রাকৃতিক সমুদ্রবন্দর। চট্টগ্রাম হচ্ছে দেশের প্রবেশদ্বার। চট্টগ্রামে জুনিয়র চেম্বারের অগ্রযাত্রা মাইলফলক হয়ে থাকবে। আশাকরি আগামীতে জুনিয়র চেম্বার দেশের জন্য, সোসাইটির জন্য গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে।

শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন- চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার কৃষ্ণ পদ রায়, নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সাবেক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন, শেঠ গ্রুপের এমডি সোলায়মান আলম শেঠ প্রমুখ।

আরও বক্তব্য দেন –জেসিআইর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি নিয়াজ মোরশেদ এলিট, সাবেক সভাপতি রাইসুল উদ্দিন সৈকত, জসিম আহমেদ, মো. গিয়াস উদ্দিন, মাশফিক আহমেদ রুশাদ, অসীম কুমার দাশ, শহীদুল মোস্তফা চৌধুরী, টিপু সুলতান সিকদার প্রমুখ।

জেসিআইর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি নিয়াজ মোরশেদ এলিট বলেন, ১০ বছর পূর্তি। সুন্দর জার্নি করেছি আমরা। জুনিয়র চেম্বার এমন সংগঠন যেখানে ৫ হাজার সদস্য আছে। প্রতিটি জেলায় জুনিয়র চেম্বার চাই। এটা আমার স্বপ্ন। তরুণদের জীবনমান উন্নয়নে কাজ করে জেসিআই। তরুণদের জন্য ১০ কোটি টাকা খরচ করেছি আমরা।

তিনি বলেন, অনেক কষ্টে জেসিআই শুরু করেছিলাম। তরুণদের প্লাটফর্ম দরকার ছিল। হতাশার কথা শুনতে চাই না। তরুণরা একসঙ্গে হলে পথ দেখাতে পারব। সবাই মিলে সারাদেশের তরুণদের জীবনমান উন্নয়নে কাজ করব। সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তুলব।

রাইসুল উদ্দিন সৈকত বলেন, ২০১৩ সালে জেসিআইর যাত্রা শুরু হয়েছিল। ১০ বছর পাড়ি দিয়েছি। আশাকরি প্রতি বছর উদযাপন করতে পারব।

জসিম আহমেদ বলেন, আমি জেসিআইর প্রতিষ্ঠাতা সেক্রেটারি। আমরা ইয়াংদের জন্য কিছু করতে চেয়েছি। ইয়াংদের জন্য বাজেটে বরাদ্দ চেয়েছিলাম জেসিআই চট্টগ্রাম। সবাই একসঙ্গে কাজ করলে চট্টগ্রামকে বিশ্বের দরবারে তুলে ধরতে পারব। আমাদের ১০ জন সভাপতি এক বছর করে দায়িত্ব পালন করেছে। জেসিআইর জার্নি দীর্ঘতর হবে আশা করি, জেসিআইর পতাকা উড্ডীন রাখবে বর্তমান নেতৃত্ব।

মো গিয়াস উদ্দিন বলেন, আজ কর্ণফুলী নদীর তলদেশে টানেলের ঐতিহাসিক মাইলফলক দেখেছি আমরা। আমরা প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই।

জেসিআই সভাপতি শান শাহেদ বাংলানিউজকে বলেন, চট্টগ্রামে বিনিয়োগের বড় ক্ষেত্র আছে। কিছুদিন আগে আমরা ইয়ুথ সামিট করেছি। সেখানে উঠে এসেছে চট্টগ্রামে অপার সম্ভাবনার নানা দিক। প্রপার গাইডলাইন দরকার নতুন বিনিয়োগকারীদের জন্য। তরুণ জনগোষ্ঠীকে সুযোগ দিতে হবে। লিডারশিপ হচ্ছে চলমান প্রক্রিয়া।

জুনিয়র চেম্বার তরুণদের জানার, শেখার প্লাটফর্ম। তাদের নেতৃত্ব দেওয়ার সাহস ও প্রেরণা যোগাচ্ছে। ১০ বছর ধরে কাজ করছে জেসিআই।

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা তুলে ধরে তিনি বলেন, তরুণ উদ্যোক্তা-বিনিয়োগকারীদের জন্য ভ্যাট কমানো, সিটি করপোরেশনের ট্রেড লাইসেন্স ফি কমানো, সিঙ্গেল ডিজিট লোন বাস্তবায়নে কাজ করছি আমরা।

অনুষ্ঠান শুরু করা হয় জাতীয় সংগীত দিয়ে। এরপর ১০ বছর পূর্তির লোগো উন্মোচন করা হয়। প্রদর্শিত হয় জেসিআইর দশ বছর ও ইয়ুথ সামিটের ওপর তথ্যচিত্র। ছিল কালারফুল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। সবশেষে ছিল চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী মেজবান।

বাংলাদেশ সময়: ২৩২৯ ঘণ্টা, নভেম্বর ২৬, ২০২২
এআর/টিসি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa