ঢাকা, বুধবার, ১৩ আশ্বিন ১৪২৯, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

চট্টগ্রাম প্রতিদিন

জঙ্গল সলিমপুরে আর কোনো অবৈধ স্থাপনা নয়: জেলা প্রশাসক 

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮০২ ঘণ্টা, আগস্ট ২, ২০২২
জঙ্গল সলিমপুরে আর কোনো অবৈধ স্থাপনা নয়: জেলা প্রশাসক 

চট্টগ্রাম: জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মমিনুর রহমান বলেছেন, সীতাকুণ্ড উপজেলার জঙ্গল সলিমপুরে ৩ হাজার ১০০ একর সরকারি খাস জমি রয়েছে। এ খাসজমির পাহাড় এবং টিলা কেটে একদল ভূমিদস্যু ও একদল সন্ত্রাসী অবৈধ বসতি স্থাপন করছে।

শুধুমাত্র ভূমি দখলের উদ্দেশ্যে। এখানে আর কোনো অবৈধ স্থাপনা করতে দেওয়া হবে না।  

মঙ্গলবার (২ আগস্ট) দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত জঙ্গল সলিমপুরে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের নেতৃত্বে পরিচালিত অভিযান শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।  

তিনি আরও বলেন, এ ভূমিদস্যুরা নিজস্ব রীতিতে জমিগুলোর বিনিময় মূল্য নির্ধারণ করে বিক্রি করছে। বিভিন্ন এলাকা থেকে সন্ত্রাসীরা এখানে এসে বসতি স্থাপন করছে। ভূমিদস্যু ইয়াছিন ও মশিউররা তাদের আশ্রায় প্রশ্রয় দিচ্ছে।  

মমিনুর রহমান বলেন, সরকার একটি মহাপরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। যেটুকু পাহাড় কাটা হয়েছে সেটুকুতেই  মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হবে। বাকি পাহাড়ের পরিবেশ প্রতিবেশ অক্ষুন্ন রাখা হবে। আগামী এক মাসের মধ্যে বনজ ফলজ দুই লাখ গাছ লাগানো হবে এখানে। এটি উদ্বোধন করবেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।  

এখানে আন্তর্জাতিকমানের হাসপাতাল, তথ্য কেন্দ্র, কারাগার ও সাফারি পার্কসহ সরকারের নানান স্থাপনা বাস্তবায়ন করা হবে। তাছাড়া এখানে যারা ভূমি দখল করে ব্যবসা করছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিবো। যারা পাহাড় কেটে অবৈধভাবে বসবাস করছে তাদের আগামী এক মাসের মধ্যে সরিয়ে নেওয়া হবে। প্রকৃতপক্ষ যারা ভূমিহীন ও গরীব তাদেরকে আমরা খুব দ্রুত সরিয়ে নিয়ে পুর্নবাসন করবো। পরিবেশ এখানে চারটি মামলা করেছেন। এখানে মসজিদ মাদরাসা মন্দির প্যাগোড়া নির্মাণ করা হয়েছে। সবগুলো সরকারি জমি। দখলের উদ্দেশ্যে এসব ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান নির্মাণ করা হয়েছে। সেগুলো আমাদের আওতায় নিয়ে আসা হবে।  

বাংলাদেশ সময়: ১৭৫৯ ঘণ্টা, আগস্ট ০২, ২০২২
বিই/টিসি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa