ঢাকা, বুধবার, ২ ভাদ্র ১৪২৯, ১৭ আগস্ট ২০২২, ১৮ মহররম ১৪৪৪

চট্টগ্রাম প্রতিদিন

এক যুবকের সাজা খাটছে অন্য যুবক!

মিনহাজুল ইসলাম, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮০১ ঘণ্টা, জুলাই ৩, ২০২২
এক যুবকের সাজা খাটছে অন্য যুবক! প্রকৃত আসামি ও সাজা খাটা যুবক

চট্টগ্রাম: নগরের পাহাড়তলী থানার মাদক মামলায় আদালত ৫ বছরের কারাদণ্ড, ১ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন জাসেদুল হককে। তিনি কক্সবাজার জেলার রামু থানার রাজাকুল সিকদার পাড়ার ওবায়দুল হকের ছেলে।

গত ২১ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় রাজারকুল বাজার সিকদার পাড়া স্টেশনের ইত্যাদি স্টোর থেকে রামু থানা পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।  

নামের মিল থাকার কারণে জাসেদুল হককে গ্রেফতার করা হয়। জাসেদুল হক প্রকৃত আসামির বদলে কক্সবাজার কারাগারে রয়েছেন ১৩০ দিন। নামের মিল থাকার কারণে প্রকৃত আসামির বদলে কোনো কিছুর মিল থাকায় একজনের স্থলে আরেকজন জেল খাটার বিষয়টি গত ২৮ জুন কক্সবাজার কারাগারের জেল সুপার মো. নেছার আলমকে জাসেদুল হক জানান। গত ৩০ জুন কক্সবাজার কারাগারে জেল সুপার মো. নেছার আলম আদালতের নজরে আনেন।
 
রোববার (৩ জুলাই) সকালে অতিরিক্ত চতুর্থ মহানগর দায়রা জজ শরীফুল আলম ভূঁঞার আদালতে পিডব্লিউ মূলে জাসেদুল হককে আদালতে হাজির করা হয়। আদালতের পেশকার ওমর ফুয়াদ বাংলানিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আদালত সূত্রে জানা যায়, পাহাড়তলী থানার মামলা নম্বর ০৪(০৩)১১ ও জি আর-১৮২/১১। মামলার দায়রা নম্বর ১৭৩৭/১১। নগরের পাহাড়তলী থানার পশ্চিম নাসিরাবাদ হালিশহর রোডের সামনে ১৫০ পিস ইয়াবাসহ জাসেদুল হককে গ্রেফতার করা হয়। গত ২২ সেপ্টেম্বর অতিরিক্ত চতুর্থ মহানগর দায়রা জজ শরীফুল আলম ভূঁঞার আদালতে মাদকের মামলায় ৫ বছরের কারাদণ্ড, ১ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন জাসেদুল হককে। সাজার পরোয়ানামূলে গত ২২ ফেব্রুয়ারি কক্সবাজার কারাগারে যান। গত ২৮ জুন কক্সাবাজারের কারাগারের জেল সুপার মো. নেছার আলম তাকে কোনো মামলার আসামি নন বলে জানান। গ্রেফতারকৃত প্রকৃত আসামি জাসেদুল হকের নাম ও ঠিকানা ব্যবহার করেছেন। তখন বর্তমান কারাগারে থাকা জাসেদুল হক মালেশিয়াতে ছিলেন।

কক্সবাজার কারাগার সূত্রে জানা যায়, কারাগারের সংরক্ষিত হাজতি রেজিস্টার পর্যালোচনা করে দেখা যায় সূত্রস্থ মামলা সংক্রান্ত হাজতি নম্বর ২১২৪/এ। গত ২২ ফেব্রুয়ারি কক্সবাজার রামুর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের মাধ্যমে অন্তর্বর্তীকালীন হাজতের পরোয়ানামূলে কারাগারে আসেন। তিনি কারাগারে প্রায় ৪ মাস ১০ মাস রয়েছে। প্রকৃত আসামি ২০১১ সালের ২ মার্চ চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে যান। তিনি ২ মাস ১ একদিন কারাভোগের পর চট্টগ্রামের মহানগর দায়রা জজ আদালত থেকে ২০১১ সালের ৩ মে জামিন নেন। ২০১২ সালের ১৭ জানুয়ারি থেকে পলাতক ছিলেন।

জাসেদুল হকের ভাই সাজেদুল হক বাংলানিউজকে বলেন, আমার ভাই জাসেদুল হক দীর্ঘদিন প্রবাসে ছিলেন। গত ২১ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় রামু থানা পুলিশ জাসেদুল হককে দোকান থেকে গ্রেফতার করে। তখন বার বার বলেছি জাসেদুল হকের কোনো মামলা নেই। পরে জানতে পারি চট্টগ্রামের আদালতে ৫ বছরের কারাদণ্ড। যেই মামলায় কারাদণ্ড হয়েছে তখন ভাই মালয়েশিয়াতে ছিলেন।

তিনি আরও বলেন, আইনজীবীর পরামর্শে আদালত থেকে নথিপত্র সংগ্রহ করি। পরে হাইকোর্ট থেকে গত ২০ জুন জামিনপ্রাপ্ত হন।  

আদালতের পেশকার ওমর ফুয়াদ বাংলানিউজকে বলেন, আদালত জেলখানার ছবি সম্বলিত রেজিস্টার খাতা সবকিছু পর্যালোচনা করে দেখেছেন বর্তমানে কারাগারে থাকা জামসেদুল হক প্রকৃত আসামি নন। জাসেদুল হক প্রকৃত আসামি হিসেবে হাইকোর্টে আপিল করেন। আপিলে ৬ মাসের জামিন আদেশ প্রাপ্ত হন। পরবর্তী জাসেদুল হক কক্সবাজার কারাগারে মাধ্যমে প্রকৃত আসামি নয় মর্মে আদালতকে জানান। আদালত তার আবেদন এবং সংশ্লিষ্ট কাগজপত্র পর্যালোচনা করে মামলাটি হাইকোর্টে আপিল দায়ের থাকা আসামির মুক্তির বিষয়ে উচ্চ আদালতে নির্দেশনার কাগজপত্র হাইকোর্টে প্রেরণ করা হয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৩০ ঘণ্টা, জুলাই ০৩, ২০২২
এমআই/টিসি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa