ঢাকা, রবিবার, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ২২ রবিউস সানি ১৪৪৩

চট্টগ্রাম প্রতিদিন

কর্ণফুলী টানেলের দ্বিতীয় টিউবে স্ল্যাব জানুয়ারিতে

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১১৩০ ঘণ্টা, অক্টোবর ৮, ২০২১
কর্ণফুলী টানেলের দ্বিতীয় টিউবে স্ল্যাব জানুয়ারিতে ছবি: সংগৃহীত

চট্টগ্রাম: কর্ণফুলী নদীর তলদেশে নির্মাণাধীন কর্ণফুলী টানেল প্রকল্পের দ্বিতীয় টিউবের খননকাজ শেষ হয়েছে। আনোয়ারা প্রান্ত থেকে শুরু হওয়া এই টিউব এসে যোগ হয়েছে নগরের পতেঙ্গা প্রান্তে।

 

বৃহস্পতিবার (৭ অক্টোবর) দুপুরে দ্বিতীয় টিউবের খননকাজ শেষ হয়। টানেল বোরিং মেশিন (টিবিএম) ব্যবহার করে এটি খনন করতে সময় লেগেছে ১০ মাস। এর আগে প্রথম টিউবের খননকাজ করতে সময় লেগেছিল ১৭ মাস।

প্রকল্প পরিচালক হারুনুর রশিদ চৌধুরী বলেন, দ্বিতীয় টিউবের খননকাজ শেষ হলেও স্ল্যাবের কাজ বাকি রয়েছে। আশা করছি, জানুয়ারি মাসে কাজ শুরু করা যাবে। ২০২২ সালের ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত এই প্রকল্পের মেয়াদ। এই সময়ের মধ্যেই কাজ শেষ করার চেষ্টা রয়েছে।

জানা যায়, মূল টানেলের দৈর্ঘ্য ৩ দশমিক ৩২ কিলোমিটার। এর মধ্যে টানেলের প্রতিটি সুড়ঙ্গের দৈর্ঘ্য ২ দশমিক ৪৫ কিলোমিটার। দুই সুড়ঙ্গে দুটি করে মোট চারটি লেন থাকবে। মূল টানেলের সঙ্গে পশ্চিম ও পূর্ব প্রান্তে ৫ দশমিক ৩৫ কিলোমিটার সংযোগ সড়ক থাকবে।

২০২০ সালের ১২ ডিসেম্বর আনোয়ারা প্রান্ত থেকে টিউবের খননকাজ শুরু হয়। ভার্চুয়ালি খননকাজ উদ্বোধন করেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। এর আগে নগরের পতেঙ্গা এলাকা থেকে প্রথম টিউবের খননকাজ শেষ হয় গত বছরের ২ আগস্ট। ২০১৯ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্ণফুলী নদীর তলদেশে দেশের প্রথম টানেলের নির্মাণকাজ উদ্বোধন করেন। ১৮ থেকে ৩১ মিটার গভীরে প্রতিটি টানেলের প্রশস্ততা ৩৫ ফুট। এতে ব্যয় হচ্ছে ১০ হাজার ৩৭৪ কোটি টাকা।

২০১৪ সালে প্রকল্প বাস্তবায়নে বাংলাদেশ ও চীনের সরকারি পর্যায়ে টানেল নির্মাণে সমঝোতা হয়। চুক্তি স্বাক্ষর হয় ২০১৫ সালের ২৪ নভেম্বর। টানেল নির্মাণে আছে চায়না কমিউনিকেশন অ্যান্ড কনস্ট্রাকশন কোম্পানি (সিসিসিসি) লিমিটেড।

বাংলাদেশ সময়: ১১২২ ঘণ্টা, অক্টোবর ০৮, ২০২১ 
এসি/টিসি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa