ঢাকা, বুধবার, ১২ কার্তিক ১৪২৭, ২৮ অক্টোবর ২০২০, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

চট্টগ্রাম প্রতিদিন

দক্ষতার অভাবে দেশে সেবা আমদানি হয়ে থাকে: নওফেল

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১৫৭ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০
দক্ষতার অভাবে দেশে সেবা আমদানি হয়ে থাকে: নওফেল

চট্টগ্রাম: প্রধানমন্ত্রী সবার কাছে মানসম্পন্ন শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ পৌঁছে দিতে বদ্ধপরিকর উল্লেখ করে শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেছেন, দক্ষতার অভাবে আমাদের দেশে সেবা আমদানি হয়ে থাকে। আমাদের তরুণ প্রজন্মের সফ্ট স্কিলের অভাব এবং মানসিক অনমনীয়তা পেশাগত দক্ষতা অর্জনের ক্ষেত্রে অন্তরায়।

চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (সিসিসিআই) ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের (আইবিএ) যৌথ উদ্যোগে চট্টগ্রাম অঞ্চলের ব্যবসায় নির্বাহীদের পেশাগত দক্ষতা উন্নয়নে ম্যানেজমেন্ট ট্রেনিং প্রোগ্রাম আয়োজনের লক্ষ্যে ‘এক্সিকিউটিভ লার্নিং প্রজেক্ট ফর চট্টগ্রাম’র আওতায় ম্যানেজমেন্ট ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রামের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উপমন্ত্রী এসব কথা বলেন।   

ভিন্নমত সহনশীলতা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উল্লেখ করে প্রশিক্ষণ প্রদানের ক্ষেত্রে সর্বজনীনতাকে প্রাধান্য দেওয়ার অনুরোধ এবং প্রাতিষ্ঠানিক প্রশিক্ষণের ক্ষেত্রে বৈষয়িক গুরুত্বের চেয়ে শিল্পভিত্তিক ও কারিগরি দক্ষতার দিকে গুরুত্ব দেওয়ার আহ্বান জানান শিক্ষা উপমন্ত্রী।  

শনিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) বিকেলে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত সভায় তিনি বলেন, চিটাগাং চেম্বার ও আইবিএ অত্যন্ত চমৎকার উদ্যোগ নিয়েছে যা একটি দৃষ্টান্তমূলক মাইলফলক। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং বাণিজ্য সংগঠনের মধ্যে পারস্পরিক সহায়তার একটি উৎকৃষ্ট উদাহরণ যার মাধ্যমে জাতীয় লক্ষ্য অর্জন করা সম্ভব।  

চিটাগাং চেম্বারকে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইবিএ’র মতো দেশের শীর্ষ প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি সব স্তরের শিল্পের জন্য অন্যান্য প্রতিষ্ঠানকেও সঙ্গে নিয়ে নিড বেইজড প্রশিক্ষণ আয়োজনের আহ্বান জানান।  

বিশেষ অতিথি সংসদ সদস্য এমএ লতিফ বলেন, মিড লেভেল ও টপ লেভেল ম্যানেজমেন্ট ট্রেনিংয়ের লক্ষ্যে চিটাগাং চেম্বার ও আইবিএর এ কর্মসূচির মাধ্যমে চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান অনেক বেশি উপকৃত হবে। বিশ্ব মহামারীর কারণে পুরো পৃথিবীর মানুষ থমকে গেলেও প্রধানমন্ত্রী অর্থনীতিতে গতি সঞ্চারের লক্ষ্যে ১ লাখ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন।  

‘সারা দেশে ১০০টি এসইজেডের পাশাপাশি মাতারবাড়ী এলাকায় সমুদ্রবন্দরসহ বৃহত্তর চট্টগ্রামে প্রায় ১ ডজন মেগা প্রকল্প বাস্তবায়ন হচ্ছে। কাজেই নির্বাহীদের জন্য যথাযথ প্রশিক্ষণের আয়োজন করা চিটাগাং চেম্বারের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং সময়োপযোগী একটি উদ্যোগ। ’

চিটাগাং চেম্বার সভাপতি ও ইনিশিয়েটিভ বাংলাদেশ সেন্টার অব এক্সিলেন্সের (বিসিই) চেয়ারম্যান মাহবুবুল আলম সভাপতির বক্তব্যে এই দিনকে চট্টগ্রামের জন্য ঐতিহাসিক দিন উল্লেখ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইবিএ কর্তৃপক্ষকে আন্তরিকতার সঙ্গে এ যৌথ উদ্যোগ সফল করার জন্য ধন্যবাদ জানান।

তিনি বলেন, আইবিএ বাংলাদেশের খ্যাতনামা বিজনেস এবং ম্যানেজমেন্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। মধ্যম ও উচ্চ সারির নির্বাহীদের যথাযথ প্রশিক্ষণ দেওয়ার মাধ্যমে দক্ষতা উন্নয়ন এবং জাতীয় অর্থনীতিতে আরো বেশি উৎপাদনশীল ও কার্যকর ভূমিকা পালনে এ কর্মসূচি অনেক বেশি সহায়ক হবে। এ ধরনের উদ্যোগ আমাদের নিজস্ব মানবসম্পদ তৈরিতে সাহায্য করবে যাতে করে স্থানীয় পেশাদার টপ লেভেল নির্বাহী সৃষ্টি করা যায়।  

আইবিএর পরিচালক প্রফেসর সৈয়দ ফারহাত আনোয়ার বলেন, সরকারের ভিশন ২০২১, ২০৩০ এর এসডিজি লক্ষ্যপূরণ এবং ২০৪১ সালে উন্নত বাংলাদেশ গঠনসহ ২১০০ সালের ডেল্টা প্ল্যান বাস্তবায়নের জন্য মানবসম্পদের দক্ষতার উন্নয়ন বেশি গুরুত্বপূর্ণ ও মৌলিক উপাদান। এক্ষেত্রে জাতীয় লক্ষ্যপূরণে মানসম্পন্ন শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে সব স্তরের ব্যবস্থাপকদের দক্ষ করে গড়ে তোলা আইবিএ’র অন্যতম দায়িত্ব।

বক্তব্য দেন চেম্বারের সাবেক সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার আলী আহমেদ, কনফিডেন্স সিমেন্টের এমডি জহির উদ্দিন আহমেদ এবং প্রান্তিক গ্রুপের এমডি ইঞ্জিনিয়ার গোলাম সরওয়ার।  

অনুষ্ঠানে অংশ নেন চেম্বারের পরিচালক একেএম আক্তার হোসেন, মো. অহীদ সিরাজ চৌধুরী (স্বপন), এসএম আবু তৈয়ব, অঞ্জন শেখর দাশ, বেনাজির চৌধুরী নিশান, সৈয়দ মোহাম্মদ তানভীর ও শাহজাদা মো. ফৌজুল আলেফ খান, চেম্বারের সাবেক পরিচালক মোহাম্মদ আমিরুল হক, বিকেএমইএ’র সাবেক পরিচালক শওকত ওসমান, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও চেম্বারের পলিসি বিষয়ক সাব-কমিটির আহ্বায়ক ড. মো. সেলিম উদ্দিন, উইম্যান চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির লুৎমিলা ফরিদ প্রমুখ।

চেম্বারের এ উদ্যোগের আওতায় ব্যবস্থাপনা ডিগ্রিধারী, নির্বাহী এবং ব্যবসায়ী সমাজকে শিল্পমুখী প্রশিক্ষণ ও সনদ প্রদানের মাধ্যমে জাতীয় অর্থনীতিতে আরও বেশি উৎপাদনমুখী ও কার্যকর অবদান রাখার লক্ষ্যে প্রস্তুত করা হবে। ২০২০ সালের নভেম্বর থেকে শর্ট কোর্সের মাধ্যমে এ প্রোগ্রাম চালু এবং পর্যায়ক্রমে লং কোর্স চালু করার পরিকল্পনা রয়েছে।  

কর্মসূচিতে ভর্তি প্রক্রিয়া, কারিকুলাম, শিক্ষক, প্রশিক্ষক, সনদ প্রদান ইত্যাদি সরাসরি আইবিএ কর্তৃক পরিচালিত হবে। প্রশিক্ষণ শেষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইবিএ থেকে সনদসংগ্রহ করতে হবে।

বাংলাদেশ সময়: ২১৫৫ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০
এআর/এমআর/টিসি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa