ঢাকা, শুক্রবার, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৪ আগস্ট ২০২০, ২৩ জিলহজ ১৪৪১

চট্টগ্রাম প্রতিদিন

জনগুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নে অগ্রাধিকার: নাছির

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭২৬ ঘণ্টা, জুলাই ৪, ২০২০
জনগুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নে অগ্রাধিকার: নাছির পিসি রোডের উন্নয়নকাজ পরিদর্শন করেন মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন

চট্টগ্রাম: নগরের সড়ক যোগাযোগসহ বিভিন্ন জনগুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প বাস্তবায়নের গতি ক্ষেত্র বিশেষে শ্লথ হলেও গুরুত্ব বিবেচনায় অগ্রাধিকার ভিত্তিতে এগুলোর কাজ সম্পন্ন করা হবে বলে জানিয়েছেন মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন।

দ্রুততম সময়ের মধ্যে এসব প্রকল্পে কাজের মান ও স্থায়িত্ব ক্ষমতায় কোনো রকমের ত্রুটি যাতে না থাকে সেজন্য তিনি সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলী ও ঠিকাদারদের সতর্ক করে দিয়ে বলেন, সময়ের কাজ সময়ে শেষ না হলে জনগণের দুর্ভোগ বাড়ে এবং প্রকল্পের অর্থেরও অপচয় হয়। সিটি করপোরেশনের অনেক প্রকল্পে জাইকার অর্থায়নে বাস্তবায়ন কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

তাই দাতা কর্তৃপক্ষ চায় না কাজে কোনো ধরনের খুঁত থাকুক।

এজন্য বিরূপ আবহাওয়াজনিত কারণে কাজের মান যাতে নষ্ট না হয় সেজন্য কাজ সাময়িক বন্ধ রাখা হয় এবং কারিগরি দৃষ্টিকোণ থেকে এ সময়ক্ষেপণকে অযৌক্তিক বলা যাবে না। তারপরও নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নে কোনো কোনো ঠিকাদার অযৌক্তিক অজুহাত খাড়া করে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কাজ বুঝিয়ে দিতে ব্যর্থ হয়েছে। এটা পরিষ্কারভাবে চুক্তির শর্ত লঙ্ঘন। তবুও আমরা কাজ শেষ করতে নতুন বর্ধিত সময়সীমা নির্ধারণ করে দিয়েছি। এরপরও মানসম্পন্ন ও টেকসই কাজ বুঝিয়ে দিতে ব্যর্থ হলে সংশ্লিষ্টদের শাস্তি পেতে হবে এবং নিয়ম অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তিনি নগরবাসীকে আশ্বস্ত করে বলেন, করোনাকালে বিরূপ পরিস্থিতি, সীমাবদ্ধতা ও আর্থিক সংকটের মধ্যেও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের কোনো কর্মপরিকল্পনাই থেমে থাকছে না। প্রকল্পগুলোর সিংহভাগ কাজের অগ্রগতি হলেও কিছুটা ফিনিশিং বাকি রয়েছে। এ প্রকল্পগুলো  নভেম্বর মাসের মধ্যেই শেষ করে আনুষ্ঠানিকভাবে চালু করা সম্ভব হবে।

প্রকল্প বাস্তবায়ন বর্ধিত সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করতে জনবল বাড়ানো ও দিনে-রাতে কাজ করার জন্য ঠিকাদার ও প্রকৌশলীদের নির্দেশনা দেন মেয়র।

শনিবার (৪ জুলাই) পোর্ট কানেকটিং (পিসি) রোডের তাসফিয়া থেকে সাগরিকা মাজার পর্যন্ত এবং সাগরিকা মাজার থেকে অলংকার পর্যন্ত চলমান উন্নয়নকাজ পরিদর্শনকালে এসব কথা বলেন।

তাসফিয়া থেকে সাগরিকা মাজার পর্যন্ত ১ হাজার ৫৪৩ মিটারের এ কাজের জন্য ৪০ কোটি টাকা এবং সাগরিকা মাজার থেকে অলংকার পর্যন্ত ৭৫০ মিটার সড়ক নির্মাণে ২৮ কোটি টাকা ব্যয় করছে জাইকা। ইতোমধ্যে এ প্রকল্পের কাজ প্রায় সিংহভাগ সম্পন্ন হয়েছে এবং বর্তমানে শেষ পর্যায়ে রয়েছে।

মেয়র বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ পালন উপলক্ষে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্মিত ম্যুরাল প্রতিস্থাপনের জন্য বড়পোল মোড়ের নির্দিষ্ট স্থান পরিদর্শন করেন।

তিনি এ প্রতিস্থাপন কাজ ২৫ জুলাইয়ের মধ্যে শেষ করার নির্দেশনা দেন এবং এরপর দুই-এক দিনের মধ্যেই  বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টেলি কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্বোধন করতে পারেন বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।  

সাগরিকা স্টোর পরিদর্শন: সাগরিকা স্টোর ও অ্যাসফল্ট প্ল্যান্ট পরিদর্শন করেছেন মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। এ সময় মেয়র সাগরিকা স্টোরে মালামাল সংরক্ষণের পদ্ধতি প্রত্যক্ষ করেন এবং স্টোরের মালামাল সঠিক নিয়মে সংরক্ষণের প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দেন।

মেয়র সাগরিকা স্টোরে স্থাপিত পরীক্ষাগারে রাস্তার কাজে ব্যবহৃত ইট, পাথর, বালু ও সয়েল টেস্ট সম্পন্ন করে গুনগতমান যাচায়ের ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

এ সময় মেয়রের সহকারী একান্ত সচিব রায়হান ইউসুফ, চসিক তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী সুদীপ বসাক, নির্বাহী প্রকৌশলী আবু সাদাত মোহাম্মদ তৈয়ব, সহকারী প্রকৌশলী আনোয়ার জাহান, সহকারী প্রকৌশলী (যান্ত্রিক) তৌহিদুল ইসলাম, মোহাম্মদ বেলাল আহমেদ, আনিসুর রহমান চৌধুরী, এসএম মামুনুর রশীদ, জসিম  উদ্দীন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৭২২ ঘণ্টা, জুলাই ০৪, ২০২০
এআর/টিসি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa