bangla news

ট্রেনে পাথর নিক্ষেপ বন্ধে প্রচারণা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-১২-১৫ ১২:২৩:২৭ পিএম
ট্রেনে পাথর নিক্ষেপ বন্ধে প্রচারণা

ট্রেনে পাথর নিক্ষেপ বন্ধে প্রচারণা

চট্টগ্রাম: ট্রেনে পাথর নিক্ষেপ বন্ধে আবারও প্রচারণায় নেমেছে রেলওয়ে প্রশাসন। প্রত্যেক স্টেশন ও রেললাইনের পাশে থাকা দোকান, বসতিতে গিয়ে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণের পাশাপাশি ব্রিফিং করে সচেতন করছে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের কর্মকর্তা ও নিরাপত্তা বাহিনীর (আরএনবি) সমন্বয়ে গঠিত একাধিক টিম।

রেলওয়ে সূত্র বলছে, প্রায় প্রতিদিন বিভিন্ন ট্রেনে পাথর নিক্ষেপের ঘটনা ঘটছে। এতে ট্রেনের জানালার গ্লাস ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার পাশাপাশি গুরুতর আহত হচ্ছেন সাধারণ যাত্রীরা। এ কারণে প্রতি সপ্তাহে অন্তত তিনদিন পাথর নিক্ষেপের বিরুদ্ধে ক্যাম্পেইন করা হচ্ছে।

শনিবার (১৪ ডিসেম্বর) বিকেলে চট্টগ্রামের বিভিন্ন রেলস্টেশন ও তার আশপাশের এলাকায় চলন্ত ট্রেনে পাথর নিক্ষেপ বন্ধে ব্যাপক প্রচারণা চালানো হয়। কোথাও কোথাও মাইকিং করা হয়। রোববারও পাথর নিক্ষেপ বন্ধে প্রচারণা চালানো হচ্ছে।

রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের বিভাগীয় ব্যবস্থাপক বোরহান উদ্দিন বাংলানিউজকে বলেন, চলন্ত ট্রেনে পাথর নিক্ষেপ করে মানুষের জানমালের ক্ষতিসাধন একটি ফৌজদারি অপরাধ। প্রাথমিকভাবে সামাজিক সচেতনতা ও প্রতিরোধ গড়ে তোলার জন্য প্রচারণা চালানো হচ্ছে। স্থানীয় প্রশাসন এবং পুলিশের সঙ্গে রেলওয়ে পুলিশের সমন্বয়ে একাধিক টিম গঠন করা হয়েছে। ওইসব টিম বিভিন্ন জায়গায় গিয়ে প্রচারণায় অংশ নিচ্ছে।

সবাই মিলে চলন্ত ট্রেনে পাথর নিক্ষেপ বন্ধে কার্যকরি ভূমিকা গ্রহণ করলে এ ব্যাধি থেকে মুক্ত হওয়া সম্ভব বলে জানান তিনি।

রেলওয়ে আরএনবির পরিদর্শক আমান উল্লাহ আমান বাংলানিউজকে বলেন, রেললাইনের আশপাশের ঘনবসতিপূর্ণ জনপদ, হাটবাজার, স্কুল, মসজিদে গিয়ে পথসভা পরিচালনা এবং সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করা হচ্ছে। পাথর নিক্ষেপ বন্ধে জনমত গঠন করা হচ্ছে। আমরা এ কাজে সাড়াও পাচ্ছি। এভাবে সবাই মিলে কাজ করলে ট্রেনে পাথর নিক্ষেপ বন্ধ করা সম্ভব।

বাংলাদেশ সময়: ১২১৫ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১৫, ২০১৯
জেইউ/এসি/টিসি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   চট্টগ্রাম
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-12-15 12:23:27