bangla news

বুদ্ধিজীবী দিবসে নগর আ’লীগের শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন

নিউজ ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-১২-১৪ ১২:৫৮:২৩ পিএম
শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন মহানগর আওয়ামী লীগ নেতারা।

শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন মহানগর আওয়ামী লীগ নেতারা।

চট্টগ্রাম: শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শহীদদের উদ্দেশ্যে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেছেন মহানগর আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ।

শনিবার (১৪ ডিসেম্বর) সকালে মহানগর আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী এবং সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের নেতৃত্বে শ্রদ্ধা নিবেদনের সময় উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নঈম উদ্দিন চৌধুরী, অ্যাডভোকেট ইব্রাহিম চৌধুরী বাবুল, খোরশেদ আলম সুজন, আলতাফ হোসেন চৌধুরী বাচ্চু, উপদেষ্টা শেখ মাহমুদ ইসহাক, সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদ, শফিক আদনান, চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য শফিকুল ইসলাম ফারুক, অ্যাডভোকেট শেখ ইফতেখার সায়মুল চৌধুরী, চন্দন ধর, মশিউর রহমান চৌধুরী, আবদুল আহাদ, মানস রক্ষিত।

উপস্থিত ছিলেন নির্বাহী সদস্য আবুল মনছুর, বখতিয়ার উদ্দিন খান, যুবলীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ মাহমুদুল হক, থানা আওয়ামী লীগের ফিরোজ আহমদ, ছিদ্দিক আলম, জাহাঙ্গীর চৌধুরী, সাহাবুদ্দিন আহমেদ, এ এস এম ইসলাম, সুলতান আহমেদ চৌধুরী, কাজী আলতাফ হোসেন, মো. ইলিয়াছ, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের ছালেহ আহমদ চৌধুরী, সৈয়দ মো. জাকারিয়া, নাজিম উদ্দিন চৌধুরী, মিথুন বড়ুয়া, জামাল উদ্দিন, আবদুর সাকুর ফারুকী, আবদুর রহমান, মোজাহেরুল ইসলাম চৌধুরী, সাইফুদ্দিন খালেদ মাসুক সহ সহযোগি সংগঠনের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, আহ্বায়ক ও যুগ্ম আহ্বায়করা।

শহীদ মিনারের পাদদেশে সভায় মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী বলেন, শহীদ বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করা করেছিল বাংলাদেশের অস্তিত্বকে বিপন্ন করতে। বাঙালি জাতি সশস্ত্র যুদ্ধে যখন বিজয়ের দ্বারপ্রান্তে তখনই ইতিহাসের এই ভয়াবহ হত্যাকাণ্ড হয়। ঘাতকরা বুঝতে পেরেছিল তারা তাদের অপকর্মে সফল হবেন। কিন্তু ইতিহাসের অমোঘ অপরিহার্য পরিণতি অনুযায়ী তাদের সেই ষড়যন্ত্র সফল হয়নি। আজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুর্নীতি, অনিয়ম, মাদক ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যে সাহসী লড়াই অব্যাহত রেখেছেন তার সঙ্গে নতুন প্রজন্মকে সম্পৃক্ত করতে হবে।

আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, এই নীলনকশার প্রধান পরিকল্পকদের বিচারিক কার্যক্রমের মাধ্যমে আদালতের রায়ে ফাঁসির দড়িতে ঝুলিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিকে দায়মুক্ত করেছেন। তবে বাঙালিকে মেধাশূন্য করার জন্য এখনো চক্রান্ত হচ্ছে, নতুন প্রজন্মকে বিপথগামী করে তাদের চরিত্র হননের অপচেষ্টা চলছে। এর বিরুদ্ধে নতুন প্রজন্মকে সচেতন করে আমাদের আগামী ও ভবিষ্যতকে নিরাপদ করতে হবে।

তিনি বলেন, স্বাধীনতার ৪৮ বছর পরও পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর দোসররা কতজন বুদ্ধিজীবীকে হত্যা করেছিল তার সঠিক পরিসংখ্যান এখনো তৈরি হয়নি। তবে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের তালিকা প্রাথমিকভাবে এক হাজারেও বেশি। এরা আমাদের শ্রেষ্ঠ মানসসম্পদ। আমি সরকারের কাছে আহ্বান জানাই, বুদ্ধিজীবী হত্যার সঙ্গে সরাসরি জড়িত এখনো অনেকে বিদেশে পলাতক রয়েছে। তাদেরকে ফিরিয়ে এনে আদালতের রায়ে প্রদত্ত সর্বোচ্চ শাস্তি কার্যকর করা হোক।

বাংলাদেশ সময়: ১২৫৪ ঘন্টা, ডিসেম্বর ১৪, ২০১৯
এসি/টিসি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   চট্টগ্রাম
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-12-14 12:58:23