bangla news

নারীকে প্রতিযোগী নয় মানুষ হিসেবে দেখতে হবে

​সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-১২-০৮ ৭:৫৪:১৯ পিএম
বক্তব্য দেন মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন

বক্তব্য দেন মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন

চট্টগ্রাম: নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধে পুরুষকে সর্বাগ্রে এগিয়ে আসতে হবে। নারীকে প্রতিযোগী হিসেবে না দেখে মানুষ হিসেবে দেখতে হবে। তাদের নারীর মর্যাদা দিতে হবে। সমাজে পুরুষ তান্ত্রিক দৃষ্টিভঙ্গি, সামাজিক অস্থিরতা, অশিক্ষা কুশিক্ষার বলি হচ্ছে নারী। এ বিষয়ে সমাজের প্রতিটি স্তরে সচেতনতা বাড়াতে হবে।

রোববার (৮ নভেম্বর) আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবস উপলক্ষে আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, দেশের অর্ধেক জনগোষ্ঠী নারী। নারীকে বাদ দিয়ে দেশের উন্নয়ন সম্ভব নয়। আমাদের সমাজ ব্যবস্থা মূলত পুরুষতান্ত্রিক। এ ব্যবস্থায় পুরুষ নারীকে তার সমকক্ষ নয় বরং প্রতিযোগী হিসেবে ভাবে। অন্যদিকে নারীদেরও মনস্তাত্ত্বিক কাঠামো ঠিকভাবে গড়ে না ওঠায় সহিংসতার মাত্রা বাড়ছে।

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) সার্বিক ব্যবস্থাপনায় প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্পের সহয়োগিতায় এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।  বেলা সাড়ে ১১টায় মেয়রের নেতৃত্বে বের হয় শোভাযাত্রা।

‘নারী পুরুষ সমতা, রুখতে পারে সহিংসতা’ লেখা প্লে-কার্ড, ফেস্টুন, ব্যানারে সজ্জিত শোভাযাত্রাটি নগরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে জিইসি কনভেনশন সেন্টারে পৌঁছে।

সভায় সভাপতিত্ব করেন চসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামসুদ্দোহা। এতে বক্তব্য দেন চসিক কাউন্সিলর ছালেহ আহমদ চৌধুরী, সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবিদা আজাদ, এলআইইউপিসি’র টাউন ম্যানেজার সরওয়ার হোসেন খান, নারীনেত্রী কোহিনূর আক্তার ও আনোয়ারা আলম।

উপস্থিত ছিলেন চসিক কাউন্সিলর মোরশেদ আলম, সাহেদ ইকবাল বাবু, মোবারক আলী, মো. আবুল হাসেম, মো. শফিউল আলম, সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর জেসমিন পারভীন জেসী, মোছাম্মৎ ফারজানা পারভীন, মেয়রের একান্ত সচিব মো. আবুল হাসেমসহ প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্পের কর্মকর্তারা।

মেয়র বলেন, ভাগ্যের পরিবর্তন নির্ভর করে নিজের ওপর। নিজে পরিকল্পনা গ্রহণ করে সুন্দর ভাবে বাস্তবায়নের জন্য পরিবারের প্রত্যেক সদস্যদের ভূমিকা রাখতে হবে। পরিবারের সদস্যদের সুশিক্ষা, নৈতিক শিক্ষা দিলে তারা অন্যের প্রতি কুদৃষ্টি বা কুব্যবহার হতে বিরত থাকবে।

তিনি বলেন, নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে সরকার জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছে। যেখানে নারী ও শিশু নির্যাতনের ঘটনা ঘটছে, সেখানে সরকার দ্রুততম সময়ের মধ্যে ব্যবস্থা নিচ্ছে। কিন্তু নির্যাতন বন্ধ করা শুধু সরকারের একার পক্ষে সম্ভব নয়। এ বিষয়ে সমাজের সর্বস্তরের মানুষকে এগিয়ে আসতে হবে।

মেয়র নারীদের উদ্দেশে বলেন, আপনারা সচেতন হোন, ঐক্যবদ্ধ হোন তাহলে সমাজের আমূল পরিবর্তন হবে। আলোকিত সমাজ প্রতিষ্ঠা হবে।

১৪ ডিসেম্বর এমএ আজিজ স্টেডিয়াম সংলগ্ন মাঠে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে ৫ হাজার ৮০০ উপকারভোগীর মাঝে প্রায় ৬ কোটি টাকার অনুদান এবং ১ জানুয়ারি ২০২০ থেকে ৪১টি ওয়ার্ডে চসিকের পক্ষ থেকে ৪১ হাজার মেয়র হেলথ কার্ড বিতরণ করা হবে বলে ঘোষণা করেন সিটি মেয়র।

বাংলাদেশ সময়: ১৯৫০ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ০৮, ২০১৯
এআর/টিসি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-12-08 19:54:19